সোমবার   ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ২৫ ১৪২৬   ১১ রবিউস সানি ১৪৪১

সর্বশেষ:
পুরুষদের পাশাপাশি চ্যালেঞ্জ নিয়ে নারীরাও সমান দক্ষতার সাথে কাজ করে যাচ্ছে- বেগম রোকেয়া পদক অনুষ্ঠানে বললেন প্রধানমন্ত্রী। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫২তম সমাবর্তন অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি। কর্মক্ষেত্রে নিজেদের যোগ্যতার প্রমাণ দিচ্ছেন নারীরা, বেগম রোকেয়ার সেই স্বপ্ন আজ বাস্তবতা - বললেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। নারী উদ্যোক্তাদের বিশেষ সুবিধা দেয়ার আশ্বাস। দুর্নীতিবাজদের স্বস্তিতে থাকতে দেয়া হবে না বললেন দুদক চেয়ারম্যান। এসএ গেমসে আর্চারির দশটি ইভেন্টেই স্বর্ণপদক বাংলাদেশের। এসএ গেমসে এ পর্যন্ত বাংলাদেশের স্বর্ণ সংখ্যা মোট ১৮টি। নিউজিল্যান্ডের হোয়াইট আইল্যান্ড আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাতে নিহত ১ জন, নিখোঁজ বেশ কয়েকজন পর্যটক। হংকংয়ে শান্তিপূর্ণভাবে আন্দোলন করছে আন্দোলনকারীরা। কর্নাটকে বিধানসভা আসনের উপনির্বাচনে এগিয়ে বিজেপি – কংগ্রেসের হার স্বীকার। ভারতের লোকসভায় বিতর্কিত নাগরিকত্ব বিল পাস হচ্ছে আজ।
৫১

আদর্শ তারকা দম্পতির সুখে-দুঃখে ২৫ বছর

প্রকাশিত: ৫ অক্টোবর ২০১৯  

আদর্শ তারকা দম্পতি হিসেবে সবার কাছে সমাদৃত নাইম-শাবনাজ। এই তারকা জুটি তাদের দাম্পত্য জীবনের ২৫তম রজত জয়ন্তী পূর্ণ করলেন শনিবার। ১৯৯৪ সালের ৫ অক্টোবর তাদের বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়েছিলো। এরপর থেকে বিগত পঁচিশ বছর তারা সুখে দুঃখে একসঙ্গে আছেন। তারা দুই গর্বিত কন্যা সন্তানের মা। বড় মেয়ে নামিরা এবং ছোট মেয়ে মাহাদিয়া।

দাম্পত্য জীবনের সাফল্যের পঁচিশ বছর পেরুনো প্রসঙ্গে নাইম বলেন, আমার বাবা ইন্তেকাল করেন ১৯৯৪ সালের জানুয়ারিতে। বাবা মারা যাবার পর আমাকে শাবনাজই মানসিকভাবে অনেক সাপোর্ট দিয়েছে যা সে সময় আমার জন্য খুবই প্রয়োজন ছিলো। পরবর্তীতে আমরা বিয়ে করি। আমাদের ঘর আলোকিত করে কন্যা সন্তান নামিরা ও মাহাদিয়া আসে। আল্লাহর অশেষ রহমতে আমরা সবসময়ই সুখে ছিলাম, সুখেই আছি।

শাবনাজ বলেন, এতোটা বছর পেরিয়ে এসে জীবনের ফেলে আসা দিনগুলোর কথা ভীষণভাবে মনে পড়ছে। মনে পড়ছে বিয়ের দিনটির কথা। খুব তাড়াহুড়ার মধ্যদিয়েই আমরা বিয়ে করেছিলাম। সেই থেকে আমরা সুখে দুঃখে নানান চড়াই উৎরাই পেরিয়ে একসঙ্গে আছি, আল্লাহর রহমতে বেশ ভালো আছি, সুখে আছি। এখন যেভাবে আছি সারাটা জীবন যেন নাইমের সঙ্গে এভাবেই কাটিয়ে দিতে পারি। আমার মেয়ে দুটির জন্য সবাই দোয়া করবেন।

১৯৯১ সালের ৪ অক্টোবর এহতেশাম পরিচালিত ‘চাঁদনী’ সিনেমাতে অভিনয়ের মধ্যদিয়ে দেশীয় চলচ্চিত্রে নাইম-শাবনাজ জুটির অভিষেক হয়। এ জুটির অভিষেকের মধ্যদিয়ে আরেক রোমান্টিক জুটির সফল যাত্রা শুরু হয়। এরপর একে একে তারা দর্শককে উপহার দেন ‘দিল’, ‘সোনিয়া’,‘চোখে চোখে’, ‘বিষের বাঁশি’, ‘অনুতপ্ত’ ,‘টাকার অহংকার’, ‘সাক্ষাৎ’, ‘জিদ’, সহ আরো বেশকিছু চলচ্চিত্র।

সর্বশেষ তারা দু’জন ‘ঘরে ঘরে যুদ্ধ’ চলচ্চিত্রে জুটি হয়ে অভিনয় করেছিলেন। নাইম সর্বশেষ ‘মেয়েরাও মাস্তান’ এবং শাবনাজ সর্বশেষ আজিজুর রহমানের ‘ডাক্তার বাড়ি’ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। এরপর নাইম শাবনাজ জুটিকে আর চলচ্চিত্রে অভিনয়ে দেখা যায়নি। আলমগীর পরিচালিত ‘নির্মম’ সিনেমাতে অভিনয়ের জন্য শাবনাজ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছিলেন।

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –