ব্রেকিং:
দেশে করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ৪৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মারা গেলেন ২ হাজার ৩৫২ জন। এছাড়া নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২ হাজার ৬৬৬ জন। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৮৩ হাজার ৭৯৫ জন।
  • রোববার   ১২ জুলাই ২০২০ ||

  • আষাঢ় ২৮ ১৪২৭

  • || ২১ জ্বিলকদ ১৪৪১

সর্বশেষ:
মুজিববর্ষ উপলক্ষে এক কোটি গাছ রোপণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী করোনার ভুয়া রিপোর্টের ঘটনায় ডা. সাবরিনা গ্রেফতার সরকারি উদ্যোগে সারাদেশে কোরবানির পশুর ডিজিটাল হাট বর্তমান সরকার কৃষি খাতকে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে- কৃষিমন্ত্রী ই-নথি ব্যবস্থাপনায় এবারো শীর্ষে শিল্প মন্ত্রণালয়
১০৫

আর্জেন্টিনার আদালতে সু চি’র বিরুদ্ধে মামলা

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১৪ নভেম্বর ২০১৯  

রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর অমানবিক নির্যাতনের অপরাধে মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চি’সহ দেশটির শীর্ষ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে আর্জেন্টিনার আদালতে। রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে এই প্রথমবারের মত সু চি’র বিরুদ্ধে আইনী পদক্ষেপ নেয়া হলো।

রোহিঙ্গা ও লাতিন আমেরিকার মানবাধিকার সংগঠন ‘ইউনিভার্সাল জুরিডিকশন’ নীতির অধীনে গত বুধবার এই মামলাটি করা হয়। এটি একটি আইনী ধারণা যা বিভিন্ন দেশের আইনের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ। যুদ্ধাপরাধ ও মানবতাবিরোধী অপরাধগুলো এতটাই ভয়াবহ যে এটি যেকোনো একটি জাতির জন্য নির্দিষ্ট নয় ও যেকোনো দেশে এর বিচার হতে পারে।

বার্তা সংস্থা এএফপি’কে দেয়া এক বিবৃতিতে আইনজীবী টমাস ওজিয়া বলেন, ‘মামলায় মিয়ানমারের গণহত্যায় জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়েছে।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমরা মামলাটি আর্জেন্টিনায় করেছি কারণ তাদের অন্য কোথাও ফৌজদারী মামলা করার সম্ভাবনা নেই।’

এই মামলাতে রোহিঙ্গাদের ‘অস্তিত্বের জন্য হুমকি’ সু চি সহ দেশটির সেনাপ্রধান মিন অং হ্লাইং ও অন্যান্য শীর্ষ সামরিক ও রাজনৈতিক নেতাদের বিচারের দাবি করা হয়েছে।

যুক্তরাজ্য ভিত্তিক বার্মিজ রোহিঙ্গা সংস্থা (ব্রুক) এর প্রেসিডেন্ট তুন খিন বলেন, ‘মিয়ানমার সরকার বছরের পর বছর ধরে রোহিঙ্গাদের নিশ্চিহ্ন করার চেষ্টা চালিয়েছে। গণহত্যা ও নির্যাতন চালিয়ে তাদের দেশ ছেড়ে পালাতে বাধ্য করেছে।’

২০১৭ সালে রোহিঙ্গাদের দেশ থেকে বহিস্কারের কারণে বিশ্বজুড়ে আদালতগুলোতে আইনী চাপের মুখোমুখি হয়েছে মিয়ানমার।

জাতিসংঘের শীর্ষ আদালতে গত সোমবার মিয়ানমারের বিরুদ্ধে পৃথক মামলা করেছে গাম্বিয়া। যাতে সমর্থন জানিয়েছে কানাডাও।

বার্তা সংস্থা এএফপি’কে ওজিয়া বলেন, ‘আমরা আশা করছি অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হবে।’

তবে আর্জেন্টিনার দণ্ডবিধিতে না থাকায় গণহত্যার বিষয়টি বিশেষভাবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি।

সূত্র: এনডিটিভি

আদালত বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর