শনিবার   ১৮ জানুয়ারি ২০২০   মাঘ ৪ ১৪২৬   ২২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

৬০

আসলেই আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়টা অনেক সুন্দর- বেরোবি সম্পর্কে সৌরভ

প্রকাশিত: ৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

শাফি উদ দৌলা সৌরভ বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় (বেরোবি)-এর কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী। দশম শ্রেণিতে পড়ার সময় বাবা মোঃ সিরাজুলকে হারিয়েছেন। তাই মা শাহিনুর বেগমকেই সামলাতে হয়েছে একটি বড়ো পরিবার। মা পেশায় একজন সরকারি চাকরিজীবী। ১১ ভাই-বোন। বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ থেকে স্নাতক সম্পূর্ণ করেছেন তিনি। পড়াশুনা শেষ করে তার বন্ধু-বান্ধবরা যখন চাকরির পেছনে ছুটছেন। তখন তিনি চাকরির সুযোগ পান জাপানের টোকিও শহরে।

কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং- এ অনার্স শেষ করেই নিজ বিভাগের শিক্ষক ড. মোঃ মিজানুর রহমানের ‘সেমান্টিক ল্যাব’-এ রিচার্সার ও ডিভেলপার হিসেবেই তার হাতে খড়ি। সেখান থেকেই জাপানের আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স প্রতিষ্ঠান ‘ডেলোয়েট টাচ টহমাটসু এল এল ছি’ রিক্রুটমেন্ট ভাইভা নেয়। ভাইভা প্রসেসিং চলে প্রায় এক বছর ধরে। সর্বশেষ এই বছরেই ওরা অফার লেটার পাঠিয়ে দেয়। এই প্রতিষ্ঠানটিতে তার কাজ আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স নিয়ে রিসার্চ করা।

সৌরভ সব কয়টি সেমিস্টারেই কৃতিত্বের সাথে প্রথম স্থান দখল করেন। ছিলেন মিশুক স্বভাবের। তাইতো টানা ৬টা সেমিস্টারেই ছিলেন ক্লাস রিপ্রেজেন্টেটিভ (সি-আর)। দীর্ঘদিন দায়িত্ব পালন করেছেন কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক হিসেবেও। জুনিয়রদের সাথে তার সম্পর্ক বন্ধুত্বপূর্ণ হওয়ায় ক্যাম্পাস জীবনে সেরা সময় কাটিয়েছেন তাদেরকে ঘিরেই। সৌরভ ছিলেন ভ্রমণপ্রিয় সময় পেলেই প্রচুর ঘোরাঘুরি করতেন।

বিশ্ববিদ্যালয় বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে আমার অনুভূতি কেমন সেটা বুঝান যাবে না। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে যতো নেগেটিভ কথাবার্তাই হোক না কেন আসলেই আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়টা অনেক সুন্দর। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরাও অনেক মেধাবী। বিশ্ববিদ্যালয়টাকে সুস্থ রাখতে পারলে সৌন্দর্য আর গুণগতমানে হয়ে ওঠবে সেরা একটি বিশ্ববিদ্যালয়।

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –
এই বিভাগের আরো খবর