শনিবার   ২৪ আগস্ট ২০১৯   ভাদ্র ৯ ১৪২৬   ২২ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

২৭

ঈদ ঘিরে র‌্যাবের নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা

প্রকাশিত: ১০ আগস্ট ২০১৯  

র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) মহাপরিচালক (ডিজি) বেনজীর আহমেদ বলেছেন, ঈদের নামাজকে ঘিরে সারাদেশের ঈদগাহগুলোতে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তায় থাকবে র‌্যাব। যেহেতু দিনাজপুর ও ময়মনসিংহে সবচেয়ে বড় ঈদ জামাত হবে সেখানে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার থাকবে। 

শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে ঈদে নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

রাজধানীর ঈদের নামাজ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এবার আবহাওয়া খারাপ থাকলে ঢাকার প্রধান ঈদের জামায়াত হবে বায়তুল মোকাররমে। তাই বায়তুল মোকাররমসহ ঢাকা শহরের প্রধান প্রধান ঈদের জামায়াতের নিরাপত্তায় নিয়োজিত থাকবে র‌্যাব। ঈদগাহগুলোতে সিসি ক্যামেরা ও ডগ-স্কোয়াড থাকবে। পাশাপাশি সাদা পোশাকেও র‌্যাব সদস্যরা মোতায়েন থাকবে। 

যত্রতত্র পশু কোরবানি না দেয়ার আহ্বান জানিয়ে র‌্যাব ডিজি বলেন, আমাদের সিটি কর্পোরেশন ভালো কাজ করছে। অনুরোধ থাকবে, রাজধানীর পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার জন্য সিটি কর্পোরেশন কর্তৃক নির্ধারিত স্থানের বাইরে, সড়কে, বাসার গ্যারেজে পশু কোরবানি দেবেন না।

তিনি আরো বলেন, সারাদেশে ১৮ হাজার গরুর হাট বসছে। এরমধ্যে সাড়ে ৫শ' গরুর হাট খুবই গুরুত্বপূর্ণ। গরু ব্যবসায়ীরা যেন নির্বিঘ্নে কোরবানির পশু হাটে আনতে পারেন, বিক্রি করতে পারেন এবং ক্রেতারা যাতে নির্বিঘ্নে গরু ক্রয় করতে পারেন সেজন্য গরুর হাটগুলোতে নজরদারি রাখছে র‌্যাব। 

ডিজি বলেন, এবার অনলাইনে কোরবানির পশু ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে এটা ভালো দিক। আগামীতে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের মনিটরিংয়ে কোরবানির পশু অনলাইনে ক্রয়-বিক্রয়ের বিষয়টিকে উৎসাহিত করা যেতে পারে। এছাড়া কোরবানির পশুর চামড়া যাতে পাচার না হয় সেজন্য কার্যকরী পদক্ষেপ নেবে র‌্যাব। 

এ সময় ঈদযাত্রা প্রসঙ্গে বেনজীর আহমেদ বলেন, গত বছর ঈদযাত্রা তুলনামূলক বেশ আরামদায়ক ছিল। এবার সমস্যা তৈরি করেছে বন্যা। দেশের মধ্যম অঞ্চলে তিন সপ্তাহজুড়ে বন্যায় দুই হাজারের সড়ক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে প্রায় সাড়ে ৩শ’ কি.মি রেলপথ।

তিনি বলেন, রেলপথ, সড়ক ও সেতু মন্ত্রণালয়, সরকার ও সর্বোপরি আমরা সবাই চেষ্টা করছি এবার যেন ঈদযাত্রা মোটামুটি সহনীয় রাখা যায়। টার্মিনাল, লঞ্চ টার্মিনাল, রেল স্টেশন কেন্দ্রীক র‌্যাবের নিরাপত্তা ব্যবস্থা ও মনিটরিং রয়েছে। গতকাল পর্যন্ত সদরঘাট কেন্দ্রীক চাপ ছিল। আজো পর্যাপ্ত লঞ্চ রয়েছে। সবাই যাতে নিবিঘ্নে বাড়ি যেতে পারেন সেটি নজরদারিতে রয়েছে।

ঈদে ও ঈদ পরবর্তী ফাঁকা রাজধানীর নিরাপত্তা, জাতীয় শোক দিবস ও জন্মাষ্টমীতে ব্যাপক নিরাপত্তায় র‌্যাব নিয়োজিত থাকবে বলেও জানান তিনি।

নীলফামারি বার্তা
নীলফামারি বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর