ব্রেকিং:
সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সাহারা খাতুন ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না-লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।
  • শুক্রবার   ১০ জুলাই ২০২০ ||

  • আষাঢ় ২৬ ১৪২৭

  • || ১৯ জ্বিলকদ ১৪৪১

সর্বশেষ:
প্রাথমিকে ২৬ হাজার শিক্ষক নিয়োগের পরিকল্পনা গুরুত্বপূর্ণ সেবার ৯০ শতাংশই ডিজিটাল হবে করোনার অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জগুলো বাংলাদেশ ভালোই সামাল দিচ্ছে- ফ্রেডারিক নিউম্যান বিনামূল্যে ৫ হাজার তরুণকে ৪ হাজার কোর্স করাবে এলআইসিটি বন্ধ পাটকলগুলো আধুনিকায়ন করা হবে: প্রধানমন্ত্রী
১২৭

করোনা: স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে ট্রেনিং নিতে চায় আসিফ

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ২৪ মার্চ ২০২০  

করোনাভাইরাস আতঙ্ক এখন বিশ্বজুড়ে। করোনা মোকাবেলায় ইতোমধ্যে দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ অনেক অফিস-আদালত বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। জনসমাগম এড়িয়ে চলার পরামর্শ দিচ্ছে সরকার। এমন অবস্থায় করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে একজন স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে মানবতার সেবায় নিজেকে নিয়োজিত করতে চান জনপ্রিয় গায়ক আসিফ আকবর। শুধু তাই নয়, প্রয়োজনীয় ট্রেনিং নিতেও ইচ্ছুক তিনি। 
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক পেইজে এক স্ট্যাটাসের মাধ্যমে এ কথা জানান বাংলা গানের এ যুবরাজ।

ওই স্ট্যাটাসে আসিফ আকবর লেখেন, আমি আসিফ আকবর। বাংলাদেশে আমার পরিচিতি একজন গায়ক হিসেবে। আমার জন্মসনদ থেকে শুরু করে সবধরনের দলিল দস্তাবেজ প্রমান করবে আমি বাংলাদেশি। পাসপোর্ট আর ভোটার আইডিতে আমার জন্মতারিখ ২৫/০৩/১৯৭৪ ইং। আমার বেসিক জন্মতারিখ ২৫/০৩/১৯৭২ ইং। আমার স্কুল সার্টিফিকেট এবং সব পর্যায়ের শিক্ষাসনদে জন্মতারিখ ২৫/০৮/১৯৭৪ ইং।

তিনি লেখেন, আমি জানি বাংলাদেশে বিভিন্নরকম জন্মতারিখ নিয়ে বসবাস করা একমাত্র নাগরিক আমি না। আমার এখানে কোন দোষ নেই। তখন আমি ছোট ছিলাম। দায়িত্বশীলরা দায়িত্ব নিয়ে আমাকে মাল্টিপল জন্মতারিখ এবং জন্মসন দিয়েছেন, এটি সম্পূর্ণ আরোপিত একটি সিদ্ধান্ত। আমি মেনে বড় হয়েছি কিংবা মানতে বাধ্য হয়েছি, পরিবার এবং স্কুলের অভিভাবকদের স্ট্র্যাটেজির কারণে। আমি জানি এই ভুল শুধরাতে গেলে জাতির গেজেট নিয়ে টান পড়বে।

স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে মানবতার সেবায় নিজেকে নিয়োজিত করার ব্যাপারে এ গায়ক বলেন, আসল কথা- আমি সুস্থ্য মস্তিস্কে সব ধরনের জন্মতারিখের সম্পূর্ণ দায় নিয়ে করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে একজন স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে  মানবতার সেবায় নিজেকে নিয়োজিত করতে চাই। প্রয়োজনীয় ট্রেনিং নিতেও ইচ্ছুক সর্বান্তকরণে। সরকারী কিংবা বেসরকারী চিকিৎসার যেকোনো পর্যায়ে কোভিড-১৯ এ আক্রান্তদের জন্য কাজ করতে চাই।

যোগ করে আসিফ বলেন, স্বেচ্ছাসেবায় অংশগ্রহনের যাবতীয় খরচ আমি নিজেই বহন করবো। আমি সজ্ঞানে শপথ করছি সিদ্ধান্তে অটল থাকবো। যেকোনো প্রকার অবস্থায় আমার পরিবারের যেকোনো অভিযোগ অগ্রাহ্য করার এখতিয়ার মেনে নিলাম। আমি করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে স্বতস্ফুর্তভাবে শরীক হওয়ার সুযোগ চাই।

বিনোদন বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর