ব্রেকিং:
ট্রেনের টিকিট শুধু অনলাইনেই বিক্রি হবে বলে জানিয়েছেন রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন। বসলো পদ্মাসেতুর ৩০তম স্প্যান: দৃশ্যমান সাড়ে ৪ কিলোমিটার গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় ছয়জন নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে দুইজন স্বাস্থ্যকর্মী, তিনজন গার্মেন্টসকর্মী ও একজন মাওলানা।
  • শনিবার   ৩০ মে ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৬ ১৪২৭

  • || ০৭ শাওয়াল ১৪৪১

সর্বশেষ:
বসলো পদ্মাসেতুর ৩০তম স্প্যান: দৃশ্যমান সাড়ে ৪ কিলোমিটার করোনা-আম্ফান-কালবৈশাখী: দিনাজপুরে দিশেহারা লিচুচাষিরা গাইবান্ধায় ঈদের ছুটিতে আসা ৩ গার্মেন্টসকর্মী করোনায় আক্রান্ত ঠাকুরগাঁওয়ে এক রাস্তার সমস্যা অনেক গাইবান্ধায় রড চুরির ঘটনায় মৃত দুই ব্যক্তির নামে মামলা
২৬

কুড়িগ্রামে প্রতিপক্ষে বাড়ি ভাঙচুর: ৯শ’ প্রজাতির গাছ কর্তন       

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১ এপ্রিল ২০২০  

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে জমিসংক্রান্ত বিরোধের জেরকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষে বাড়ি ভাঙচুর ও ৯শ’ প্রজাতির গাছ কেটে ফেলার অভিযোগ উঠেছে। এসময় দুর্বৃত্তরা ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারটিকে মামলা তুলে নেয়ার ও প্রাণনাশের হুমকী দেয়। এতে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে খোলা আকাশে আশ্রয় নেয়া মামলার বাদি পরিবারটি।


মামলা ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, উপজেলায় রাবাইতারী গ্রামের মৃত: ধীরেন্দ্রনাথ ভদ্রের  ছেলে ধীনেশচন্দ্র ভদ্র সাথে একই এলাকার মৃত সুরেন্দ্রনাথের ছেলে সুবলচন্দ্র  ও আব্দুর রহমানের ছেলে জুরান আলীর যোগসাজসে ১১ একর ৩০ শতক জমি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে একাধিকবার গ্রাম্য সালিশ বৈঠক হলেও মীমাংসা করতে পারেনি মাতব্বরা। পরে আদালতে মামলা করেন তারা। আদালতে ১৭ বছর মামলা চলার পর গত এক বছর আগে ওই জমির রায় পান ধীরেন্দ্রনাথ। বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশ মোতাবেক কমিশনার ধীরেন্দ্রনাথের ওয়ারিশদেরকে রায়কৃত জমি বুঝিয়ে দেন। তখন থেকে তিনটি পুকুরসহ জমি ভোগদখল করে ও ৯শ’ প্রজাতির বিভিন্ন গাছের চারা পুকুরের ধারে রোপন করেন তারা। 


এরমধ্যে গত মঙ্গলবার (৩১মার্চ) কোন কিছু বুঝে উঠার আগে সুবলচন্দ্র  ও জুরান আলীর নেতৃতে অর্ধশতাধিক দৃস্কৃতিকারীরা দেশিয় অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে ধীরেন্দ্রনাথের বাড়িতে হামলা চালায়। এসময় দৃর্বৃত্তরা বাড়ির দরজা, জানালা, বেড়া ও আসবাবপত্র ভাঙচুর ও লুটপাট করে। পুকুরের ধারে লাগানো ৯শতাধিক গাছের চারা কেটে ফেলে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ উপস্থিত হলে মামলার বিবাদির লোকজন ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায় । 


আতংকিত ধীরেন্দ্রনাথ জানান, প্রায় ১৭ বছর মামলা চলার পর ২০১৯ সালের শুরুতে কোর্টের রায় পেয়েছি আমরা । বিজ্ঞ আদালতের নিদের্শ কমিশনারের মাধ্যমে রায়কৃত জমি লাল নিশান টাঙিয়ে  আমাদেরকে বুঝে দেয়। সে জমিতে মাছচাষসহ বোরো ক্ষেত ও গাছ লাগানো হয়েছে। হঠাৎ করে আমাদের সেই গাছ  কর্তন এবং ঘরবাড়ী ভেঙ্গে মালামাল লুট করে নিয়ে য়ায় ।   


এ ব্যাপারে ফুলবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ রাজীব কুমার রায় ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, বাড়িতে ভাংচুর ও গাছ কর্তন করার অপরাধে থানায় দুইটি পৃথক মামলা দায়ের হয়েছে। আসামীদেরকে গ্রেপ্তারে চেষ্টা অব্যাহত আছে। 

নগর জুড়ে বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর