মঙ্গলবার   ১৯ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৪ ১৪২৬   ২১ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

সর্বশেষ:
বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের প্রথম বর্ষ ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ হবে আগামী মঙ্গলবার (১৯ নভেম্বর) রাজনৈতিক স্ট্যান্টবাজি করতেই চিঠি দিয়েছে বিএনপি: তথ্যমন্ত্রী র‌্যাবের ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলমকে হাইকোর্টে তলব পাঁচ বছরের নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়ে বাংলাদেশিদের জন্য আমিরাতের শ্রমবাজার খুলে দেয়ার ইঙ্গিত যত চাপ থাকুক সড়ক পরিবহন আইন বাস্তবায়ন হবে বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের গ্রামীণফোনের পাওনার বিষয়ে আদেশ ২৪ নভেম্বর আরব আমিরাতের আরো বড় বিনিয়োগের প্রত্যাশা প্রধানমন্ত্রীর আবরার হত্যা মামলার অভিযোগপত্র (চার্জশিট) আমলে নিয়ে পলাতক চার আসামির বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছে আদালত
৫০১

ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী: চাকমাদের আদ্যোপান্ত

প্রকাশিত: ২৯ নভেম্বর ২০১৮  

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

বাংলাদেশের জনসংখ্যার অধিকাংশ বাঙালি হলেও অনেকগুলো ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী রয়েছে যাদের উপজাতি বলে আখ্যায়িত করা হয়। ১৯৮৪ সালের বিবিএস রিপোর্টে অনুযায়ী, বাংলাদেশে ২৪টি নৃ-তাত্ত্বিক ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠী রয়েছে এবং তাদের সংখ্যা প্রায় ৮ লাখ ৯৭ হাজার ৮২৮ প্রায়। এদের মধ্যে চাকমা গোষ্ঠী হলো চট্টগ্রামের পার্বত্য অঞ্চলের বৃহত্তম উপজাতি।ব্রিটিশ আদমশুমারি-গ্রণনাকারীদের মাধ্যমে চাকমা নামটির প্রচলন ঘটে। ১৯৪৭ সালে যখন ব্রিটিশরা ভারত থেকে বহিস্কৃত হয়, তখন দেশটি পাকিস্তান ও ভারত দু’ভাগে বিভক্ত হয়ে যায়। পাকিস্তানের দুই অঞ্চল পূর্ব পাকিস্তান (যেখানে চাকমা বসবাস করতেন) এবং পশ্চিম পাকিস্তান নামে পরিচিত ছিল ।

 

1.ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী: চাকমাদের আদ্যোপান্ত

অবস্থান

বাংলাদেশ, ভারত ও বার্মাসহ চাকমা জনসংখ্যা প্রায় পাঁচ লাখ ৫০ হাজার।বাংলাদেশের পার্বত্য চট্টগ্রামে সংখ্যাগরিষ্ঠ (আনুমানিক ৩ লাখ) অবস্থিত।ভারতের মিজোরাম রাজ্যে প্রায় ৮০ হাজার এবং বার্মার মিয়ানমারে প্রায় ২০ হাজার চাকমা রয়েছে।চাকমা দক্ষিণ-পশ্চিম বার্মা জনগোষ্ঠীর সঙ্গে সম্পর্কিত এক উপজাতি। চট্টগ্রাম পাহাড়সহ বার্মা ও পূর্ব ভারতের পাহাড় অঞ্চলের পশ্চিমাঞ্চলে চাকমাদের বাস। এসব অঞ্চলের তাপমাত্রা উষ্ণ, বর্ষা-বৃষ্টি এবং উচ্চ আর্দ্রতাসম্পন্ন।

 

2.ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী: চাকমাদের আদ্যোপান্ত

ভাষা

উপজাতীয় ভাষাসমূহের মধ্যে উন্নততর চাকমাদের ভাষা। এ ভাষায় কিছু প্রাচীন পুথি ছিল। সেসবের মধ্যে তালপাতায় লিখিত চাদিগাং চারা পালা একটি। এ থেকে জানা যায়, চাকমারা নেপাল থেকে দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার নানাদেশ পরিক্রম করে ব্রহ্মদেশ ও আরাকানের ভেতর দিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রামে এসে পৌঁছে। প্রাচীনকাল থেকেই এখানে তাদের আনাগোনা থাকলেও মাত্র তিনশ বছর পূর্বে পার্বত্য চট্টগ্রামে তারা স্থায়ীভাবে বসতি শুরু করে। তাদের আদি নাম ‘শাক’, আরাকানি ভাষায় ‘চাক’, চাটগেঁয়ে ভাষায় ‘চামউয়া’ এবং চাকমা ভাষায় ‘চাকমা’।চাকমা ভাষার বর্ণমালা থাইল্যান্ডের ক্ষ্মের, আন্নাম লাওস, কম্বোডিয়া, শ্যাম ও দক্ষিণ ব্রহ্মের লিপির সঙ্গে সাদৃশ্যপূর্ণ।চাকমা বর্ণমালার উচ্চারণ কোমল, সাধারণত জিহ্বামূল থেকে উচ্চারিত। স্বরপ্রধান এ ভাষার বর্ণমালা আ-কারান্ত। শব্দে স্বরাগম ও স্বরলোপ ঘটে। চাকমা ভাষায় চীনা ভাষার মতো টান আছে, যে কারণে একই শব্দের অর্থপার্থক্য ঘটে; তবে তা তেমন প্রকট নয়। শব্দতত্ত্ব, ছন্দপ্রকরণ, লোকসাহিত্য, বাগ্বিন্যাস ও ধ্বনিতত্ত্বের দিক দিয়ে চাকমা ভাষা বাংলা ভাষার খুব কাছাকাছি। বাংলা ভাষার সব ধ্বনিই চাকমা ভাষায় রয়েছে। বর্তমানে চাকমা ভাষায় ব্রহ্মদেশীয় লিপি ব্যবহারের চেষ্টা চলছে। রাঙ্গামাটি থেকে চাকমা প্রথম পাঠ নামে একটি গ্রন্থও প্রকাশিত হয়েছে; প্রণেতা নয়নরাম চাকমা।

 

3.ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী: চাকমাদের আদ্যোপান্ত

চাকমা ভাষায় অনেক গীত আছে, যেগুলো চাকমা কথ্য ভাষায় রচিত। ১৭৭৭ খ্রিস্টাব্দে চাকমা কবি শিবচরণ রচিত গোজেল লামা-র ভাষা প্রায় বাংলা।এতে পূর্ববঙ্গ-গীতিকার মতো বন্দনাগীতি রয়েছে। রাধামন ধানাপাদি ও চাদিগাং চারা পালা দুটি উল্লেখযোগ্য পালা। চাকমা ও বাংলা ছড়ার ছন্দ প্রায় অভিন্ন। চাকমা ও বাংলা ভাষার পদবিন্যাসও একই রকম। সংখ্যাবাচক চাকমা শব্দগুলি সামান্য উচ্চারণগত পার্থক্য ছাড়া বাংলার মতোই। বিয়োগ চিহ্নকে (-) তারা ‘ফারাক’ এবং পূরণ চিহ্নকে (×) ‘দুনা’ বলে। অন্যান্য চিহ্নের নাম একই। চাকমা ভাষায় ‘ং’-কে ‘এক ফুদা’ (ফোটা), ‘ঃ’ -কে ‘দ্বিফুদা’ এবংঁ-কে ‘চানফুদা’ বলা হয়। চাকমা লোকসাহিত্য বেশ সমৃদ্ধ। বহু লোকগাথা ও কিংবদন্তি রয়েছে এ ভাষায়। ‘উভাগীত’ চাকমাদের প্রিয় ঐতিহাসিক গান। প্রবাদ-প্রবচন চাকমা ভাষার এক অনন্য দৃষ্টান্ত। এতে প্রধানত কৃষি, পশুপাখি, প্রকৃতি, সমাজ, ধর্ম, দেহতত্ত্ব ইত্যাদি বিষয় বিধৃত হয়েছে। চাকমা ভাষায় প্রবাদ-প্রবচনকে বলে ‘দাগঅ কধা’। বর্তমান চাকমা ভাষা রূপগতভাবে বাংলা, অসমিয়া, রাজবংশী, গারো, সাঙ্ঘমা ও চাটগেঁয়ে ভাষার কাছাকাছি। এ ভাষার ছয়টি আঞ্চলিক রূপ রয়েছে। এমনকি, চাকমা গোত্রে-গোত্রেও এর পৃথক কথ্যরূপ দেখা যায়।

ফোকলোর

চাকমার উৎস বর্ণনা করে পৌরাণিক উপাধি গোত্রকে চম্পকনগরের প্রাচীন রাজ্যে চিহ্নিত করে। রাজার পুত্রদের মধ্যে একজন নতুন জমিতে জয়লাভের আশা নিয়ে একটি বড় সেনাবাহিনী নিয়ে পূর্বদিকে যাত্রা করেছিলেন। তিনি মেঘনা নদীর "সমুদ্র" অতিক্রম করেন এবং বার্মার আরাকান রাজ্য দখল করেন এবং সেখানে তিনি বসতি স্থাপন করেন। পরে তার রাজ্যর লোকেরা বার্মিজদের সঙ্গে বিয়ে করে ধীরে ধীরে বৌদ্ধ ধর্ম গ্রহণ করেছিল।এই রাজবংশের শেষ রাজা শের দৌলত নামে একজন শাসক ছিলেন। তিনি অতিপ্রাকৃত শক্তির প্রতি কৃতজ্ঞ ছিলেন এবং নদীতে ধুঁয়ে তার অস্ত্রগুলো বের করে পাপ থেকে নিজেকে পরিত্যাগ করতে চেয়েছিলেন। একদিন তার স্ত্রী লুকিয়ে তাকে দেখেছিল। শের দৌলত তার উপর তার গুপ্তচরবৃত্তি খুঁজে পেয়ে ক্রোধের বশে গুপ্তচরকে ও তার পরিবারের সকলকে হত্যা করেছিলেন। তার বর্বরতার ক্ষোভে তার অনুচররাই তাকে হত্যা করল।

 

4.ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী: চাকমাদের আদ্যোপান্ত

ধর্ম

চাকমা বৌদ্ধরা আনুষ্ঠানিকভাবে বৌদ্ধধর্মের দক্ষিণ, থেরবাদা, রূপ অনুসরণ করে। প্রায় প্রতিটি চাকমা গ্রামে বৌদ্ধ মন্দির (কেয়াং) রয়েছে। চাকমাদের ভাষায় বৌদ্ধ সন্ন্যাসীকে ভিক্ষু বলা হয়। তারা ধর্মীয় উৎসব ও অনুষ্ঠানগুলোতে অনেক আনন্দ করেন। গ্রামবাসীরা বৌদ্ধ ভিক্ষুদের খাদ্য, উপহার দান করে এবং ভিক্ষুদের দেয়া প্রাথনা গ্রহন করে থাকে।চাকমা ছাগল, মুরগির বা হাঁসের বলি উৎসর্গ করে যা প্রফুল্লতা ও রোগের আতঙ্কের জন্য শান্তির প্রস্তাব দেয়।যদিও পশু উৎসর্গ সম্পূর্ণরূপে বৌদ্ধ বিশ্বাসের বিরুদ্ধে।

প্রধান উৎসব

চাকমারা বিভিন্ন বৌদ্ধধর্মীয় উৎসব উদযাপন করে থাকে। বুদ্ধ পূর্ণিমা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। এই পূর্ণিমায় জন্ম, বোধি জ্ঞান অর্জন ও তার মৃত্যু এই তিনটি গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা নিয়ে বুদ্ধ পূর্ণিমা উদযাপন করা হয়।এটি বৈশাখ মাস (সাধারণত মে মাসে) পূর্ণ চাঁদ দিন পালন করা হয়।এই উৎসবের দিনে, চাকমারা নতুন পোশাক পরে মন্দিরে গিয়ে বুদ্ধের সামনে ফুল, মোমবাতি, আগরবাতি দান করে এবং ভিক্ষুদের কাছ থেকে ধর্মীয় দেশনা শোনার জন্য সকলে হাত জোর করে হাঁটু ভেঙে বসে। দেশনা শেষে পরে দরিদ্রদের (অর্ঘ) প্রদান করা হয় এবং বিভিন্ন রকমের পাহাড়ি গান নাচ অনুষ্ঠিত হয়।এদের প্রতিবছরই এপ্রিল মাসে বিজু নামের উৎসব পালিত হয়।বাঙ্গালী নববর্ষের সঙ্গে এই বিজু উৎসব শুরু হয়, যা অনেক উৎসাহের সঙ্গে পালিত হয়।এপ্রিলের ১২ তারিখ তাদের ঘর ফুল দিয়ে সজ্জিত করা হয, ছোট বাচ্চারা তাদের আশীর্বাদ অর্জন করতে বয়স্কদের বিশেষ মনোযোগ দেয় এবং অতিথিদের জন্য নানা রকম খাবার প্রস্তুত করা হয়।

 

5.ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী: চাকমাদের আদ্যোপান্ত

মৃত্যুর সৎকার্য

চাকমারা তাদের মৃতদেহ শরীরটি নাশক পরিহিত এবং একটি বাঁশের খাটিয়ার উপর রাখে। আত্মীয় ও গ্রামবাসীরা মৃতদেহ পরিদর্শন করে।এই সময়ে একটি ড্রাম বাজানো হয়। সমবেদনা সাধারণত বিকালে ঘটে। অনুষ্ঠান কয়েকজন বৌদ্ধ ভিক্ষু দ্বারা সমাপ্তি করা হয়।বৌদ্ধদের পুনর্জন্ম বিশ্বাস। এর মানে তারা বিশ্বাস করে যে মৃত ব্যক্তির আত্মা অন্য জীবন্ত আকারে পৃথিবীতে ফিরে আসবে। মৃত দেহের পোড়া হাড়ের কিছু অবশেষ সংগ্রহ করে একটি মাটির পাত্রের মধ্যে রেখে তা কাছাকাছি কোনো নদীতে পুঁতে রাখা হয়। শোক চলাকালীন সাত দিন পরিবারের সদস্যরা কোনো মাছ বা মাংস খাওয়া থেকে বিরত থাকে। সপ্তম দিনে পরিবার তাদের পূর্বপুরুষদের খাওয়ানো, বৌদ্ধ সন্ন্যাসীরা ধর্মীয় বক্তৃতা প্রদানসহ ভিক্ষুদের দানীয় উৎসর্গ করার মাধ্যমে মৃত ব্যক্তির শান্তি কামনা করা হয়।পরে সমগ্র গ্রাম একটি সাম্প্রদায়িক ভোজের অংশ নেয়।

জীবনযাত্রার শর্তাবলী

চাকমারা নদী বা প্রবাহের তলদেশের ঢালগুলোতে ঘর নির্মাণ করে। বারিস ক্লাস্টার একসঙ্গে পাড়া গঠন করে এবং বেশ কয়েকটি পাড়া মিলে একটি গ্রাম তৈরি করে।চাকমাদের ঘর বাঁশ দিয়ে তৈরি। এটি একটি বাঁশ বা কাঠের প্ল্যাটফর্মের উপর ভিত্তি করে মাটির উপরে দুই মিটার (ছয় ফুট) নির্মিত হয়। বাড়ির সামনে একটি বারান্দা দুটি ম্যাট পার্টিশন দ্বারা বিভক্ত করা হয়। শস্য সংগ্রহ ও অন্যান্য সম্পত্তির জন্য ছোট কামরা তৈরি করা হয়। বাঁশ থেকে তামাকের জন্য পাইপ তৈরি হয়। এই বাঁশ দিয়ে গৃহস্থালীর অনেক আসবাব পত্র তৈরি হয়।

 

6.ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী: চাকমাদের আদ্যোপান্ত

সংস্কৃতি

চাকমাদের নিজস্ব সংস্কৃতি, লোক সাহিত্য, সাহিত্য ও ঐতিহ্য আছে। চাকমারা কোমর জড়ানো গোড়ালি পর্যন্ত পোশাক পরে যাকে পিনোন বলা হয়। কোমরের উপর অংশকে বলা হয় হাদি। হাদি আর পিনোন সাধারণত রঙবেরঙের বিভিন্ন নকশার হয়। পুরুষরা "সিলুম" নামক গায়ের জামা এবং "টেন্নে হানি" নামক জামা পরিধান করে। এই নকশা প্রথমে আলাম নামে পরিচিত এক টুকরা কাপড়ের উপর সেলাই করা হয়।

বিয়ে

চাকমা গোষ্ঠী (গোজা) বিভিন্ন উপশ্রেণী দ্বারা বিভক্ত। একই সদস্যদের একে অপরের বিয়ে নিষিদ্ধ করা হয়। বাবা-মায়েরা বিয়ের ব্যবস্থা করে। যদিও ছেলে-মেয়েদের পছন্দ বিবেচনা করা হয়।বিয়ের দাম নিয়ে আলোচনা করা হলে একটি নববধূর মূল্য (বর পরিবারের পরিবারের দ্বারা প্রদত্ত পণ্য) সংশোধন করা হয়।বিবাহ অনুষ্ঠান চুমুলং নামে পরিচিত এবং বৌদ্ধভিক্ষু দ্বারা সঞ্চালিত হয়। একাধিক স্ত্রী বিয়ে গ্রহণযোগ্য কিন্তু বিরল। বিবাহবন্ধনের অনুমতি দেয়া হয়, যেমন স্বামী বা স্ত্রীর মৃত্যুর পরে পুনর্বিবাহ।

 

7.ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী: চাকমাদের আদ্যোপান্ত

বস্ত্র

চাকমা পুরুষদের পশ্চিমা শৈলী শার্ট এবং ট্রাউজার্স জন্য তাদের ঐতিহ্যগত জামাকাপড় ছেড়ে দিয়েছেন। নারীরা ঐতিহ্যবাহী চাকমাদের তৈরি পোষাক ব্যবহার করে, যা দুটি কাপড়ের কাপড়ের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকে। একটা শরীরের নীচের অংশে আবৃত এবং কোমর থেকে গোড়ালি পর্যন্ত প্রসারিত, আর অন্যটি ব্লাউস হিসাবে পরিহিত হয়। তার প্রথাগত রঙটি কালো এবং নীল, উপরে এবং নীচের লাল সীমানা, শুধু এই রঙের মধ্যে চাকমারা সিমাবদ্ধ নয়। বিভিন্ন জন পছন্দমত রঙের কাপর পরিধান করতে পারে। কাপড়ের দ্বিতীয় অংশটি স্তন ব্যান্ড, যা রঙ্গিন নকশার সাথে বোনা হয়, এটি উপরের শরীরের চারপাশে শক্তভাবে মোড়ানো। তার সঙ্গে মানানসই যেমন -নেকলেস, ব্রেসলেট, নুপুর , হাতের রিং, চুড়ি এবং অন্যান্য অলঙ্কার বিভিন্ন ভাবে পরিহিত হয়। চাকমা নারীরা দক্ষ বুননকারী । তাদের কাপড় তারা নিজেরাই তাঁতের মাধ্যমে তৈরি করে।

 

8.ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী: চাকমাদের আদ্যোপান্ত

খাদ্য

শ্রিম্প পাস্তে চাকমাদের রান্নার ঐতিহ্যবাহী উপাদান। তারা এটাকে “সিদোল” বলে ডাকে। এদের প্রধান খাদ্য ভাত, ভুট্টা দিয়ে তৈরি খাদ্য, শাক-সবজি ও সরিষা। সবজির মধ্য রয়েছে রাঙা আলু, কুমড়া, তরমুজ, মাম্মারা(শশা)। চাকমারা শুকরের মাংস খেতে পছন্দ করে।তবে ঐতিহ্যগত খাদ্য হল বাঁশের অঙ্কুর যা “বাচ্ছুরি” নামে পরিচিত। পশুর মাংস খাওয়া বৌদ্ধ ধর্মে নিষিদ্ধ সত্ত্বেও মাছ, হাঁস-মুরগি এমনকি শুয়োরের মাংসও খাওয়া হয়। যদিও চাকমাদের ঐতিহ্যগত খাদ্য ধীরে ধীরে বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে। কিছু চাকমারা খাবারে মাছ, শাকসবজি, এবং মশলাগুলি বাঁশের ভিতরে দিয়ে কম আগুনে রান্না করা হয়।চাকমারা দুধ পছন্দ করে না। তারা মদ্যপ পানীয়গুলো অবাধে পান করে এবং প্রতিটি পরিবার নিজেরা ভাত দিয়ে মদ তৈরি করে। এ তৈরিকৃত অ্যালকোহল বিভিন্ন উৎসবে এবং সামাজিক অনুষ্ঠানে খাওয়া হয়।

 

9.ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী: চাকমাদের আদ্যোপান্ত

শিক্ষা

চাকমা বাংলাদেশের বিচ্ছিন্ন এলাকায় বাস করেন। তারা সংখ্যাগরিষ্ঠ জনসংখ্যার অংশ নয় এবং পশ্চিমা মানদণ্ডের দ্বারা বেশ দরিদ্র। পাহাড়ী উপজাতির পুরুষদের মধ্যে সাক্ষরতার হার প্রায় ১৫ শতাংশ এবং নারীর ৭ শতাংশ ।

কালচার হিটারেজ

বৌদ্ধ গ্রন্থগুলো, চাকমা ভাষায় অনুবাদ করা হয়েছে এবং পুরনো দিনে চাকমারা তাল গাছের পাতাগুলোতে লেখালেখি করত যা আঘরতারা নামে পরিচিত। চাকমাদের ঔষধি উদ্ভিদের বিস্তারিত বিবরণ তলিকা ,তাদের প্রস্তুতির পদ্ধতি এবং রোগের চিকিৎসার নমুনা তাল গাছের পাতায় লিখে রাখত।লোক সঙ্গীত চাকমা উপজাতীয় সংস্কৃতির একটি প্রধান দৃষ্টিভঙ্গি। রোমান্টিক প্রেমের গানেরও পরিচিত রয়েছে যা জেনখুলি ব্যাল্যাডস অতীতের সঙ্গে সম্পর্কিত। রাধামন ও ধনপতির মত মহাকাব্য কবিতাও আছে এই সংস্কৃতিতে। ঐতিহ্যবাহী বাদ্যযন্ত্রের মধ্যে রয়েছে মশাল শৃঙ্গ থেকে তৈরি একটি বাগেল, আয়তনের একটি বৃত্তাকার টুকরা যা তার উপর প্রসারিত একটি স্ট্রিং যা কম্পনের মাধ্যমে শব্দ উৎপাদন করে।এছাড়াও চাকমা সম্পদায় নাচতে পছন্দ করে।

 

10.ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী: চাকমাদের আদ্যোপান্ত

কর্মসংস্থান

চাকমারা কৃষি কাজের উপর নির্ভরশীল। তাদের নিজস্ব কোনো জমির মালিকানা নেই। তারা জমির গাছ এবং ঝোপঝাড় পরিষ্কার করে রাখে। এপ্রিলের শুষ্ক মৌসুমে তারা জঙ্গলের অবশিষ্ট গাছপালা পুড়িয়ে চাষের উপযোগী করে তোলে। প্রথম ভারী বৃষ্টির পরে ফসল লাগানো হয়। ফসল সাধারণত অক্টোবর এবং নভেম্বর মাসে সঞ্চালিত হয়।কিছু চাকমা তাদের কৃষিকাজ জীবনধারা ছেড়ে শ্রমবাজারে প্রবেশ করেছে। বর্তমান চাকমারা বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন বিভাগে কর্মরত রয়েছেন।অনেকে আবার কর্ণফুলী নদীর উপত্যকায় বেড়ে উঠেছে এমন কারখানা ও শিল্প প্রকল্পে শ্রমিক হিসাবে কাজ করে।

 

11.ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী: চাকমাদের আদ্যোপান্ত

খেলাধুলা

হা-ডু-ডু চাকমাদের প্রিয় খেলা।অন্যান্য খেলার মধ্যে গিলা, মার্বেল গুলি, কুস্তি গেম খেলতে দেখা যায়। অন্যদিকে মেয়েরা পশ্চিমা সংস্কৃতিতে যেমন করে "মা" হিসাবে পুতুল খেলা থাকে।

বিনোদন

চিত্তাকর্ষক প্রথাগুলিতে জনপ্রিয় লোক গান ,সংগীত, এবং যাত্রাও অন্তর্ভুক্ত ছিল। এবং অন্যান্য খেলা ও মেলা জনপ্রিয়। অতীতে, শিকার এবং মাছ ধরাও চাকমাদের প্রিয় ছিল।

 

12.ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী: চাকমাদের আদ্যোপান্ত

ক্র্যাফট এবং হোব

চাকমারা বাঁশ থেকে বিভিন্ন ধরণের পণ্য তৈরির জন্য দক্ষ, প্রায়শই ছুরি ছাড়া আর কিছুই ব্যবহার করে না। নারীরা তাদের নিজস্ব কাপড় নিজেরা তৈরি করে । তারা বাঁশ থেকে ঝুড়ি তৈরীর শিল্প দক্ষ।

সামাজিক সমস্যা

চাকমারা আজ কঠিন পরিস্থিতিতে সম্মুখীন। কারণ এ উপজাতিটি ভেঙ্গে তিনটি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। প্রতিটি দেশে, চাকমা একটি সংখ্যালঘু গঠন করে এবং অনেকে তাদের স্বদেশ থেকে শরণার্থী, স্কলারের অবস্থার মধ্যে বসবাস করে।চাকমারা বাংলাদেশের স্বাধীনতায় যুদ্ধ করলেও কিছু চাকমা ও অন্যান্য উপজাতীয়রা সরকার বিরোধী সশস্ত্র যুদ্ধ করেছে।এর ফলে পুলিশ ও বাংলাদেশ সেনাবাহিনীরা বিভিন্ন সময় চাকমাদের উপর প্রতিশোধে নেমেছে। অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল (মানবাধিকার সংগঠন) এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র উভয়ই চাকমা নাগরিকদের বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘন করেছে।

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –