ব্রেকিং:
কাশ্মীর ইস্যুতে মোদী-ইমরানের কাছে ডোনাল্ড ট্রাম্পের ফোন। শ্রম কল্যাণ সম্মেলনের উদ্বোধন আজ। তুর্কি গাড়িবহরের ওপর সিরিয়া সরকারের বিমান হামলায় তিন বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছে এবং আরো ১২ জন আহত হয়েছে।

মঙ্গলবার   ২০ আগস্ট ২০১৯   ভাদ্র ৫ ১৪২৬   ১৮ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

সর্বশেষ:
আজ বিকালে ঢাকায় আসছেন টাইগারদের নতুন প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো। অস্থায়ী এমপিও হচ্ছে ১৭৬৩ স্কুল-কলেজ, পরিপত্র জারি আজ। বোলিং কোচ হিসেবে ঢাকা পৌঁছেছেন বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের নতুন পেস বোলিং কোচ চার্ল ল্যাঙ্গাভেল্ট। দেশে ফিরে যেতে ইচ্ছুক রোহিঙ্গাদের তালিকাভুক্তির কাজ শুরু করছে জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থার (ইউএনএইচসিআর) কর্মকর্তারা। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনের সঙ্গে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এস জয়শঙ্করের দ্বিপক্ষীয় বৈঠক শুরু হয়েছে।
৩০

গরু-ছাগল মোটাতাজাকরণে ব্যস্ত নীলফামারীর খামারিরা

প্রকাশিত: ৩১ জুলাই ২০১৯  

স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে গরু-ছাগল মোটাতাজাকরণে ব্যস্ত সময় পার করছেন নীলফামারীর খামারিরা। ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে তারা অনেক দিন ধরে যত্ন সহকারে গরু-ছাগল বড় ও স্বাস্থ্যবান করেছেন। 

বছরের এই একটি সময়কে ঘিরেই কিছুটা লাভের আশায় গরু-ছাগল মোটাতাজা করার কাজে ব্যস্ত থাকেন তারা। 

তবে জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. মোন্নাকা আলী বলেন, খড়, ঘাস, খৈল, চালের কুড়া ও ভূষি খাইয়ে গরু মোটাতাজা করছেন খামারিরা। এজন্য যে পরিমাণ অর্থ ব্যয় হয়েছে সেই অনুযায়ী দাম পাবেন কিনা তা নিয়ে শঙ্কায় রয়েছেন খামারিরা।

এরই মধ্যে কোরবানির জন্য পশু কেনাবেচা শুরু হয়েছে। তবে হাট জমতে আরও কয়েকদিন দেরি হবে বলে খামারি ও গৃহস্থরা জানিয়েছেন। এরই মধ্যে গরু ব্যবসায়ী ও বিভিন্ন এলাকার ব্যাপারীরা খামারে খামারে গিয়ে চাহিদা মতো গরু কিনতে শুরু করেছেন।

এবার ক্রেতাদের মাঝে দেশি ও শংকর জাতের গরুর চাহিদা বেশি থাকায় ব্যাপারীরা এ জাতের গরুই কিনছেন সবচেয়ে বেশি পরিমাণে।

জেলা প্রাণী সম্পদ অধিদফতর সূত্রে জানা গেছ, জেলায় নিবন্ধিত খামারে ৫৮ হাজার ১২০টি পশু প্রস্তুত করছেন খামারিরা। এর বাইরেও গৃহস্থ পরিবারগুলো কোরবানির জন্য গরু-ছাগল প্রস্তুত করেছে।

জেলা শহরের নিউবাবু পাড়ার গরুর খামারি শফিয়ার রহমান বলেন, প্রতি বছর কোরবানির জন্য ১০-১২টি ষাঁড় দেশীয় পদ্ধতিতে লালন-পালন করে থাকি। দেশী গরুর বাজারে চাহিদা থাকায় খাওয়া খরচ বাদ দিয়ে এবারে লাভের মুখ দেখা যাবে। আশা করি, ভারতের গরু ছাড়াই আমাদের দেশীয় গরু দিয়ে কোরবানির হাট-বাজারগুলো ভরে যাবে।

জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. মোন্নাকা আলী বলেন, এবারে কোরবানির পশুর চাহিদা মেটাতে যে পরিমাণ গরু ছাগল লালন-পালন করা হয়েছে তাতে পশুর কোন ঘাটতি হবে না। বরং চাহিদার তুলনায় উদ্বৃত্ত রয়েছে। প্রাকৃতিক উপায়ে গরু মোটাতাজা করণের জন্য উপজেলা ভিত্তিক তালিকাভুক্ত খামারিদের সারা বছর প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে।

নীলফামারি বার্তা
নীলফামারি বার্তা
এই বিভাগের আরো খবর