ব্রেকিং:
দেশে করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ৪৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মারা গেলেন ২ হাজার ৩৫২ জন। এছাড়া নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২ হাজার ৬৬৬ জন। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৮৩ হাজার ৭৯৫ জন।
  • সোমবার   ১৩ জুলাই ২০২০ ||

  • আষাঢ় ২৯ ১৪২৭

  • || ২২ জ্বিলকদ ১৪৪১

সর্বশেষ:
রংপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় করোনা আক্রান্ত মুক্তিযোদ্ধার মৃত্যু অনুমতি দেয়া পাঁচ বেসরকারি হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের কোভিড-১৯ পরীক্ষা স্থগিত রাখার নির্দেশ দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর ২০২০ সালে নিবন্ধিত হজযাত্রীদের জন্য ৮ নির্দেশনা দিয়েছে ধর্ম মন্ত্রণালয় বন্যার সার্বিক পরিস্থিতি সার্বক্ষণিকভাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খোজ খবর নিচ্ছেন-পানিসম্পদ উপমন্ত্রী মানবদেহে কোভিড ভ্যাকসিনের সফল প্রয়োগের দাবি রাশিয়ার!
১২০

ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’র প্রভাবে ভোলায় বেশকিছু ঘরবাড়ী বিধ্বস্ত

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১০ নভেম্বর ২০১৯  

ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’র প্রভাবে সৃষ্ট ঝড়ে ভোলায় বিধ্বস্ত ঘরের সংখ্যা ২০ দাঁড়িয়েছে। তবে নতুন করে কোনো হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।

এর আগে শনিবার রাত সাড়ে ৯ টায় লালমোহনের পশ্চিম চর উমেদ ও চরফ্যাশনের ওসমানগঞ্জ ইউপিতে ঝড়ে সাতটি ঘর বিধ্বস্ত হয়। এতে আহত ১০ জনের মধ্যে তিনজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তারা হলেন-পশ্চিম চর উমেদের ওয়ার্ডের বাসিন্দা আব্দুর রশিদ মাল, তার ছেলে ইমরান ও তিশান।

ওই এলাকার বাসিন্দা মো. ইব্রাহীম জানান, রাত সাড়ে ৯টায় ঝড়ের সময় বিকট আওয়াজ শুনতে পাওয়া যায়। মুহূর্তের মধ্যে ওই এলাকার রশিদ মালসহ একই বাড়ির দুটি ঘর বিধ্বস্ত হয়। এ সময় বাড়ির গাছপালাও উপড়ে পড়ে যায়।

তিনি আরো জানান, একই সময় পাশের এলাকা চরফ্যাশনের ওসমানগঞ্জ ইউপির আব্দুল মোতালেব ও তার ছেলে মামুন এবং বিল্লালের ঘর বিধ্বস্ত হয়েছে। এছাড়া পাশের বাড়ির আব্দুল মনাফের বসতঘরটিও বিধ্বস্ত হয়ে যায়।

অপরদিকে লালামোহনির লর্ডহাডিঞ্জ ইউপির চরপেয়ারীমোহন এলাকায় ঘূর্ণিঝড়ে ঘর-বাড়ি বিধ্বস্ত হয়ে অন্তত পাঁচজন আহত হয়েছেন। তবে আহতদের নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি।

লালামোহনের ইউএনও হাবিবুল হাসান রুমি জানান, ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’র প্রভাবে ভোলায় ঝড় হয়। এতে দুই উপজেলার ২০টির মতো ঘর বিধ্বস্তের খবর পাওয়া গেছে। তবে নতুন করে হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।