ব্রেকিং:
দেশে করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ৪৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মারা গেলেন ২ হাজার ৩৫২ জন। এছাড়া নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২ হাজার ৬৬৬ জন। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৮৩ হাজার ৭৯৫ জন।
  • রোববার   ১২ জুলাই ২০২০ ||

  • আষাঢ় ২৮ ১৪২৭

  • || ২১ জ্বিলকদ ১৪৪১

সর্বশেষ:
মুজিববর্ষ উপলক্ষে এক কোটি গাছ রোপণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী করোনার ভুয়া রিপোর্টের ঘটনায় ডা. সাবরিনা গ্রেফতার সরকারি উদ্যোগে সারাদেশে কোরবানির পশুর ডিজিটাল হাট বর্তমান সরকার কৃষি খাতকে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে- কৃষিমন্ত্রী ই-নথি ব্যবস্থাপনায় এবারো শীর্ষে শিল্প মন্ত্রণালয়
৬১

ছেলের চাকরিচ্যুতির সিদ্ধান্ত বাতিলে আমরণ অনশনে মুক্তিযোদ্ধা পিতা

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১৯ নভেম্বর ২০১৯  

ছেলের চাকরিচ্যুতির সিদ্ধান্ত বাতিল ও পুনর্বহালের দাবিতে রংপুরে আমরণ অনশন শুরু করেছে এক মুক্তিযোদ্ধা পরিবার। চাকরি ফিরিয়ে না দেওয়া হলে মৃত্যুর পর রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফনসহ বেঁচে থাকাকালীন সকল রাষ্ট্রীয় সুযোগ সুবিধা বর্জনের ঘোষণা দিয়েছে মুক্তিযোদ্ধা রঙ্গলাল মহন্ত।

মঙ্গলবার (১৯ নভেম্বর) সকালে রংপুর নগরীর বাংলাদেশ ব্যাংকের সামনে অবস্থান নিয়ে আমরণ অনশনে বসেন মুক্তিযোদ্ধা রঙ্গলাল মহন্ত ও তার পরিবার। এসময় ছেলের চাকরি ফিরে পাওয়ার আকুতি জানান অসহায় পরিবারটি।

মুক্তিযোদ্ধা রঙ্গলাল মহন্ত বলেন, তার ছেলে মুদ্রা নোট পরীক্ষক সাধন চন্দ্র মহন্তের বিরুদ্ধে হিসাবের গড়মিলের মিথ্যা অভিযোগ আনা হয়েছে। সুষ্ঠু তদন্ত না করেই বাধ্যতামূলক অবসরে পাঠানো হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, যে কারণে আমার ছেলেকে চোর সাব্যস্ত করা হয়েছে। সেই একই অভিযোগ থাকা সত্বেও পুন:মুদ্রা নোট পরীক্ষককে লঘু শাস্তি দিয়ে চাকরিতে বহাল রাখা হয়েছে। অথচ সাধন চন্দ্র মহন্তকে ষড়যন্ত্রের বেড়াজালে ফেলে বাধ্যতামূলক অবসরে পাঠিয়ে কৌশলে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে। যা অন্যায় ও অবিচার।

দ্রুত সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে ছেলেকে চাকরিতে বহালের দাবিও জানান। দাবি আদায় না হলে মৃত্যুর আগে এবং পরে সকল রাষ্ট্রীয় মর্যাদা ও সুযোগ সুবিধা বর্জনের ঘোষণা দেন মুক্তিযোদ্ধা রঙ্গলাল মহন্ত।

এদিকে চাকরিচ্যুত হওয়া সাধন চন্দ্র মহন্তের দাবি, সিসিটিভির ফুটেজ দেখে পুন:তদন্ত করলে তিনি নির্দোষ প্রমাণিত হবেন। আমি ২০১২ সালের ১৫ জানুয়ারি থেকে আমি সততার সাথে চাকরি করে আসছি। এ বছরের মে মাসে বান্ডিল করা প্যাকেট থেকে দুই দফায় মোটে এক হাজার পঞ্চাশ টাকা কম পাওয়ার যে অভিযোগ আমার বিরুদ্ধে তোলা হয়েছে, এটা পরিকল্পিত। আমি ষড়যন্ত্রের শিকার।

এবিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের রংপুর উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফজলার রহমান কথা বলতে রাজি হননি।

তবে তৎকালীন বাংলাদেশ ব্যাংক রংপুর শাখার নির্বাহী পরিচালক গোলাম হায়দার বলেন, আমি দায়িত্বে থাকাকালীন সময়ে তার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ এসেছিল, তা তদন্ত করে প্রচলিত বিধি অনুযায়ী সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এখন আমি রংপুর থেকে বদলি হয়েছি। একারণে এ বিষয়ে কথা বলতে পারব না।

নগর জুড়ে বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর