ব্রেকিং:
ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা রংপুরগামী ‘রংপুর এক্সপ্রেস’ ট্রেনের ইঞ্জিনসহ সাতটি বগি লাইনচ্যুত হয়ে আগুন, অন্তত ১০ জন আহত

বৃহস্পতিবার   ১৪ নভেম্বর ২০১৯   কার্তিক ৩০ ১৪২৬   ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

সর্বশেষ:
উন্নয়ন মেলা ২০১৯ এর শুভ উদ্বোধন করেছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

`জাতীয় চার নেতা হত্যা ইতিহাসের এক কলংকজনক অধ্যায়`

প্রকাশিত: ৪ নভেম্বর ২০১৯  

দিনাজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল বলেছেন, “জাতীয় চার নেতা হত্যা ইতিহাসের এক কলংকজনক অধ্যায়।" জাতিকে মেধা শূন্য করার জন্যই এটি ‘৭১ সালের পরাজিত শক্তির সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনা’। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার খুনের নেপথ্যে অপশক্তির চিন্তা ছিল জাতীয় চার নেতা জীবিত থাকলে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা থেকেই যাবে। সে কারনেই চার নেতাকে হত্যা করা হয়েছিল। তিনি আরোও বলেন যে কারাগারে পৃথিবীর সব মানুষ নিশ্চিত নিরাপত্তা পায়, সেই কারাগারেই ঘাতকদল ভিতরে ঢুকে এই জাতীয় চার নেতাকে ব্রাশফায়ার করে নৃশংসভাবে হত্যা করে। সেদিন জাতি হারিয়েছিল দেশের সূর্যসন্তানদের আর আমরা হারিয়েছি এই দেশের বীরদের।

৩ নভেম্বর জেলা হত্যা দিবস উপলক্ষে ৩৫ লাখ টাকা ব্যয়ে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) এর বাস্তবায়নে মুক্তিযুদ্ধের ঐতিহাসিক স্থানসমুহ সংরক্ষণ ও মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি জাদুঘর নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় বীরগঞ্জ উপজেলার সাতোর ইউনিয়নে প্রাণ নগরে “মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি স্তম্ভ” নির্মাণ কাজের ভিত্তি প্রস্তর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

সাতোর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রেজাউল করিম শেখ এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন উপজেলা চেয়ারম্যান মো. আমিনুল ইসলাম, উপজেলা সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার কালী পদর রায়, উপজেলা প্রকৌশলী আব্দুল মান্নাফ, উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নুর ইসলাম নুর, জেলা পরিষদের সদস্য মো. আতাউর রহমান বাবু, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. শামিম ফিরোজ আলম ও সাতোর ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের সভাপতি দধিনাথ নাথ রায়।

অনুষ্ঠানে শুরুতে জাতীয় চার নেতার শান্তি কামনা করেন ১ মিনিট নিরবতা পালন ও বিশেষ মোনাজাত করা হয়। 

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –
এই বিভাগের আরো খবর