ব্রেকিং:
করোনাভাইরাস মোকাবিলায় এপ্রিল মাসে স্থলবন্দর দিয়ে কাউকে ঢুকতে দেয়া হবে না: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডাক্তার অনুপস্থিতির দুর্দিন এলে প্রয়োজনে বিদেশ থেকে আনা হবে:প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত খুনি আব্দুল মাজেদকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে আদালত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনকে হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি করা হয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্বপরিবারে হত্যার দায়ে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি আবদুল মাজেদ গ্রেফতার
  • মঙ্গলবার   ০৭ এপ্রিল ২০২০ ||

  • চৈত্র ২৪ ১৪২৬

  • || ১৩ শা'বান ১৪৪১

সর্বশেষ:
করোনার পরীক্ষামূলক ওষুধ তৈরিতে আশার আলো দেখাচ্ছে বাংলাদেশ! বিশ্বব্যাপী মহামারির মধ্যেই আজ বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস করোনা পরিস্থিতি দেখে ভয় পেলে ভয় পেলে চলবে না, সতর্ক থাকতে হবে:প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টেলিভিশনে প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের পাঠদান শুরু আজ জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন
৪৮২

জেনে নিন শিশুর ডায়াবেটিসের লক্ষণ ও প্রতিকার 

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

ডায়াবেটিস শুধু বড়দেরই নয়, হতে পারে ছোট শিশুদেরও। জেনে অবাক হবেন, শিশুদের ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাজনক হার দিন দিন বেড়েই চলেছে। যা বংশগত কারণে শিশুর হয়ে থাকে।

এটি অনুমান করা হয় যে, ১৫ বছরের কম বয়সী প্রায় ৮০,০০০ শিশু বিশ্বব্যাপী প্রতি বছর ডায়াবেটিসের বিকাশ করে। ইন্ডোক্রিনল মেটাব, ইন্ডিয়ায় প্রকাশিত গবেষণা অনুযায়ী, ডায়াবেটিস মেলিটাস (টি ১ ডিএম)- এর প্রবণতা প্রায় ৯৭,৭০০ শিশু রয়েছে। ডায়াবেটিসে আক্রান্ত শিশুদের অনুপাতের পরিমাণ বেড়েছে ১২% এবং ২৬.৭% হিসাবে রিপোর্ট করা হয়েছে।

চিকিৎসকদের মতে, আরো কিছু জটিলতার মধ্যে বড়-ছোট রক্তনালীগুলো, হার্ট, মস্তিষ্ক, কিডনি, চোখ, পা এবং স্নায়ুর ক্ষতি অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

চলুন জেনে নেয়া যাক শিশুদের মধ্যে ডায়াবেটিসের লক্ষণগুলো কী কী-

> অবসাদ অনুভব করা।

> ওজন হ্রাস পাওয়া।

> তৃষ্ণা বাড়ে যাওয়া।

> প্রস্রাবের ফ্রিকোয়েন্সি বৃদ্ধি পাওয়া।

> পেটে ব্যথা অনুভব করা।

> চোখে অস্পষ্ট দেখা।

> ক্ষত স্থান ধীরে ধীরে নিরাময় হওয়া।

ডায়াবেটিস নিরাময় করার উপায়গুলো জেনে নেয়া যাক-

> সচেতনতা এবং লক্ষণগুলোর প্রথম দিক থেকে বাছাই করা।

> বাচ্চাদের জন্য জীবনধারা পরিবর্তন।

> সুষম খাদ্য গ্রহন ও জাঙ্ক ফুড, তৈলাক্ত খাবার এবং মিষ্টিজাতীয় পানীয় এড়িয়ে চলা।

> নিয়মিত শারীরিক ক্রিয়াকলাপ যেমন হাঁটা, গেম খেলা, নাচ, সাইকেল চালানো।

> স্বাস্থ্যকর ওজন বজায় রাখা।

> নিয়মিত বডি চেক আপ করুনো।

> শিশুকে ভ্রমণ করানো।

> পরিবারের সবারই একটি স্বাস্থ্যকর জীবনধারা গ্রহণ করা উচিত।

> মোবাইল ফোনে ভিডিও গেমস, টেলিভিশন এবং কম্পিউটারের স্ক্রিনে সময়  ব্যয় করা হ্রাস করুন।

> খাদ্যাভাস পরিবর্তন করুন।

> সঠিক ওজন আছে কি না লক্ষ্য রাখুন।

স্বাস্থ্য বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর