সোমবার   ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯   পৌষ ১ ১৪২৬   ১৮ রবিউস সানি ১৪৪১

৬৫

তিন বছর পর চালু হচ্ছে রংপুরের কল্যাণ সংসদ সরকারি প্রা. বিদ্যালয়

প্রকাশিত: ১০ নভেম্বর ২০১৯  

অবশেষে বন্ধের তিন বছর পর চালু হচ্ছে রংপুর নগরীর কল্যাণ সংসদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। শনিবার (৯ নভেম্বর) প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড.এএম এম মঞ্জুর কাদির বিদ্যালয়টি পরিদর্শন শেষে এলাকাবাসির দাবির প্রেক্ষিতে আগামী জানুয়ারি মাস বিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম চালুর ঘোষণা দেন। এদিকে বিদ্যালয়টি পুনরায় চালুর ঘোষণায় এলাকাবাসির মধ্যে আনন্দ উচ্ছ্বাস লক্ষ্য করা গেছে।  

জানা গেছে, রংপুর নগরীর কামলা কাছনা এলাকায় অবস্থিত কল্যাণ সংসদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি ১৯৯৩ খ্রিষ্টাব্দে চালু হয়। ১৯৯৫ খ্রিষ্টাব্দে এ বিদ্যালয়ের জন্য দ্বিতল ভবন নির্মাণ করা হয়। শুরুর দিকে বিদ্যালয়টি ভালোভাবে পরিচালিত হলেও পরবর্তী সময়ে শিক্ষার্থী কমতে থাকে। শিক্ষার্থী না থাকায় ২০১৬ খ্রিষ্টাব্দে বিদ্যালয়টির শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়ে ভবনে তালা লাগিয়ে দেয়া হয়। এর পাশাপাশি বিদ্যালয়ে কর্মরত শিক্ষকদের অন্যত্র বদলি করা হয়। তার পর থেকেই বন্ধ অবস্থায় থাকে বিদ্যালয়টি।

এদিকে  শনিবার দুপুরে বিদ্যালয়টি পরিদর্শনে আসেন প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড.এএম এম মঞ্জুর কাদির। তিনি এলাকাবাসীর সাথে কথা বলেন। বিদ্যালয়টির সার্বিক বিষয়াদি জানার পর এলাকাবাসীর দাবির প্রেক্ষিতে আগামী জানুয়ারি মাস তেকে বিদ্যালয়ে পুনরায় শিক্ষা কার্যাক্রম চালুর ঘোষণা দিয়ে বলেন, আপনারা এলাকাবাসী সহযোগিতা করেন। আপনাদের সন্তানদের এখানে ভর্তি করাবেন। তাহলেই বিদ্যালয়টি প্রাণ ফিরে পাবে। বিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগসহ যা করার দরকার আমার পক্ষ থেকে সার্বিক সহযোগিতা থাকবে।

এসময় সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব দেলোয়ার হোসেন, রংপুর জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার শাহ জাহান সিদ্দিক, সদর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার জাকিরুল হাসান, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর রংপুর বিভাগীয় সাবেক উপ-পরিচালক আব্দুল ওহাব, এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী আকবর হোসেন, শিক্ষানুরাগী আলহাজ্ব মোসলেম উদ্দিন, রবার্টসনঞ্জ উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় ও কলেজের অধ্যক্ষ ওবায়দুল হক ,কারমাইকেল কলেজের সহকারি অধ্যাপক শাদাকাত হোসেন সহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

স্থানীয় শিক্ষানুরাগী আলহাজ্ব মোসলেম উদ্দিন বলেন,  বর্তমানে বিদ্যালয়ের চারপাশে অনেক বসতি গড়ে উঠেছে। কিন্তু কাছাকাছি আর কোনো সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় নেই। এ কারণে শিশুদের কিন্ডারগার্টেনে ভর্তি করতে হচ্ছে। এসব বিদ্যালয়ে আবার খরচ বেশি। এতে নিম্ন আয়ের অনেকে তাদের সন্তানদের বিদ্যালয়ে পাঠাতে পারছেন না। বিদ্যালয়টি পুনরায় চালু হওয়াতে আমরা আনন্দিত। দ্রুত শিক্ষক নিয়োগের দাবি করছি।

এব্যাপারে রংপুর সিটির সাবেক মহিলা কাউন্সিলর আরজানা সালেক বলেন, অত্র এলাকায় বর্তমানে বিদ্যালয়গামী শিশুর সংখ্যা বেড়েছে। কিন্তু কাছাকাছি আর কোনো সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় নেই। তাই কল্যাণ সংসদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি পুনরায় চালুর ঘোষণায় এলাকাবাসির সাথে আমিও আনন্দিত। আশাকরি শীঘ্রই বিদ্যালয়টি শিক্ষার্থীদের পদচারণায় মুখরিত হবে।

প্রসঙ্গত:  শিক্ষার্থীর অভাবে ২০১৬ খ্রিষ্টাব্দে বন্ধ করে দেয়া হয় রংপুরের কল্যাণ সংসদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। তবে এ বিদ্যালয়টি আবার চালুর দাবিতে  স্থানীয়রা সমাবেশসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে আসছে। অবশেষে স্থানীয়দের দাবি আমলে নিয়ে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বিদ্যালয়টি আনুষ্ঠানিক চালুর ঘোষণা দিলেন।

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –
এই বিভাগের আরো খবর