ব্রেকিং:
দেশে করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ৪৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মারা গেলেন ২ হাজার ৩৫২ জন। এছাড়া নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ২ হাজার ৬৬৬ জন। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৮৩ হাজার ৭৯৫ জন।
  • সোমবার   ১৩ জুলাই ২০২০ ||

  • আষাঢ় ২৯ ১৪২৭

  • || ২২ জ্বিলকদ ১৪৪১

সর্বশেষ:
রংপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় করোনা আক্রান্ত মুক্তিযোদ্ধার মৃত্যু অনুমতি দেয়া পাঁচ বেসরকারি হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের কোভিড-১৯ পরীক্ষা স্থগিত রাখার নির্দেশ দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর ২০২০ সালে নিবন্ধিত হজযাত্রীদের জন্য ৮ নির্দেশনা দিয়েছে ধর্ম মন্ত্রণালয় বন্যার সার্বিক পরিস্থিতি সার্বক্ষণিকভাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খোজ খবর নিচ্ছেন-পানিসম্পদ উপমন্ত্রী মানবদেহে কোভিড ভ্যাকসিনের সফল প্রয়োগের দাবি রাশিয়ার!
৯০

দুই কোটি টাকা গৃহঋণ দেবে বিএইচবিএফসি

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১৩ জানুয়ারি ২০২০  

গৃহঋণের সীমা এক কোটি ২০ লাখ টাকা থেকে বাড়িয়ে দুই কোটি টাকা করেছে বাংলাদেশ হাউস বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশন (বিএইচবিএফসি)। । সম্প্রতি এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করেছে বিএইচবিএফসি। 

নতুন নিয়মানুযায়ী, বাড়ি নির্মাণে একক ব্যক্তি এখন দুই কোটি টাকা পর্যন্ত ঋণ পাবেন। আর গ্রুপ করে ঋণ নিলে প্রতি জনে পাবেন এক কোটি ২০ লাখ টাকা করে। তবে ফ্ল্যাট কেনার জন্য এক কোটি ২০ লাখ টাকা করে ঋণ পাবেন গ্রাহকরা। 
৯ শতাংশ সরল সুদে শুধু ঢাকা ও চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের উন্নত কিছু এলাকার গ্রাহকরা পাবেন এ ঋণ। এর মধ্যে ঢাকার গুলশান, বনানী, ধানমন্ডি, বারিধারা, উত্তরা, লালমাটিয়া এবং ডিওএইচএস (মহাখালী, বারিধারা, বনানী, মিরপুর) এলাকার সরকারি প্লটের জন্য প্রযোজ্য হবে। এছাড়া চট্টগ্রামের আগ্রাবাদ, চান্দগাঁও, কর্ণেলহাট, বাকলিয়া, কল্পলোক আবাসিক এলাকার সরকারি প্লট এবং খুলশী আবাসিক এলাকার জন্যও প্রযোজ্য হবে।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ হাউস বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশন সরকারী মালিকানাধীন একটি বিশেষায়িত আর্থিক প্রতিষ্ঠান। এর পরিশোধিত মূলধনের সবটাই বাংলাদেশ সরকার থেকে পরিশোধিত। কর্পোরেশনের তহবিলের মূল উৎস সরকার কর্তৃক পরিশোধিত মূলধন। কর্পোরেশনের অনুমোদিত মূলধনের পরিমাণ ১১০ কোটি টাকা এবং পরিশোধিত মূলধনের পরিমাণ ১১০ কোটি টাকা। 

অর্থ মন্ত্রণালয়ের সহায়তায় সরকার গ্যারান্টির মাধ্যমে বাংলাদেশ ব্যাংক ও বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর কাছে ডিবেঞ্চার বিক্রির মাধ্যমে কর্পোরেশনের তহবিল সংগ্রহ করে থাকে। এছাড়া কর্পোরেশন সরকারি ঋণ ও আমানত গ্রহণের মাধ্যমে তহবিলের সংস্থান করে থাকে।

দেশের গৃহায়ণ সমস্যার সমাধানে জনসাধারণকে গৃহ নির্মাণ খাতে আর্থিক সহযোগিতা প্রদানের উদ্দেশ্যে ১৯৫২ সালে হাউস বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশন প্রতিষ্ঠিত হয়। পরবর্তীতে ১৯৭৩ সালে জারি করা রাষ্ট্রপতির ৭নং আদেশ বলে বাংলাদেশ হাউস বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশন (বিইচবিএফসি) পুনর্গঠিত হয়।

কর্পোরেশনের সদর দফতর ঢাকায় অবস্থিত। সদর দফতরে ৬টি মহাবিভাগ ও ১৪টি বিভাগ রয়েছে। ঢাকায় ২টিসহ চট্টগ্রাম, খুলনা, রাজশাহী, বরিশাল, সিলেট, ময়মনসিংহ, রংপুর ও ফরিদপুরে একটি করে মোট ১০টি জোনাল অফিস রয়েছে। এছাড়া জোনাল অফিসগুলোর আওতাধীন সারাদেশে ১৪টি রিজিওনাল ও ৬০টি শাখা অফিস রয়েছে। 
 
মানুষের ৫টি মৌলিক চাহিদার অন্যতম হলো বাসস্থান। জনবহুল এ দেশে আবাসন চাহিদা উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে, ফলে আবাসনের সংস্থান কঠিন হয়ে পড়ছে। এই প্রকট আবাসিক সমস্যার সমাধানে সহায়তা প্রদান করাই বিএইচবিএফসির মূল উদ্দেশ্য। গৃহায়ণ খাতে অর্থ সংস্থানের ক্ষেত্রে বিএইচবিএফসি কয়েক যুগ ধরে এ দেশের একমাত্র প্রতিষ্ঠান হিসাবে কাজ করে আসছে।

ইত্যাদি বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর