মঙ্গলবার   ২৮ জানুয়ারি ২০২০   মাঘ ১৫ ১৪২৬   ০২ জমাদিউস সানি ১৪৪১

সর্বশেষ:
আড়ংয়ের ওয়াশ রুমে গোপনে ভিডিও করার ঘটনায় এক যুবককে গ্রেফতার করেছে ডিএমপির সাইবার ক্রাইম ইউনিট। ঢাকার উত্তর-দক্ষিণ সিটির ভোটে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় মাঠে থাকবে ৬৫ প্লাটুন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ করার লক্ষ্যে ৩০ জানুয়ারি ভোর থেকে ৩ ফেব্রুয়ারি রাত ১২টা পর্যন্ত সব ধরনের বৈধ অস্ত্রবহন ও প্রদর্শনে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। চীনে অবস্থানরত আগ্রহী বাংলাদেশিদের দেশে আনার জন্য বেইজিংকে চিঠি দিয়েছে ঢাকা। আগ্রহী বাংলাদেশি নাগরিকদের ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যে তৎপরতাও শুরু করেছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। মাদকের অপব্যবহারের বিরুদ্ধে বিপ্লব করতে শিক্ষার্থীদের- রাষ্ট্রপতি।
১৬০

দেশের প্রথম তামাকজাত দ্রব্যের বিজ্ঞাপনমুক্ত শহর নীলফামারী

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১০ অক্টোবর ২০১৯  

তামাকজাত দ্রব্যের বিজ্ঞাপনমুক্ত প্রথম শহরের তালিকায় স্থান পেয়েছে নীলফামারী জেলা শহরটি। এ বিষয়ে জেলা প্রশাসন গণসচেতনতার পাশাপাশি বিভিন্ন আইনী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। শহরবাসী স্বাগত জানিয়েছে এই উদ্যোগকে।

ধুমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ আইন-২০০৫ (সংশোধিত আইন ২০১৩) মতে তামাকজাত দ্রব্য বিড়ি সিগারেট ও জর্দার কোনো বিজ্ঞাপন লাগিয়ে প্রচার প্রচারণা চালানো দন্ডনীয় অপরাধ।

এরপরও কিছু অসাধু ব্যবসায়ী ও কোম্পানি হাটে বাজারে ছোট বড় পান দোকান, কনফেকশনারী ও মুদি দোকানের দর্শনীয় স্থানে খালি সিগারেটের প্যাকেট সাজিয়ে ও পোস্টার ছাপিয়ে তা প্রদর্শন করে আসছিলেন। উক্ত আইনের বিষয়ে গণসচেতনতা সৃষ্টির পাশাপাশি গত তিনমাসে জেলা প্রশাসনের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে অভিযান চালিয়ে জেলা শহরকে বিজ্ঞাপনমুক্ত করা হয়েছে। এ সময় আইন অমান্যকারী ১৩৩ জনের বিরুদ্ধে ২১ হাজার ৭০০ টাকার জরিমানা আদায় করা হয়।

জেলা প্রশাসনের নেজারত ডেপুটি কালেক্টর (এনডিসি) ও ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাহবুব হাসান ১০৭টি মামলায় ১৯ হাজার ৯০০ টাকা এবং জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জোহরা সুলতানা ১৬টি মামলায় এক হাজার আটশত টাকা জরিমানা আদায় করেন। এরই মধ্যে পুরো জেলা শহর তামাকজাত দ্রব্যের বিজ্ঞাপনমুক্ত হয়েছে। যা গোটা দেশের মধ্যে প্রথম শহর।

জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান চৌধুরী জানান নীলফামারীকে তামাকমুক্ত করতে ধুমপান ও তামাকজাত দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে তামাকজাত দ্রব্যের বিজ্ঞাপন বন্ধে কাজ করছি। জনসচেতনতা বৃদ্ধি করে ও আইনের মাধ্যমে এরই মধ্যে জেলা শহরকে তামাকজাত দ্রব্যের বিজ্ঞাপনমুক্ত করা সম্ভব হয়েছে। অভিযান অব্যাহত রয়েছে। অল্প সময়ের মধ্যে গোটা জেলাকে তামাকজাত দ্রব্যের বিজ্ঞাপনমুক্ত করা হবে। 

এই বিভাগের আরো খবর