ব্রেকিং:
দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও ৩৬ জন মারা গেছেন। একই সময়ে করোনা আক্রান্ত ব্যক্তি শনাক্ত হয়েছে ১ হাজার ৯০৮ জন
  • শনিবার   ২৮ নভেম্বর ২০২০ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৪ ১৪২৭

  • || ১২ রবিউস সানি ১৪৪২

সর্বশেষ:
১৫ লাখ কৃষককে বিনামূল্যে হাইব্রিড বীজ দেবে সরকার দিনাজপুরে ঘন কুয়াশায় জেঁকে বসেছে শীত করোনার ভ্যাকসিন মানুষ সহজেই পাবে- সেতুমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে ষড়যন্ত্রের জবাব দেবে জনগণ- মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী পেঁয়াজ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ হতে রোডম্যাপ সরকারের

ধানের আশানুরূপ দাম পেয়ে খুশি লালমনিরহাটের কৃষক

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১০ নভেম্বর ২০২০  

গত বছরের তুলনায় বিঘাপ্রতি ১ থেকে ২ মণ ধান কম উৎপাদন হয়েছে। তবে ফলন একটু কম হলেও আশানুরূপ দাম পেয়ে খুশি কৃষক। বর্তমানে এমন চিত্র বিরাজ করছে লালমনিরহাটের কৃষকদের মাঝে। এরই মধ্যে এখানে উঁচু জমির ধান কাটা শুরু হয়েছে। মধ্য নভেম্বর থেকে শুরু হবে নিচু জমির ধান কাটা। 

লালমনিরহাট কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্র জানায়, এ বছর লালমনিরহাটে পাঁচ উপজেলায় আমন আবাদ হয়েছে ৮৫ হাজার ৫৭৫ হেক্টর জমিতে। উৎপাদন লক্ষ্য ধরা হয়েছে সাড়ে চার লাখ মেট্রিক টন ধান।

লালমনিরহাট সদর উপজেলার মহেন্দ্রনগর এলাকার কৃষকরা জানান, গত বছর তিনি দুই বিঘা জমি থেকে আমন ধান পেয়েছিলেন ২১ মণ। কিন্তু এ বছর পেয়েছেন ১৯ মণ। গত বছরের তুলনায় ফলন কিছুটা কম হলেও আশানুরূপ দাম পেয়ে তারা খুশি। তবে নিচু জমিতে আমন ধানের ফলন আরো কম হতে পারে বলে তাদের আশঙ্কা।

আদিতমারী উপজেলার ভাদাই গ্রামের কৃষকরা জানান, উচুঁ জমির ধান কাটছেন কিন্তু নিচু জমির কাটতে আরো সপ্তাহখানেক অপেক্ষা করতে হবে। এ বছর অতিবৃষ্টি আর বন্যার কারণে ফলনে কিছুটা ঘাটতি দেখা যাচ্ছে। তবে বাজারে প্রতিমণ ধান ১ হাজার থেকে ১ হাজার ৫০ টাকা দরে বিক্রি করতে পেরে খুব খুশি আছেন তারা। 

একই উপজেলার দৈলজোড় গ্রামের কৃষকরা বলেন, এ বছর কীটনাশক ওষুধ কিনতে হয়েছে প্রচুর। প্রতিবিঘা জমিতে আমন ধান উৎপাদন করতে খরচ হয়েছে সাড়ে পাঁচ থেকে ছয় হাজার টাকা। গত বছর এ খরচ ছিল পাঁচ হাজার টাকা পযর্ন্ত।

লালমনিরহাট কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপপরিচালক শামীম আশরাফ বলেন, নিচু জমির আমন ধানের ফলন কিছুটা কম হতে পারে। এখনো তারা ফলনের ঘাটতি পাননি।  জেলায় এ পযর্ন্ত ২০ শতাংশ জমির আমন ধান কাটা হয়েছে।

বিশেষজ্ঞগণ জানান, এবছর করোনা সংকট চলাকালীন সময়ে বন্যার আক্রমণে দিশেহারা হয়ে পড়েছিল কৃষকরা। তবে সরকারের সঠিক পদক্ষেপের কারণে পরিস্থিতি সামাল দিতে সক্ষম হয় কৃষকরা। সংকটকালে সরকারের প্রদত্ত প্রণোদণা পেয়ে কৃষকরা আবার ফিরে দাড়ায়।

এদিকে, ধানের আশানুরূপ দাম পাওয়ায় সরকারকে ধন্যবাদ জানান কৃষকরা। তারা বলেন, আওয়ামীলীগ সরকার কৃষক মজুরের সরকার।