ব্রেকিং:
করোনাভাইরাস মোকাবিলায় এপ্রিল মাসে স্থলবন্দর দিয়ে কাউকে ঢুকতে দেয়া হবে না: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডাক্তার অনুপস্থিতির দুর্দিন এলে প্রয়োজনে বিদেশ থেকে আনা হবে:প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত খুনি আব্দুল মাজেদকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে আদালত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনকে হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি করা হয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্বপরিবারে হত্যার দায়ে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি আবদুল মাজেদ গ্রেফতার
  • মঙ্গলবার   ০৭ এপ্রিল ২০২০ ||

  • চৈত্র ২৪ ১৪২৬

  • || ১৩ শা'বান ১৪৪১

সর্বশেষ:
করোনার পরীক্ষামূলক ওষুধ তৈরিতে আশার আলো দেখাচ্ছে বাংলাদেশ! বিশ্বব্যাপী মহামারির মধ্যেই আজ বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস করোনা পরিস্থিতি দেখে ভয় পেলে ভয় পেলে চলবে না, সতর্ক থাকতে হবে:প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টেলিভিশনে প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের পাঠদান শুরু আজ জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন
১৬২

নীলফামারীতে ভুল প্রশ্নপত্রের কবলে এসএসসির ৯৮ জন পরীক্ষাথী 

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

ভুল প্রশ্নপত্রের কবলে পড়েছে নীলফামারীর রাবেয়া বালিকা বিদ্যানিকেতন কেন্দ্রে ৯৮ জন এসএসসি পরীক্ষার্থী। পরিস্থিতি সামাল দিতে অতিরিক্ত আড়াই ঘন্টার বেশী সময় দিয়ে তাদের পুনরায় পরীক্ষা গ্রহন করা হয়েছে। 


আজ সোমবার দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ডের অধিনে বাংলা প্রথম পত্রের পরীক্ষায় এ ঘটনা ঘটে। 
জানা যায়, জেলা শহরের রাবেয়া বালিকা বিদ্যা নিকেতন বিদ্যালয় কেন্দ্রে মোট ৬২০জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে। এর মধ্যে ২০১৮ সালের সিলেবাস অনুযায়ী পরীক্ষার্থী ছিল শুধু মাত্র ১জন। ওই একজন পরীক্ষার্থীর জন্য বাংলা প্রথম পত্রে ১২০টি প্রশ্নপত্র পান কেন্দ্র সচিব। 
৯৮ জন পরীক্ষার্থী জানায়, আমরা যে খাতায় ২০১৮ সালের প্রশ্নে পরীক্ষা দিচ্ছিলাম সেটিতেই আমাদের বাড়তি পেজ লাগিয়ে দিয়ে ২০২০ সালের প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা নেয়া হয়েছে। পুরানো সিলেবাসের উত্তরগুলো কেন্দ্র সচিব লাল কালি দিয়ে কেটে দেন। এতে আমরা ফলাফলে  নিয়ে শংকা প্রকাশ করছি।
এ ব্যাপারে ওই কেন্দ্রের কেন্দ্র সচিব ও প্রধান শিক্ষক মহাফিজুর রহমান খান জানান, ২০২০ সালের সিলেবাস অনুযায়ী মোট ৬১৯জন এবং ২০১৮ সালের পুরনো সিলেবাস অনুযায়ী ১জন সহ মোট ৬২০জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছে তার কেন্দ্রে। ২০২০ সালের ৬১৯ জন পরীক্ষার্থী বিপরীতে ১হাজার ২০টি প্রশ্নপত্র এবং ২০১৮ সালের পুরনো সিলেবাসের ১জন পরীক্ষার্থীর জন্য ১২০টি প্রশ্নপত্র বরাদ্দ পাওয়া যায়। কেন্দ্রের ৮ ও ৫ নম্বর কক্ষে ২০২০ সালের পরীক্ষার্থীদের কাছে ২০১৮ সালের সিলেবাস অনুযায়ী প্রশ্নপত্র ভুলবশত ৯৮ জনের কাছে সরবরাহ করা হয়। পরীক্ষা চলাকালীন ১ঘন্টা পরে ওই কক্ষের পরীক্ষার্থী নীলফামারী কালেক্টরেট পাবলিক  স্কুল এন্ড কলেজের বিজ্ঞান শাখার শিক্ষার্থী সেলিম রেজা বিষয়টি ধরতে পারেন।  সে ওই কক্ষে দায়িত্ব পালনকারী শিক্ষককে অবগত করে।  আমরা তাৎক্ষনিকভাবে  ৯৮জন পরীক্ষার্থীর  কাছ থেকে প্রশ্নপত্র গুলি ফেরত নিয়ে নেই।
জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান চৌধুরী বলেন, বিষয়টি নিয়ে বোর্ডের সাথে কথা বলে পরীক্ষার নির্ধারিত সময়ের ১ ঘণ্টা ২৫ মিনিট পর ২০২০ সালের প্রশ্নপত্র দিয়ে পরীক্ষা নেয়া হয় তাদের। তিনি জানান বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে কার ভুলে এমন ঘটনাটি ঘটেছে।  
উল্লেখ যে, নীলফামারী জেলায় ১৯ হাজার ৭৬৪ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে অংশ নেয় ১৯ হাজার ৭১০ জন, অনুপস্থিত ছিলো ৫৪ জন।

নীলফামারী বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর