ব্রেকিং:
দেশে করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ৫৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মারা গেলেন ২ হাজার ৫২ জন। এছাড়া নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ হাজার ২৮৮ জন। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৬২ হাজার ৪১৭ জন। বিশ্বজুড়ে করোনা থেকে সুস্থ হয়ে ওঠা মানুষের সংখ্যা সাড়ে ৬৪ লাখ ছুঁইছুঁই করছে। আন্তর্জাতিক জরিপ সংস্থা ওয়ার্ল্ডোমিটার এ খবর জানিয়েছে।
  • রোববার   ০৫ জুলাই ২০২০ ||

  • আষাঢ় ২১ ১৪২৭

  • || ১৪ জ্বিলকদ ১৪৪১

সর্বশেষ:
পাটকল শ্রমিকদের জন্য কাঁদলেন প্রধানমন্ত্রী যুক্তরাজ্যে বর্ষসেরা চিকিৎসক বাংলাদেশি ফারজানা করোনা মোকাবিলায় ৪২৪ কোটি টাকা ঋণ দিচ্ছে দক্ষিণ কোরিয়া ফোনেই মিলছে করোনার জরুরি সেবা বিএনপি নেতারা আইসোলেশনে থেকে সরকারের দোষ ধরে- তথ্যমন্ত্রী
৯০

নীলফামারীতে সামাজিক বনায়নের গাছ নিধনের অভিযোগ     

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ৬ জুন ২০২০  

রাতের আধারে  জেলার কিশোরীগঞ্জ উপজেলায় বনবিভাগের সামাজিক বনায়নের মূল্যবান গাছ লোপাট করা হচ্ছে। এ ঘটনায়  এলাকাবাসী ও উপকারভোগী সমিতির সদস্যরা  বিভাগীয় বন কর্মকর্তা বরারর লিখিত অভিযোগ করেছে।

 
গতকাল শুক্রবার বিকালে উপকারভোগীরা সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করে জানান, উপজেলার এসএফ পিসির আওতায় নিতাই ইউনিয়নের এস সেভেনটি ক্যানেলের পাড়ে ২০০২/২০০৩ আর্থিক সালে সৃজিত ৮ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে সামাজিক বনায়ন প্রকল্প করা হয়। এতে বিভিন্ন প্রজাতির কয়েক হাজার গাছ রোপন করা হয়। বনায়নের এসব গাছ রক্ষাণাবেক্ষনের জন্য  সামাজিক বনায়ন উপকারভোগী সমিতি নামে ৮০ জন সদস্য নিয়ে একটি কমিটি গঠিত করা হয়েছিল। নীতিমালা অনুযায়ী সমিতির সদস্যরা এসব গাছ দেখভাল করবেন। এবং পরবর্তীতে গাছ বিক্রির একটি অংশ সদস্যরা পাবে।


সামাজিক বনায়ন উপকারভোগী সমিতির সদস্য লাইলী বেগমের ছেলে গোলাম রব্বানী, ফরজন বেগমের ছেলে রবিউল ইসলাম, এবং আব্দুল মতিন অভিযোগ করে বলেন, এসমব গাছ সমিতির সদস্যরা  নিজের সন্তানের মত গাছগুলো লালন পালন করে এসেছে। বর্তমানে আমাদের মা বৃদ্ধ হয়ে গেছে কিন্তু গাছ বিক্রি করতে পারছেনা। আর সমিতির সম্পাদক রাতের আধারে গাছ কেটে বিক্রি করছে।  

মুক্তিযোদ্ধা আমিনুর রহমান বলেন, সমিতির সম্পাদক  রাতের আধারে একের পর এক  গাছ কেটে লোপাট করছে। এরমধ্যে সদস্য ন ১৫টি গাছ আটক করে ইউনিয়ন পরিষদে জমা রাখলে সম্পাদকের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়নি। এমতাবস্থায় সমিতির  সম্পাদক স্বপ্না বেগম ও তার স্বামী  ১০ টি গাছ কেঁটে বিক্রি করে।  


উপকারভোগী সমিতির সম্পাদক স্বপ্না বেগম তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, গাছগুলো পাহারা দিয়ে রাখার কারনে কিছু প্রভাবশালী আমার বিরুদ্ধে ক্ষিপ্ত।  প্রভাবশালীরা গাছ বিক্রি করতে না পেরে আমার বিরুদ্ধে যড়যন্ত্র করছে। ঝড়ে উপরে পড়া কয়েকটি গাছ আমি উদ্ধার করে নিজের হেফাজতে রেখেছি।

এ ব্যাপারে রংপুর বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মতলুবুর রহমান বলেন, বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। 

নীলফামারী বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর