ব্রেকিং:
রংপুর মেডিকেল কলেজে (রমেক) পিসিআর ল্যাবে গত ২৪ ঘণ্টায় ১৮৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করে নতুন করে আরো ৫৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। রবিবার বিকেলে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রংপুর মেডিকেল কলেজের (রমেক) অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডাঃ একেএম নুরুন্নবী লাইজু। দেশে করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ৩৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মারা গেলেন ৩ হাজার ৩৯৯ জন। এছাড়া নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন দুই হাজার ৪৮৭ জন। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ৫৭ হাজার ৬০০ জন।
  • সোমবার   ১০ আগস্ট ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ২৫ ১৪২৭

  • || ২০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

সর্বশেষ:
শ্রীলঙ্কার বিজয়ী প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপাকশা-কে শেখ হাসিনার অভিনন্দন দিনাজপুরে সাংবাদিকদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর আর্থিক সহায়তার চেক বিতরণ গঙ্গাচড়ার বন্যা কবলিত ৫’শ মানুষের মাঝে ত্রান বিতরণ মেজর সিনহা নিহতের ঘটনায় কেউই ছাড় পাবে না : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আ.লীগের প্রতিটি সংগঠনের সাথে মায়ের নিবিড় সম্পর্ক ছিল: শেখ হাসিনা
৯২

নীলফামারী জেলা আওয়ামীলীগের সম্মেলন ঘিরে প্রেস ব্রিফিং

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ৪ ডিসেম্বর ২০১৯  

উত্তরবঙ্গের নীলফামারীর জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন। আগামীকাল বৃহস্পতিবার (৫ ডিসেম্বর) সকাল ১০টায় নীলফামারী কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার মাঠে এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। এই সম্মেলন ঘিরে আজ বুধবার(৪ ডিসেম্বর) বিকালে প্রেস ব্রিফিং করেছে জেলা আওয়ামী লীগ। সম্মেলন মাঠেই অনুষ্ঠিত প্রেস ব্রিফিং এ সভাপতিত্ব করে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দেওয়ান কামাল আহমেদ।  

প্রেস ব্রিফিং এ সাধারণ সম্পাদক এ্যাডঃ মমতাজুল হক বলেন, দীর্ঘ তেরো বছর পর জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন ঘিরে দলের নেতাকর্মীরাই শুধু নয় এ জেলার সাধারণ মানুষজনও উজ্জিবিত। স্বাধীনতা সংগ্রামের বিজয়ের মাসে নীলফামারীর জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিকী আগামী দিনে বড় ধরনের সফলতা নিয়ে আসবে। আমাদের উদ্দ্যেশ একটাই বঙ্গবন্ধুর আর্দশকে ধারন করে শেখ হাসিনার হাতকে আরো সু-সংগঠিত করে দুর্নীতিবাজ, চাঁদাবাজ, জুয়া, মাদক নির্মূল করে আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব কায়েম করা। আমাদের জাতীর পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশকে জন্ম দিয়েছে। এই বাংলাদেশে ঠাই হবেনা রাজাকার, জঙ্গী বোমাবাজ ও সন্ত্রাসবাদদের। 

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নীলফামারী পৌরসভার মেয়র দেওয়ান কামাল আহমেদ বলেন, আওয়ামীলীগ একটি বড় এবং গণতান্ত্রিক দল। যা বঙ্গবন্ধুর আর্দশ এবং মাননীয় শেখ হাসিনার নেতৃত্বে  দেশ পরিচালনা করছেন। আজ আমরা মধ্যম আয়ের দেশের পথে হাটছি। দেশের উন্নয়নে শেখ হাসিনার বিকল্প নেই। তাই বঙ্গবন্ধু ও তার কন্যার আদর্শ শক্তি নীলফামারী জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন আগামীদিনে এ জেলার সফল ও স্বার্থক করে তুলবে। তিনি জানান, সম্মেলনে ২৫০ জনকে কাউন্সিলর ও প্রায় আড়াই হাজার জনকে ডেলিগেট চূড়ান্ত করা হয়েছে। 

প্রেস ব্রিফিং জানানো হয়, দলীয় প্রতিক ‘নৌকার ম ’ এবারের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। সম্মেলনের উদ্বোধন করবেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সভাপতি মন্ডলীর সদস্য রমেশ চন্দ্র সেন এমপি। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহণ ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ও প্রধান বক্তা হিসেবে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক বক্তব্য দেবেন। এছাড়া বিশেষ অতিথি হিসেবে নীলফামারী-২ আসনের সংসদ সদস্য আসাদুজ্জামান নুর ও বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক উপস্থিত থাকবেন। প্রেস ব্রিফিং এ জেলা আওয়ামী লীগ ও তার সকল অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। 

এদিকে সম্মেলনের জন্য ইতোমধ্যে প্রস্তুত হচ্ছে প্রাঙ্গণ। শহরের বিভিন্ন প্রান্তে স্থাপন করা হয়েছে ব্যানার-ফেস্টুন আর বিলবোর্ড। এ ছাড়া দলটির বিভিন্ন অঙ্গসংগঠন শহরের সম্মেলনের সফল ও স্বার্থক কামনা করে প্রতিদিন আনন্দ ও প্রচারনা মিছিল করছে। সম্মেলন ঘিরে শহীদ মিনার প্রাঙ্গণ এবং চৌরঙ্গি মোড়ে অবস্থিত দলীয় কার্যালয়ে বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা কর্মীদের উপস্থিতি যেন মিলন মেলায় পরিণত হয়েছে। ম  দেখতে আসছেন উপজেলা নেতারাও। সম্মেলনের মাধ্যমে দল আরো গতিশীল, শক্তিশালী এবং যোগ্য ত্যাগী ও বঙ্গবন্ধুর প্রকৃত কর্মীদের মুল্যায়ন হবে এমনটাই প্রত্যাশা করছেন তৃণমুল নেতারা।

উল্লেখ যে,২০০৬সালের এপ্রিলে সম্মেলনের মাধ্যমে জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি হিসেবে নীলফামারী পৌরসভার মেয়র দেওয়ান কামাল আহমেদ এবং সাধারণ সম্পাদক হিসেবে এ্যাডভোকেট মমতাজুল হক নির্বাচিত হন। পরে ২০১২সালের জানুয়ারীতে পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন দেন দলের সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। 

তবে এবারের সম্মেলনে সভাপতি হিসেবে বর্তমান সভাপতি দেওয়ান কামাল আহমেদ ছাড়া কারো নাম না আসলেও সাধারণ সম্পাদক পদে এসেছে তিনজনের নাম। এরা হলেন বর্তমান সাধারণ সম্পাদক এ্যাডঃ মমতাজুল হক, জেলা আওয়ামীলীগের প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক মিজানুর রহমান ও জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি কামরুজ্জামান কামরুল। তারা দুইজনই ছাত্রলীগের প্রাক্তন নেতা ছিলেন। মিজানুর রহমান ৯০দশকে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এবং কামরুল ১৯৯২-১৯৯৭সাল পর্যন্ত জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্বে ছিলেন।

নীলফামারী বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর