ব্রেকিং:
দেশে করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ৪১ জনের মৃত্যু হয়েছে। এই নিয়ে দেশে করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন ১ হাজার ৮৮৮ জন। অপরদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় ১৭ হাজার ৮৭৫টি নমুনা পরীক্ষা করে ভাইরাসটির সংক্রমণ পাওয়া গেছে ৩ হাজার ৭৭৫ জনের শরীরে। এ নিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ১ লাখ ৪৯ হাজার ২৫৮ জন। আজ বুধবার রংপুর মেডিকেল কলেজে ১৮৮টি নমুনা পরীক্ষা করে ৪১ জনের করোনা শনাক্ত হয় । নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ২১.৮০ শতাংশ। নিরাপদ ও কার্যকর ভ্যাকসিন পেয়ে যাব তার নিশ্চয়তা নেই- ফাউচি
  • বৃহস্পতিবার   ০২ জুলাই ২০২০ ||

  • আষাঢ় ১৭ ১৪২৭

  • || ১১ জ্বিলকদ ১৪৪১

সর্বশেষ:
রংপুরের পাঁচ নদীর পানি বিপৎসীমার উপরে: প্লাবিত হচ্ছে নতুন এলাকা বিএনপিতে ভাইপন্থীদের নিয়ে বিব্রত হাইকমান্ড শতবর্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ২০ কোটি টাকা খাবারের বিলের খবর ভিত্তিহীন- ঢামেক পরিচালক দেশে জঙ্গিবাদ নিয়ন্ত্রণে- র‌্যাব ডিজি
৫৩

পেঁয়াজের চাহিদার তুলনায় উৎপাদন কম

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১৪ জানুয়ারি ২০২০  

পেঁয়াজের দাম আবারো বৃদ্ধি পাওয়ায় রংপুরের টিসিবির ভ্রাম্যমাণ বিক্রয় কেন্দ্রগুলোতে ভিড় বাড়ছে ক্রেতাদের। চাহিদার বিপরীতে উৎপাদনে ঘাটতি এবং বছর জুড়ে আমদানি নির্ভরতার কারণে পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধির কারণ বলে জানিয়েছেন কৃষি কর্মকর্তারা । 
কৃষি প্রধান রংপুর অঞ্চলে বছরের পর বছর দাম না পাওয়ায় কৃষকরা আগ্রহ হারিয়েছেন পেঁয়াজ চাষে। যদিও এবার কিছুটা বেড়েছে কৃষিবিদদের মতে। অঞ্চল ভেদে জমির সুষম বন্টনের পাশাপাশি ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করা গেলে পেঁয়াজে চাষে কৃষকদের উৎসাহিত করা সম্ভব।  

বিবিএস-এর সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী রংপুর জেলায় বছরে পেঁয়াজের চাহিদা প্রায় ২৩ হাজার ২৮৭ মেট্রিক টন। জেলার মোট চাহিদা উৎপাদিত পরিমাণ দ্বারা মেটানো সম্ভব হলেও মোট চাহিদার বিপরীতে ঘাটতি থাকায় বছর জুড়েই নির্ভর করতে হয় আমদানি পেঁয়াজের ওপর।

এবারে কৃষকপর্যায়ে পেঁয়াজের ভালো দাম পেলেও বিগত সময়ে পেঁয়াজ চাষিরা টানা লোকসানে থাকায় আগ্রহ কমেছে পেঁয়াজ আবাদে। 

সূত্র বলছে, ২০১৫-১৬ মৌসুমে রংপুর অঞ্চলে পেঁয়াজ আবাদ হয়েছিল ৭ হাজার ১২৫ হেক্টর,২০১৬-১৭ তা কমে দাঁড়ায় ৬ হাজার ৪৭৮ হেক্টরে, ২০১৭-১৮ ৬ হাজার ৩৩৫ হেক্টর আর ২০১৮-১৯ আরো কমে দাঁড়ায় ৬ হাজার ১৪২ হেক্টরে। তবে এবারে দাম থাকায় আবাদ বেড়েছে।

কৃষিবিদদের মতে পেঁয়াজ আবাদ হয় এমন অঞ্চলগুলোকে গুরুত্ব দেয়ার পাশাপাশি বাণিজ্যনীতি সমন্বয় এবং কৃষকদের উৎসাহিত করা গেলে চাহিদা অনুযায়ী উৎপাদন সম্ভব।  
কৃষি বিশেষজ্ঞদের মতে, আমদানি নির্ভরশীলতা কমিয়ে পেঁয়াজ উৎপাদন ও সংরক্ষণে ভালো পদক্ষেপ নেয়া গেলে একদিকে যেমন কৃষক লাভবান হবেন; অন্যদিকে ভোক্তাপর্যায়েও এর দাম সহনীয় পর্যায়ে থাকবে।
 
রংপুর নগরীর তপোধন এলাকার পেঁয়াজ চাষি সফর উদ্দিন জানান, প্রতি বছর পেঁয়াজ চাষ করার পর ভালো দাম পেয়েছি। এবারে দুই একর জমিতে পেঁয়াজের চাষ করেছি। আশাকরি লাভ ভালো হবে।

রংপুর কৃষি বিপণন অধিদফতরের জেলা মার্কেটিং অফিসার হাসান সারওয়ার বলেন, দেশের যে সব অঞ্চলে পেঁয়াজ চাষ হয় সে সব অঞ্চলকে গুরুত্ব দিয়ে কৃষকদের পেঁয়াজ চাষে উৎসাহিত করতে হবে

নগর জুড়ে বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর