মঙ্গলবার   ১৯ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৪ ১৪২৬   ২১ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

সর্বশেষ:
বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের প্রথম বর্ষ ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ হবে আগামী মঙ্গলবার (১৯ নভেম্বর) রাজনৈতিক স্ট্যান্টবাজি করতেই চিঠি দিয়েছে বিএনপি: তথ্যমন্ত্রী র‌্যাবের ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলমকে হাইকোর্টে তলব পাঁচ বছরের নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়ে বাংলাদেশিদের জন্য আমিরাতের শ্রমবাজার খুলে দেয়ার ইঙ্গিত যত চাপ থাকুক সড়ক পরিবহন আইন বাস্তবায়ন হবে বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের গ্রামীণফোনের পাওনার বিষয়ে আদেশ ২৪ নভেম্বর আরব আমিরাতের আরো বড় বিনিয়োগের প্রত্যাশা প্রধানমন্ত্রীর আবরার হত্যা মামলার অভিযোগপত্র (চার্জশিট) আমলে নিয়ে পলাতক চার আসামির বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছে আদালত
১০

বেরোবিতে প্রভোস্টের রুমে তালা দিল টর্চার কমান্ডার জয়

প্রকাশিত: ৩ নভেম্বর ২০১৯  

ছাত্রলীগ নেতাদের পরামর্শ নিয়ে তাদের কথা মতো আবাসিক হলে শিক্ষার্থীদের আসন বিন্যাস না করায় বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মুখতার ইলাহী হলের প্রভোস্ট রুমে এবং অফিস রুমে তালা লাগিয়েছে টর্চার সেল কমান্ডার খ্যাত ছাত্রলীগ নেতা মাহমুদ-উল ইসলাম জয়।

রোববার দুপুর সাড়ে ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মুখতার ইলাহী হলে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের হল অফিস কক্ষ থেকে বের করে দিয়ে তালা দেয় ছাত্রলীগ নেতা জয়।

হল সূত্র জানায়, পূর্ব আবেদনপত্র থেকে গত বৃহস্পতিবার হলের আসন বরাদ্দের জন্য সাক্ষাৎকার গ্রহণ করা হয়। বৃহস্পতিবার রাতেই সাক্ষাৎকার দেওয়া শিক্ষার্থীদের আসন বন্টণ করে হলের প্রভোস্ট। বরাদ্দের ব্যাপারে জয় এবং ছাত্রলীগ নেতাদের সাথে পরামর্শ না করে আসন বরাদ্দ দেওয়ার পর বৃহস্পতিবার রাত থেকেই ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা বিভিন্ন পরিকল্পনা নেয়।

পরিশেষে রোববার আসন প্রাপ্ত শিক্ষার্থীরা ভর্তি হতে আসলে তাদেরকে বের করে দিয়ে প্রভোস্ট কক্ষ ও অফিস কক্ষে তালা লাগিয়ে ভর্তি স্থগিত করে দেয় টর্চার কমান্ডার জয়সহ ছাত্রলীগ নেতারা। এরপর থেকে বিকাল চারটা পর্যন্ত কেউ অফিস কক্ষে প্রবেশ করতে পারেনি।

সূত্রে জানা যায়, গত ৩১ অক্টোবর হলের আসন বরাদ্দ দেওয়ার সময় হল প্রভোস্ট শাহীনুর রহমান ছাত্রলীগের নেতাদের সাথে কোন ধরণের পরামর্শ ছাড়াই শিক্ষার্থীদেরকে আসনের বৈধতা দেন। আরও জানা যায়, শহীদ মুখতার ইলাহী হলে ইতোপূর্বে কোন প্রভোস্ট ছাত্রলীগ নেতা টর্চার কমান্ডার জয়ের পরামর্শ ছাড়া কোন আসন বরাদ্দ দিতে পারেননি।

হল অফিস সূত্র জানায়, হলে মোট ৩শ চল্লিশটি আসনের মধ্যে বৈধ আসন সংখ্যা ১১৮টি। বাকি আসনগুলোতে জয় এবং ছাত্রলীগ নেতারা তাদের ইচ্ছামতো শিক্ষার্থী তুলে মাসিক চাঁদা আদায় করেন বলে অভিযোগ আছে। কিন্তু এবার হল প্রভোস্ট তাদের সাথে কোন কথা ছাড়াই আসন বরাদ্দ দিলে তারা অফিস কক্ষে তালা দিয়ে হলে ভর্তি কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়।

এবিষয়ে ছাত্রলীগ সভাপতি তুষার কিবরিয়া জানান, আমি ঢাকায় ব্যস্ত আছি। তালা লাগানোর বিষয়টি শুনেছি। কেন লাগিয়েছে এ ব্যাপারে আমি কিছু জানিনা।

এবিষয়ে হল প্রভোস্ট (চলতি দায়িত্ব) মো: শাহিনুর রহমান জানান, তালা দেয়ার বিষয়টা শুনেছি। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সাথে কথা বলে বিষয়টা সুরাহা করা হবে।

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –
এই বিভাগের আরো খবর