ব্রেকিং:
রংপুরে র‌্যাবের ত্রাণ সহায়তা কার্যক্রম শুরু শতাধিক দুস্থকে রংপুর রিপোর্টার্স ইউনিটির উদ্যোগে খাদ্য সহায়তা প্রদান পীরগঞ্জ উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে মানুষের বাড়ি বাড়ি যাচ্ছে খাবারের গাড়ি ঠাকুরগাঁও জেলা মটর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন’র খাদ্যসামগ্রী বিতরণ রাণীশংকৈল উপজেলা প্রশাসনের ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম অব্যাহত
  • বৃহস্পতিবার   ০২ এপ্রিল ২০২০ ||

  • চৈত্র ১৮ ১৪২৬

  • || ০৮ শা'বান ১৪৪১

সর্বশেষ:
পহেলা বৈশাখ ও বৈসাবির সব ধরনের অনুষ্ঠান স্থগিত চিকিৎসকদের ফ্রি-তে ‘ক্র্যাক প্লাটুন পরিবহন সেবা’র যাত্রা শুরু দিনাজপুরে অসহায়দের বাড়িতে গিয়ে খাবার দিল ছাত্রলীগ নেতা দেশের বিভিন্ন জায়গায় বজ্রসহ বৃষ্টির সম্ভাবনা বাড়িতেই করোনা পরিমাপ করার ওয়েবসাইট চালু করেছে তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগ
৭৮

বেরোবির ২০১৯ঃ ঘটনাবহুল বছরের নানা বিষয়

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯  

নানা প্রতিকূলতার মধ্য দিয়ে একটি বছর কাটালো বেগম রোকেয়া বিশ্ববিশ্ববিদ্যালয় (বেরোবি)। বেরোবির ঘটনাবহুল বছরের নানা বিষয় নিয়ে বিশেষ প্রতিবেদনটি। 

বছরের শুরুতেই মারধরের শিকার হয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির কোষাধ্যক্ষ আল-আমিন হোসাইন এবং যুগ্ম সম্পাদক সৌম্য সরকার। মারধরের ঘটনার সাথে জড়িতদের শাস্তির দাবিতে প্রক্টর বরাবর পৃথকভাবে অভিযোগ দেন তারা। এ ঘটনায় ছাত্রলীগ নামধারী সন্ত্রাসী মাহমুদুল ইসলাম জয়ের নেতৃত্বে জড়িত তার ক্যাডার বাহিনীদের গ্রেফতারের দাবিতে মানববন্ধন করেছে রংপুরে কর্মরত গণমাধ্যমকর্মীরা। এসময় রংপুর নগরীতে বিক্ষোভ ও মানববন্ধনে প্রিন্ট, ইলেক্টনিক্স মিডিয়া, অনলাইন এবং ভিডিও জার্নালিস্ট ও ফটো সাংবাদিকরা অংশগ্রহণ করেন।

বেরোবি সাধারণ শিক্ষার্থীদের ন্যায্য ও যৌক্তিক দাবি আদায়ের লক্ষ্যে ৬ ফেব্রুয়ারী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি নির্মাণ, ঐতিহাসিক ব্যক্তিদের নামে হল, দ্রুত ছাত্র সংসদ নির্বাচনের আয়োজন, অনতিবিলম্বে সেশনজট নিরসনে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ, শিক্ষার্থীদের আবাসন সংকট দূর করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ, মেডিকেল সেন্টারে ২৪ ঘন্টা সেবা প্রদান ও অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতিসহ প্রয়োজনীয় ঔষধ সংরক্ষণসহ ১০ দফা দাবিতে উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ।

ডেপুটি রেজিস্ট্রার আমিনুর রহমানকে উপাচার্যের একান্ত সচিবের পদ থেকে অব্যাহতি এবং সংস্থাপন শাখা থেকে ডেপুটি রেজিস্ট্রার খন্দকার গোলাম মোস্তফাকে অন্য দপ্তরে বদলির দাবি জানিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারের কাছে স্মারকলিপি দেন অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের নেতৃবৃন্দ। এ নিয়ে বেরোবি কর্মকর্তাদের মাঝে চরম অস্থিরতা চলে। এরই ধারাবাহিকতায় ‘স্বাধীনতা পরিষদ’ নামে কর্মকর্তাদের একটি সংগঠন বিশ্ববিদ্যালয়ের অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের বিরুদ্ধেও স্মারকলিপি জমা দেন।

৫৮জন কর্মকর্তা-কর্মচারীর বকেয়া পরিশোধ, দ্রুত পেনশন নীতিমালা বাস্তবায়নসহ ১০ দফা দাবি আদায়ে প্রায় তিন মাস কর্মবিরতি পালন করেছে বেরোবি কর্মচারীরা। তাদের একটানা কর্মবিরতির ফলে কার্যত অচল হয়ে পড়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল একাডেমিক এবং প্রশাসনিক কার্যক্রম। আন্দোলনের একপর্যায়ে প্রশাসনিক ভবনের দক্ষিণ পাশে দাবি আদায়ে মঞ্চ তৈরী করে প্রশাসনিক ভবনে তালাও দেন কর্মচারীরা।

এসময় কর্মচারীদের আন্দোলনে হামলা চালিয়ে প্রশাসনিক ভবনে কর্মচারীদের লাগানো তালা ভেঙ্গে ফেলেন শিক্ষার্থীরা। আন্দোলনরত কর্মচারীদের টানা কর্মবিরতিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ অস্থিতিশীল হচ্ছে বলে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি সুষ্ঠু রাখতে রংপুর মেট্রাপলিটন তাজহাট থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর আতিউর রহমান।

এমফিল পিএইচডি প্রোগ্রামে ভর্তির নির্দিষ্ট তারিখ শেষ হওয়ার পর বিলম্ব ফি ছাড়াই ভর্তির জন্য ড. ওয়াজেদ রিসার্চ ইন্সটিটিউটের অফিসার আবু সাইদ মো. আহসান সিদ্দীকীকে শার্টের কলার ধরে কিল-ঘুষি, অশালিন ভাষায় গালিগালাজ ও হুমকি দেয়ার অভিযোগ উঠে শহীদ মুখতার এলাহী হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি হাসান আলীর উপর। ভুক্তভোগী সেই অফিসার হাসান আলীর শাস্তির দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয় রেজিস্টার বরাবর লিখিত অভিযোগও করেন।

দিনাজপুর জেলার বিরামপুর থানার সীমান্তবর্তী কাটলা ইউনিয়ন থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা (সেকশন অফিসার) মোক্তারুল ইসলামকে ফেন্সিডিলসহ আটক করে জেল হাজতে পাঠায় পুলিশ। আটক করার সময় তার কাছ থেকে ২ বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার করা হয়। এঘটনায় তাকে সাময়িক বহিষ্কারও করেছে বিশ্বদ্যিালয় প্রশাসন।

১ আগস্ট শোকের মাসে সকল প্রকার আন্দোলন বন্ধ করে ক্যাম্পাসে শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখার আহবান জানিয়ে মৌন মিছিল ও সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। এছাড়াও কর্মচারীদের লাগাতার আন্দোলনের ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ের অচলাবস্থা নিরসন এবং ক্যাম্পাসে উপাচার্যের সার্বক্ষনিক উপস্থিতির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করেছে বেরোবি শাখা ছাত্রফ্রন্ট।

বেরোবির অর্থ ও হিসাব দপ্তরের পরিচালক এবং গণিত বিভাগের অধ্যাপক ড. আর এম হাফিজুর রহমানকে নিয়ে ফেসবুকে অশালীন মন্তব্য করার অভিযোগে তিন কর্মচারীকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

২১ আগস্ট আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বেরোবি শাখা ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই হলের বেশ কয়েকটি কক্ষে থাকা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি ভাংচুর করে ছাত্রলীগ নেতারা। এতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এবং শাখা ছাত্রলীগ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সংসদের সাবেক সদস্য ফয়সাল আযম ফাইনকে প্রধান আসামী করে দুইটি পৃথক মামলা দায়ের করা হয়। মামলায় ছাত্রলীগের ১০ নেতার নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো ৫০/৬০ আসামী করা হয়।এতে গ্রেফতারও হন মামলার তিনজন আসামী।

মামলায় জামিনে মুক্ত হয়ে আসার পর ১৮ সেপ্টেম্বর রাত সাড়ে আটটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাথে বহিরাগত ছাত্রলীগের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এসময় সংগঠনটির নেতা-কর্মীদের হেলমেট পরে দেশীয় অস্ত্র হাতে মহড়া দিতে দেখা যায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষা কমিটির সিদ্ধান্ত ছাড়াই এক কর্মকর্তাসহ কয়েকজন শিক্ষকের যোগসাজশে ‘অন্যরকম সফটওয়্যার লিমিটেড’ নামক একটি বেসরকারী সফটওয়্যার প্রতিষ্ঠানকে ভর্তি প্রক্রিয়ার মোবাইল ফোন সেবার দায়িত্ব দেয়া হলে ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষ ভর্তি পরীক্ষার কেন্দ্রীয় কমিটির মিটিংয়ে কমিটির সদস্যদের একে অপরের বাক-বিতণ্ডা ও মতানৈক্যের সৃষ্টি হয়। এতে আবেদন প্রক্রিয়া সাময়িক স্থগিত ঘোষণাও করা হয়।

২৭ সেপ্টেম্বর রাত আনুমানিক ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মুখতার ইলাহী হলে চাঁদা দাবী ও হুমকির অভিযোগে ছাত্রলীগ নেতা মাহমুদুল ইসলাম জয়ের বিরুদ্ধে রংপুর মেট্রোপলিটন তাজহাট থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন ভুক্তভোগী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী রায়হান কবির।

জুয়া মামলায় আটক থাকার দায়ে ২৪ অক্টোবর বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন পুলে কর্মরত উপ-রেজিস্ট্রার মো. তারিকুল ইসলাম এবং প্রকৌশল ও প্রযুক্তি অনুষদের সহকারী রেজিস্ট্রার এস এম আব্দুর রহিমকে সাময়িক বরখাস্ত করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

ছাত্রলীগ নেতাদের পরামর্শ নিয়ে তাদের কথা মতো আবাসিক হলে শিক্ষার্থীদের আসন বিন্যাস না করায় বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মুখতার ইলাহী হলের প্রভোস্ট এবং অফিস রুমে তালা দেয় টর্চার সেল কমান্ডার খ্যাত ছাত্রলীগ নেতা মাহমুদ-উল ইসলাম জয়। বরাদ্দের ব্যাপারে জয় এবং ছাত্রলীগ নেতাদের সাথে পরামর্শ না করে আসন বরাদ্দ দেওয়ার পর ২ নভেম্বর রাত থেকেই ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা বিভিন্ন পরিকল্পনা নেয়।

২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষা উপলক্ষে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার সময় থাকার সুনিশ্চিত ব্যবস্থা, বিগত বছরে ভর্তি জালিয়াতির সাথে জড়িত অভিযুক্ত শিক্ষক কর্মকর্তা কর্মচারীদের ভর্তি পরীক্ষা চলাকালীন প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি ও ভর্তি সংক্রান্ত কর্মকান্ড থেকে বিরত রাখাসহ তিন দফা দাবিতে ঢাকা-রংপুর মহাসড়ক অবরোধ করে বেরোবি শিক্ষার্থীরা। সারাদিন আন্দোলনের পরে শেষ বিকেলে উপাচার্য নিজে এসে শিক্ষার্থীদের সকল দাবি মেনে নিয়ে আন্দোলন বন্ধ করান ।

আদালতের রায় পূর্ণাঙ্গরূপে বাস্তবায়ন না করলে দশ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দাবি করে আগামী সাতদিনের আল্টিমেটাম দেন সুপ্রীম কোর্টের রায়ের মাধ্যমে নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষক মাহমুদুল হক। জ্যেষ্ঠতা, পদোন্নতি, বেতন-ভাতা ও ক্ষতিপূরণ প্রদানসহ পূর্ণাঙ্গ রায় বাস্তবায়ন চেয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার বরাবর আবেদন করেন তিনি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজী বিভাগের শিক্ষিকা ইমরানা বারীর ছোটবোন ২০১৯-২০ সেশনের ভর্তি পরীক্ষায় সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘বি’ ইউনিটে রেকর্ড পরিমাণ নম্বর পেয়ে প্রথম স্থান অধিকার করলেও অন্য দুই ইউনিটে সর্বনিম্ন নম্বর পেয়ে ফেল করে। এঘটনায় উত্থাপিত দুর্নীতির অভিযোগে গঠিত তদন্ত কমিটি পুনর্গঠন, তদন্ত সাপেক্ষে জড়িতদের শাস্তি নিশ্চিতকরণ এবং বি-ইউনিটের ভর্তি কার্যক্রম স্থগিত রাখার দাবিতে মানববন্ধন করে বিশ্ববিদ্যালয়ের সচেতন শিক্ষকবৃন্দ।

এদিকে এ মানববন্ধনকে ক্যাম্পাসে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির অভিযোগ এনে এর প্রতিবাদে মানববন্ধন করেন উপাচার্যপন্থী শিক্ষক-কর্মকর্তাদের আরেকটি পক্ষ। সচেতন শিক্ষকবৃন্দের পক্ষ থেকে ‘বি’ ইউনিটের ভর্তি কার্যক্রম বন্ধ না হলে কঠোর কর্মসূচির হুশিয়ারি দেন আন্দোলনরত শিক্ষকরা। শুধু তাই নয় এটাকে কেন্দ্র করে ১১ ডিসেম্বর সচেতন শিক্ষকদের ব্যানারে “আমরা দেখতে চাই কার কী তাতে?” শিরোনামে এক ব্যতিক্রমী প্রতিবাদও জানিয়েছেন শিক্ষকেরা। প্রতিবাদী ব্যানারে শিক্ষকেরা বিশ্ববিদ্যালয়ের চলমান বিভিন্ন ইস্যুও তুলে ধরেন।

শিক্ষা বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর