ব্রেকিং:
ট্রেনের টিকিট শুধু অনলাইনেই বিক্রি হবে বলে জানিয়েছেন রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন। বসলো পদ্মাসেতুর ৩০তম স্প্যান: দৃশ্যমান সাড়ে ৪ কিলোমিটার গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় ছয়জন নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে দুইজন স্বাস্থ্যকর্মী, তিনজন গার্মেন্টসকর্মী ও একজন মাওলানা।
  • শনিবার   ৩০ মে ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৬ ১৪২৭

  • || ০৭ শাওয়াল ১৪৪১

সর্বশেষ:
বসলো পদ্মাসেতুর ৩০তম স্প্যান: দৃশ্যমান সাড়ে ৪ কিলোমিটার করোনা-আম্ফান-কালবৈশাখী: দিনাজপুরে দিশেহারা লিচুচাষিরা গাইবান্ধায় ঈদের ছুটিতে আসা ৩ গার্মেন্টসকর্মী করোনায় আক্রান্ত ঠাকুরগাঁওয়ে এক রাস্তার সমস্যা অনেক গাইবান্ধায় রড চুরির ঘটনায় মৃত দুই ব্যক্তির নামে মামলা
২৩

যে কারণে লাইলাতুল কদর এত মহিমান্বিত 

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১৯ মে ২০২০  

ইসলামে স্বীকৃত বরকতময় ও মহিমান্বিত যেসব দিবস রজনী রয়েছে, এর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে শবে কদর বা লাইলাতুল কদর। কদরের এক অর্থ মাহাত্ম্য ও সম্মান। অন্যান্য রাতের তুলনায় এ রাত মহিমান্বিত হওয়ার কারণে এটাকে লাইলাতুল কদর তথা মহিমান্বিত রাত বলা হয়।
আবু বকর ওয়াররাক (রহ.) বলেন, এ রাতকে লাইলাতুল কদর বলার কারণ হচ্ছে, এ রাতে আল্লাহ যে কিতাব অবতীর্ণ করেছেন সেটা মহিমান্বিত ও সর্বশ্রেষ্ঠ আসমানি কিতাব এবং যে নবীর ওপর অবতীর্ণ, তিনিও মহিমান্বিত ও সর্বশ্রেষ্ঠ নবী, আর যে উম্মতের জন্য অবতীর্ণ করেছেন, তারা মহিমান্বিত ও সর্বশ্রেষ্ঠ উম্মত। সর্বোপরি আমল না করার কারণে এর পূর্বে যার সম্মান ও মূল্য মহিমান্বিত থাকে না, সেও এ রাতে তওবা ইস্তিগফার ও ইবাদত–বন্দেগির মাধ্যমে মহিমান্বিত হয়ে যায়।

কোরআন মজিদ শবে কদরে অবতীর্ণ হয়:
إِنَّآ أَنزَلۡنَـٰهُ فِى لَيۡلَةِ ٱلۡقَدۡرِ
وَمَآ أَدۡرَٮٰكَ مَا لَيۡلَةُ ٱلۡقَدۡرِ
لَيۡلَةُ ٱلۡقَدۡرِ خَيۡرٌ۬ مِّنۡ أَلۡفِ شَہۡرٍ۬
تَنَزَّلُ ٱلۡمَلَـٰٓٮِٕكَةُ وَٱلرُّوحُ فِيہَا بِإِذۡنِ رَبِّہِم مِّن كُلِّ أَمۡرٍ۬
سَلَـٰمٌ هِىَ حَتَّىٰ مَطۡلَعِ ٱلۡفَجۡرِ
আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘নিশ্চয়ই আমি কদরের রজনীতে কোরআন নাজিল করেছি। আপনি জানেন কি? কদরের রজনী কী? কদরের রজনী হাজার মাস অপেক্ষা উত্তম! সে রাতে ফেরেশতারা অবতীর্ণ হন, জিবরাইল (আ.)-সহ; তাদের রবের নির্দেশ ও অনুমতিক্রমে সব বিষয়ে শান্তির ফয়সালা নিয়ে; তা উষার উদয় পর্যন্ত। (সূরা: কদর, আয়াত: ১-৫)।
সূরা কদরের প্রথম আয়াতে বলা হয়েছে, ‘নিশ্চয় আমি কদর রাতে কোরআন নাজিল করেছি।’ এ আয়াত থেকে পরিষ্কার জানা যায়, শবে কদরে কোরআন অবতীর্ণ হয়েছে। এরপর হজরত জিবরাইল (আ.) ধীরে ধীরে তেইশ বছরে তা রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের কাছে পৌঁছাতে থাকেন। এ কথাও বলা যেতে পারে, এ রাতে কয়েকটি আয়াত অবতরণের মাধ্যমে কোরআন অবতরণের ধারাবাহিকতার সূচনা হয়। এরপর অবশিষ্ট কোরআন পরবর্তী সময়ে ধাপে ধাপে অবতীর্ণ হয়।

ধর্ম বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর