শুক্রবার   ২২ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৮ ১৪২৬   ২৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

২৭

রংপুরের পায়রাবন্দে আয়োজিত মিনি ইজতেমার আজ দ্বিতীয় দিন

প্রকাশিত: ৮ নভেম্বর ২০১৯  

রংপুরের পায়রাবন্দে ঘাঘট নদীর কোল ঘেঁষে প্রায় দুই লাখ মুসল্লির সমাগমে শুরু হয়েছে মিনি ইজতেমা।

গতকাল বৃহস্পতিবার (৭ নভেম্বর) সকালে আম বয়ানের মধ্যে দিয়ে তিন দিনের এ ইজতেমা শুরু হয়। আজ চলছে এর দ্বিতীয় দিন।

রংপুর মেট্রোপলিটনের পাশ ঘেঁষা দমদমা ব্রীজের অদূরে ঢাকা-রংপুর মহাসড়কের ধারে মহীয়সী নারী বেগম রোকেয়ার জন্মভূমি মিঠাপুকুর উপজেলার পায়রাবন্দ ইউনিয়নে এবার রংপুর অঞ্চলের এই বৃহত্তম মিনি ইজতেমার আয়োজন করা হয়েছে। বেসরকারী সংস্থা প্রশিকা’র ৪০ একর আয়তন এলাকাজুড়ে ইজতেমার সামিয়ানা টানানো হয়েছে।

ইজতেমা কমিটি সূত্রে জানা গেছে, এখানে মুসল্লীদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। বুধবার রাত থেকেই রংপুরের বিভিন্ন এলাকা থেকে হাজার হাজার মুসল্লী প্রয়োজনীয় মালামাল ও ব্যাগসহ ইজতেমা মাঠে আসতে শুরু করেন। গতকালই ইজতেমা মাঠ মুসল্লীতে পরিপূর্ণ হয়ে যায়।

মিনি ইজতেমা আয়োজক কমিটি সূত্র আরও জানায়, ১২টি উপ-কমিটি গঠন করা হয়েছে ইজতেমা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার জন্য। প্রত্যেকটি উপ-কমিটিতে ২ শয়ের মতো সদস্য রয়েছেন। ইজতেমার নিরাপত্তায় পুলিশের পাশাপাশি দেড় শতাধীক স্বেচ্ছাসেবক টহল দিচ্ছেন। মাঠে প্রবেশের জন্য ৬টি পথ নির্মাণ করা হয়েছে। মুসল্লীদের চলাফেরার জন্য ঘাঘট নদের দুই স্থানে বিশেষভাবে সাঁকো তৈরী করা হয়েছে।

ইজতেমা কমিটির তদারকীর দায়িত্বে নিয়োজিত মুরব্বী মাহমুদুল হক আমিন বলেন, রংপুর মহানগরসহ রংপুর বিভাগের ৮ জেলার মুসল্লীরা আল্লাহকে রাজী খুশি করার জন্য দলে দলে ইজতেমায় আসতে শুরু করেছেন। প্রথমদিনে প্রায় এক লাখ মুসল্লী বয়ান শুনেছেন। প্রতিদিনই লোক আসছে এবং আরও বাড়বে। শেষ দিনে আখেরী মোনাজাতের দিনে ৫ লাখ মুসল্লী ছাড়িয়ে যাবে আশা করছি।’

মিঠাপুকুর থানার ওসি জাফর আলী বিশ্বাস বলেন, ইজতেমা মাঠ নিরপত্তার চাদরে ঢাকা হয়েছে। কোথাও যাতে কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে, সেজন্য সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে।

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –