ব্রেকিং:
সপ্তাহখানেক নিখোঁজ থাকার পর সন্ধান মিলেছে রংপুরের আলোচিত বক্তা আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনানের। আজ শুক্রবার (১৮ জুন) বিকেলে তার খোঁজ পাওয়া যায়।
  • শনিবার   ১৯ জুন ২০২১ ||

  • আষাঢ় ৬ ১৪২৮

  • || ০৮ জ্বিলকদ ১৪৪২

সর্বশেষ:
নতুন প্রজন্মকে অপরাধমূলক কাজ থেকে দূরে রাখতে হবে- শিক্ষামন্ত্রী রংপুরের শতরঞ্জি পেল জিআই পণ্যের স্বীকৃতি রৌমারীতে মাদরাসাছাত্রদের মারধরের অভিযোগে শিক্ষক আটক গ্রাহক সেবা বৃদ্ধি করার নির্দেশ বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রীর

রংপুর বিভাগে হুহু করে বাড়ছে করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা     

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১০ জুন ২০২১  

রংপুর বিভাগে হুহু করে বাড়ছে করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা। গত ১০ দিনে ৮৫০ জনের দেহে করোনা শনাক্ত ও ৩১ জনের মৃত্যু হয়েছে। এদিকে নতুন করে গত ২৪ ঘণ্টায় ৪১৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করে করোনা শনাক্ত হয়েছে ১৩০ জনের। একই সময়ে চার জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মৃত্যুর সংখ্যা ৪২৩ জনে পৌঁছেছে। বৃহস্পতিবার (১০ জুন) সন্ধ্যায় বিষয়টি নিশ্চিত করেন রংপুর বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক আহাদ আলী।

তিনি বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ১৩০ জন করোনা রোগী পাওয়া গেছে। এ সময়ে রংপুরে একজন, লালমনিরহাটে দুইজনের ও দিনাজপুর জেলায় একজনের মৃত্যু হয়েছে। সুস্থ হয়েছেন ৫৩ জন। এ নিয়ে বিভাগে ১ লাখ ৩৬ হাজার ৮৮৫ জনের নমুনা পরীক্ষা করে মোট ১৯ হাজার ৮৫৩ জন আক্রান্ত পাওয়া গেছে। এছাড়া ৪২৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট ১৮ হাজার ২০৬ জন রোগী সুস্থ হয়েছেন।

রংপুর বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, গত ২৪ ঘণ্টায় বিভাগের দিনাজপুরে ৪৩, ঠাকুরগাঁও ৩৯, রংপুরে ১৯, লালমনিরহাটে ১১, কুড়িগ্রামে ১০, গাইবান্ধায় ৫, নীলফামারীতে ২ ও পঞ্চগড় জেলায় একজন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

এ নিয়ে দিনাজপুুর জেলায় ৬ হাজার ১৪৪ জন আক্রান্ত ও ১৫৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। রংপুর জেলায় ৫ হাজার ১৭৫ জন আক্রান্ত ও ১০২ জনের মৃত্যু, ঠাকুরগাঁও জেলায় ১ হাজার ৮৫১ জন আক্রান্ত ও ৪৬ জনের মৃত্যু, গাইবান্ধা জেলায় ১ হাজার ৭৯৬ জন আক্রান্ত ও ২৩ জনের মৃত্যু, নীলফামারী জেলায় ১ হাজার ৬০৫ জন অক্রান্ত ও ৩৭ জনের মৃত্যু, কুড়িগ্রাম জেলায় ১ হাজার ২৮২ জন আক্রান্ত ও ২৪ জনের মৃত্যু, লালমনিরহাট জেলায় ১ হাজার ১৫২ জন আক্রান্ত ও ১৮ জনের মৃত্যু, পঞ্চগড় জেলায় ৮৪৮ জন আক্রান্ত ও ২০ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এদিকে করোনা সন্দেহে বিভাগে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৪৪৯ জনসহ হোম কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন ১ লাখ ১১ হাজার ৬৯০ জন। একই সময়ে ২৯৮ জনসহ মোট ১ লাখ ৬ হাজার ৪৮১ জনকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে।