বৃহস্পতিবার   ১২ ডিসেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ২৮ ১৪২৬   ১৪ রবিউস সানি ১৪৪১

৫৫

রংপুর-৩ আসনের উপনির্বাচনে প্রার্থী মনোনয়নে ক্ষুব্ধ তৃণমূল নেতারা

প্রকাশিত: ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

জাতীয় পার্টিতে বেগম রওশন এরশাদ ও গোলাম মোহাম্মদ কাদেরের মধ্যে দৃশ্যমান সমঝোতা হলেও উভয় পক্ষের নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে। বিশেষ করে রংপুর-৩ আসনের উপ-নির্বাচনে প্রার্থী মনোনয়ন নিয়ে তৃণমূলের নেতাকর্মীরা ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন।

পার্টিতে জি এম কাদেরপন্থীরা বলছেন, প্রেসিডিয়াম ও এমপিদের যৌথসভা করে সিদ্ধান্ত হলো ব্যারিস্টার আনিস ও ফখরুলকে অব্যাহতি দেয়ার। এ বিষয়ে আমাদের সাথে কোনোরূপ আলোচনা না করেই এ সিদ্ধান্ত স্থগিত করা হলো। পার্টির এ সিদ্ধান্তে সে বৈঠকে উপস্থিত সিনিয়র ৩৪ জন নেতাকে অপমান করা হয়েছে।

এ ছাড়া যে ব্যক্তি পার্টি অফিসে মনোনয়নপত্রই জমা দেননি এমনকি আমাদের মনোনয়ন বোর্ডে সাক্ষাৎকার দেননি তাকেই মনোনয়ন দেয়া হলো। এতে করে বৃহত্তর রংপুরের তৃণমূলের আস্থা হারিয়েছেন জি এম কাদের।

রংপুর মহানগর জাপার সাধারণ সম্পাদক এস এম ইয়াসির বলেন, জি এম কাদের যদি নিজের অবস্থান শক্ত করতে না পারেন, অবস্থান পরিষ্কার করতে না পারেন তাহলে দল শক্তিশালী করা তার পক্ষে কঠিন হবে। আমাকে মনোনয়ন বোর্ড সিলেক্ট করে পরে আবার সাদকে মনোনয়ন দেয়া হলো। রংপুরের তৃণমূল নেতাকর্মীরা আমাকে সমর্থন করেছেন। মনোনয়ন পরিবর্তন করে শুধু আমাকেই নয় রংপুরবাসীকেও অপমান করা হয়েছে।

জি এম কাদেরপন্থী পার্টির এক সিনিয়র প্রেসিডিয়াম সদস্য বলেন, আমরা শুনেছি আওয়ামী লীগ রংপুর-৩ আসনে তাদের প্রার্থিতা প্রত্যাহার করবে। সে ক্ষেত্রে রংপুরে সাদকে বিজয়ী করার জন্য কাজ করবে। সাদ বিজয়ী হওয়ার পর আগামী ৩০ নভেম্বর অনুষ্ঠিতব্য জাপার কাউন্সিলে সাদ যদি পার্টির চেয়ারম্যান প্রার্থী হন তাতেও অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না। আমরা যারা জি এম কাদেরের পক্ষে অবস্থান নিয়েছিলাম তাদের বেশির ভাগই তিনি আর কাছে পাবেন না। আমরা মনে করি জি এম কাদের আপস করেছেন। পার্টির অনেক সিনিয়র নেতাসহ তৃণমূলের অসংখ্য নেতাকর্মী পার্টির কর্মকাণ্ড থেকে নিষ্ক্রিয় হয়ে যাবেন।

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –
এই বিভাগের আরো খবর