ব্রেকিং:
কুড়িগ্রামে জেএমবি কর্তৃক ধর্মান্তরিত মুক্তিযোদ্ধা হোসেন আলী হত্যা মামলার সাক্ষ্য গ্রহন অনুষ্ঠিত দিনাজপুরে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনায় বেকারী মালিক সমিতির নির্বাচন সম্পন্ন সৈয়দপুরে তিন দিনব্যাপী জাতীয় লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং পণ্য ও প্রযুক্তি মেলার শুরু সৈয়দপুর বিমানবন্দরে জোরপূর্বক প্রবেশের চেষ্টাকালে তিন যুবক গ্রেফতার সালমান শাহ পারিবারিক কলহে আত্মহত্যা করেছেন : পিবিআই

মঙ্গলবার   ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০   ফাল্গুন ১৩ ১৪২৬   ০১ রজব ১৪৪১

সর্বশেষ:
পিলখানা বিদ্রোহ আর হত্যাযজ্ঞের ১১ বছর আজ ডিজিএফআইয়ের নতুন ডিজি মেজর জেনারেল সাইফুল আলম লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলায় সালাম না দেয়ায় সরকারি এক কর্মকর্তাকে পিটিয়ে আহত করেছেন সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান বিশ্বজয়ী আকবর আলী ও জাতীয় টেবিল টেনিস চ্যাম্পিয়ন হৃদয়কে সম্মানী ভাতা দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন রসিক মেয়র সীমান্তে চোরাচালান রোধে বিজিবিকে সজাগ থাকার আহ্বান রাষ্ট্রপতির
৭৬

রমেকে বিড়ালের উপদ্রবে অতিষ্ঠ রোগীরা!

নীলফামারি বার্তা

প্রকাশিত: ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন এক রোগীর স্বজন নাজমুল ইসলাম বলেন, 'মানুষ হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হতে আসেন। কিন্তু এই হাসপাতালে বিড়ালের উৎপাতে রোগীরা আরও অসুস্থ হয়ে যাচ্ছেন। এ বিষয়ে হাসপাতালের কর্মচারী, নার্স ও আয়াদের বেশ উদাসীন মনে হয়েছে।'

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ছয়তলা বিশিষ্ট রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৪০টি বিভাগ রয়েছে। প্রতি বিভাগে গড়ে ২-৫টি করে বিড়ালের দেখা মেলে। এসব বিড়াল দীর্ঘদিন ধরে হাসপাতালে থাকছে। তবে বিড়ালের উপদ্রব কমানোর জন্য কোনো উদ্যোগ ও কার্যকরী পদক্ষেপ নেই। ফলে বিড়ালের সংখ্যা ধারাবাহিকভাবে বাড়ছে। এতে রোগীদের অস্বস্তির পাশাপাশি হাসপাতালের পরিবেশও নষ্ট হচ্ছে।

হাসপাতালের দ্বিতীয় তলার হৃদরোগ বিভাগের পুরুষ ওয়ার্ডে দায়িত্বরত শহিদুল ইসলাম বলেন, 'বিড়াল শুধু রোগীদের যন্ত্রণা বাড়ায়নি, আমাদেরও অশান্তিতে রেখেছে। প্রতিদিন মলমূত্র ত্যাগ করায় গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র নষ্ট হচ্ছে। তবে আমরা বিড়ালের উপদ্রব কমানোর চেষ্টা করছি।'

এ বিষয়ে জানতে রমেক হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক সুলতান আহামেদের কার্যালয়ে গিয়ে তাকে পাওয়া যায়নি।

উল্লেখ্য, রংপুর বিভাগের আট জেলার প্রায় দুই কোটি মানুষের চিকিৎসার নির্ভরযোগ্য প্রতিষ্ঠান এই রমেক হাসপাতাল। প্রতিবছর গড়ে চার লাখের বেশি মানুষ এই হাসপাতালে চিকিৎসা নেন। আর প্রতিদিন গড়ে প্রতি বিভাগে রোগী ভর্তি থাকেন প্রায় এক হাজার। দিনে দুই থেকে তিন শতাধিক রোগী জরুরি সেবা গ্রহণ করেন। ১৯৬৮ সালে হাসপাতালটি প্রতিষ্ঠিত হয়।