• বুধবার   ২১ অক্টোবর ২০২০ ||

  • কার্তিক ৫ ১৪২৭

  • || ০৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

সর্বশেষ:
প্রাথমিকে সাড়ে ৩২ হাজার শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ বিএনপির এমপি সিরাজের ৫ রেস্তোরাঁয় ভ্যাট ফাঁকির মামলা সুষ্ঠুভাবে চলছে লালমনিরহাট ইউপি উপ-নির্বাচনের ভোট গ্রহণ উপনির্বাচন নিয়ে অন্ধকারে ঢিল ছুড়ছে বিএনপি: ওবায়দুল কাদের উৎসবের আমেজে রংপুরে চলছে ইউপি নির্বাচনের ভোটগ্রহণ

লালমনিরহাটে সেনাবাহিনীর ত্রাণ পেল বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ১৫০ পরিবার

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০  

লালমনিরহাট সদর উপজেলার কালমাটি এলাকায় তিস্তা পাড়ের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ১৫০ পরিবারের মাঝে সেনাবাহিনীর ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ ও পানি বিশুদ্ধকরণ অস্থায়ী ‘ওয়াটার প্লান্ট’ স্থাপন কাজের উদ্বোধন করেন সেনাবাহিনীর রংপুর ৬৬ পদাতিক ডিভিশনের ৭২ ব্রিগেডের কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল অং চ ছা মং।

রবিবার সকাল সাড়ে ১০টায় সদর উপজেলার কালমাটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল অং চ ছা মং -এ ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেন। এরপর তিনি কালমাটি জামে মসজিদ সংলগ্ন এলাকায় খুনিয়াগাছ ইউনিয়নের কালমাটি, পাকারমাথা ও চওড়াটারী গ্রামের বন্যা কবলিত মানুষের বিশুদ্ধ পানির জন্য সেনাবাহিনীর অস্থায়ী ওয়াটার প্লান্ট স্থাপনের মাধ্যমে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন।

এ সময় রংপুর ৬৬ পদাতিক ডিভিশনের ৭২ ব্রিগেডের ৩৪ ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্ট ব্যাটালিয়নের পরিচালক লেঃ কর্ণেল হাফিজুর রহমান, ক্যাপ্টেন আব্দুল মালেক ও কোম্পানী কমান্ডার সিনিয়র ওয়ারেন্ট অফিসার মোঃ ওয়াজেদ আলী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

ক্যাপ্টেন আব্দুল মালেক জানান, চাল, ডাল, তেল, আটা, লবণ, সুজি ও বিস্কুট সহ এই সাত প্রকার পণ্যের সাড়ে ১১ কেজি ওজনের একটি করে প্যাকেট প্রত্যেক বানভাসী মানুষের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে। 

লালমনিরহাট সদর উপজেলার খুনিয়াগাছ ইউনিয়নের তিস্তা নদী বিধৌত ১ ও ২নং ওয়ার্ডের বসবাসরত বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ১৫০ পরিবারের মাঝে সেনাবাহিনীর এসব ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করা হয়। এ অঞ্চলে বিশুদ্ধ পানির তীব্র সংকটের কারণে সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে পানি বিশুদ্ধকরণ ‘ওয়াটার প্লান্ট’ স্থাপনের মাধ্যমে বিশুদ্ধ পানি উৎপাদন করে সাধারণ মানুষের মাঝে বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়।

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল অং চ ছা মং সাংবাদিকদের বলেন, ‘স্থানীয় মানুষের প্রয়োজনে এবং সিভিল প্রশাসনের চাহিদা অনুযায়ী যতদিন দরকার ততোদিন আমরা বিশুদ্ধ পানি ওয়াটার প্লান্টের মাধ্যমে সরবারহ কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। এ কার্যক্রম আমাদের একটি অস্থায়ী ক্যাম্পের মাধ্যমে পরিচালনা হচ্ছে।