সোমবার   ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯   পৌষ ১ ১৪২৬   ১৮ রবিউস সানি ১৪৪১

৭১

শহীদ নূর হোসেনকে নিয়ে রাঙ্গার মন্তব‌্যে রংপুরে বিক্ষোভ মিছিল

প্রকাশিত: ১১ নভেম্বর ২০১৯  

শহীদ নূর হোসেনকে নিয়ে জাতীয় পার্টির মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গার আপত্তিকর মন্তব্যে প্রতিবাদে ফুসে উঠেছে রংপুরের যুবলীগ।

সোমবার দুপুরে রংপুর মহানগর যুবলীগ নগরীতে একটি বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে। তারা ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে রাঙ্গার অরুচিকর বক্তব্য প্রত্যাহার ও নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনার দাবি জানান।

সমাবেশে বক্তব্য রাখেন মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তুষার কান্তি মন্ডল, মহানগর যুবলীগের সভাপতি এবিএম সিরাজুম মনির বাসার, সাধারণ সম্পাদক মুরাদ হোসেন প্রমুখ।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, ‘১০ নভেম্বর শহীদ নূর হোসেন দিবস ছিল। ১৯৮৭ সালের ১০ নভেম্বর স্বৈরাচার এরশাদ সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন করতে গিয়ে গণতন্ত্রমুক্তি পাক স্বৈারাচার নিপাত যাক এ শ্লোগান যুবলীগ নেতা নূর হোসেনের বুকে পিঠে লেখা ছিল। এরশাদ সরকারের পুলিশ বাহিনী গুলি করে তাকে হত্যা করে। এরপর থেকে নূর হোসেন দিবস পালিত হয়ে আসছে। নূর হোসেনকে নিয়ে রাঙ্গার বক্তব্য কোনোভাবেই মেনে নেয়া যায় না। ’

মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তুষারকান্তি মন্ডল বলেন, ‘১০ নভেম্বর জাতীয় পার্টির মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গা যে বক্তব্য রেখেছেন, তা সম্পূর্ণ অরাজনৈতিক। তিনি বলেছেন- নূর হোসেন ইয়াবা, ফেনসিডিল, গাঁজা ইত্যাদি সেবন করত। সে ভাল লোক ছিল না। তিনি আরো বলেছেন- বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান গণতন্ত্রের কফিনে পেরেক মেরেছেন, শেখ হাসিনার মুখে গণতন্ত্রের ভাষা শোভা পায় না। এসব বক্তব্য অরাজনৈতিক ও শিষ্টাচার বহির্ভূত। ’

তুষার কান্তি মন্ডল আরো বলেন, ‘৪৮ ঘণ্টার মধ্যে জাতীয় পার্টির মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গা অরুচিকর বক্তব্য প্রত্যাহার না করলে যুবলীগসহ আওয়ামী লীগ পরিবারের সদস্যরা রাজপথে আন্দোলন সংগ্রামের মধ্যদিয়ে তার অরুচিকর ও বিভ্রান্ত মূলক বক্তব্য প্রত্যাহার করতে বাধ্য করা হবে। ’

তিনি আরো বলেন ‘১৯৯৬ সালে জাতীয় সংসদে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসাইন মোহাম্মদ এরশাদ বলেন নূর হোসেনকে হত্যার জন্য জাতীয় সংসদে ক্ষমা চেয়েছিলেন।’

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –
এই বিভাগের আরো খবর