ব্রেকিং:
বর্ণবিদ্বেষী ছবির পর, বর্ণবিদ্বেষী ভিডিও প্রকাশ পেল কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর- তিনি লজ্জিত এবং বিব্রত, জানালেন কানাডিয়ান প্রধানমন্ত্রী। ঝটিকা সফরে সৌদি আরবে পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তেল স্থাপনায় হামলার নিন্দা। সবসময় রিয়াদ এর পাশে থাকার আশ্বাস। মৌসুমী ঝড়ে বিপর্যস্ত যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস রাজ্যের তেরোটি কাউন্টি নিহত ২। ইরানে হামলা চালালে সেটা সর্বাত্মক যুদ্ধের দিকে গড়াবে, হুঁশিয়ার করলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ। সৌদিতে স্থাপনায় হামলার জন্য ইরানের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ছাড়াও অনেক বিকল্প আছে, বললেন ট্রাম্প। আন্দোলনকারীদের যত্রতত্র আটক ও নির্যাতন চালাচ্ছে হংকং পুলিশ- জানাল অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল। ইসরাইল সাধারণ নির্বাচনে মহাজোট সরকার গঠিত হলে, প্রধানমন্ত্রীর পদ চান সাবেক সেনা কর্মকর্তা বেনি গ্যান্তস। প্রস্তাবে রাজি নন নেতানিয়াহু। সন্ত্রাসী অভিযানের লক্ষ্যে ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলে প্রবেশ করেছে একটি সন্দেহভাজন বিদেশি সন্ত্রাসী সংগঠন- জানাল ইন্টারপোল।

শুক্রবার   ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ৫ ১৪২৬   ২০ মুহররম ১৪৪১

সর্বশেষ:
আজ নিউ ইয়র্কের উদ্দেশ্যে ঢাকা ছাড়লেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিন বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন সূচক ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে। পাসপোর্ট অধিদপ্তরের নতুন মহাপরিচালকের দায়িত্ব নিলেন মেজর জেনারেল শাকিল আহমেদ। পারিবারিক কলহের জেরে কুড়িগ্রামের রৌমারীতে স্ত্রী ও ছেলেদের হাতে প্রবাসীর মৃত্যুর অভিযোগ আটক ৪। লালমনিরহাটের পাটগ্রামে ধর্ষণের শিকার সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রীর গর্ভপাতের ঘটনা। ছাত্রীর বাবার অভিযোগের ভিত্তিতে, অভিযুক্ত শাহিন আলম গ্রেফতার। গোপালগঞ্জে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসির পদত্যাগের দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ চলছে। আমরণ অনশন চলবে, জানালেন আন্দোলনকারীরা। নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে মা ও দুই শিশুকন্যাকে ছুরিকাঘাতে হত্যার ঘটনায় মামলা। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার বোন জামাই এর। ত্রিদেশীয় সিরিজ চট্টগ্রামে। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় মুখোমুখি হবে আফগানিস্তান জিম্বাবুয়ে। নোয়াখালীর সোনাইমুড়িতে অজ্ঞাত ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার। পাবনায় ট্রেনে কাটা পড়ে একজনের মৃত্যু। সাতক্ষীরায় পুলিশের বিশেষ অভিযানে আটক ২০। নবীগঞ্জ থানার ওসি উত্তম কুমার সহ দুই পুলিশকে কুপিয়ে জখমের মামলায় সাবেক ছাত্রলীগ নেতা হাবিবুর রহমান গ্রেপ্তার। ছিনতাই মামলায় রাজধানীর উত্তরার পূর্ব থানার এএসআই আলমগীরের দুই বছরের কারাদণ্ড।
১২৩

শীত মোকাবেলায় প্রস্তুতি চাই

ডেস্ক রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১০ ডিসেম্বর ২০১৮  

ঋতু পরিক্রমায় প্রকৃতিতে এখন শীতের আগমনী ধ্বনি। কবির ভাষায়- ‘শীতের হাওয়ায় লাগল কাঁপন আমলকীর ওই ডালে ডালে।’ ষড়ঋতুর এই দেশে একেকটি ঋতু একেক রূপ রঙ নিজে হাজির হয়। অভ্যস্ত মানুষজন প্রকৃতির এই পালাবদলের সঙ্গে নিজেকে মানিয়ে নেন খুব সহজেই।

ইতোমধ্যে গ্রামাঞ্চলে জেঁকে বসেছে শীত। শহরেও ক্রমেই তাপমাত্রা কমে শীতের অনুভূতি জোরালো হচ্ছে। এরমধ্যেই সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে নেমে গেছে। গতকাল রোববার সকালে আবহাওয়া অধিদফতরের রেকর্ড অনুযায়ী, দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় ৯ দশমিক ৬ ডিগি সেলসিয়াম। এ ছাড়া শ্রীমঙ্গলে ৯ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে। এ সময়ে ঢাকায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৬ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

 তীব্র শীতে দরিদ্র ও অসহায় মানুষ যাতে কষ্ট না পায় সেজন্য গরম কাপড় সরবরাহ করাসহ প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে হবে। শুধু সরকার নয় সমাজের বিত্তবানরা এ জন্য এগিয়ে আসতে পারেন। কবি সুকান্ত যেমন করে সূর্যের কাছে উত্তাপ চেয়েছিলেন ‘রাস্তার ধারের উলঙ্গ ছেলেটির জন্য’ তেমনিভাবে আমাদের মধ্যে এই শীতে মানবিকতার উন্মেষ ঘটাতে হবে। আর তখনই শীত কষ্টের ঋতু না হয়ে উৎসবের ঋতু হয়ে উঠবে। 

শীত এলে অনিবার্যভাবেই প্রকৃতিতে ঘটে কিছু পরিবর্তন। হেমন্তের ফসল কাটা শেষ হয়। নবান্নের সঙ্গে পিঠাপায়েসের আয়োজন চলে গ্রামাঞ্চলে। এই নগরেও এখন মৌসুমী পিঠা বিক্রেতারা তাদের পসরা সাজিয়ে বসেছে। শীত একদিকে যেমন উৎসবের আমেজ নিয়ে আসে। অন্যদিকে তীব্র শীত জীবনযাত্রা বিপন্ন করে তোলে মানুষজনের। বিশেষ করে দরিদ্ররা শীতের কাপড়ের অভাবে কষ্ট পায়। এই সময় শীতজনিত নানা রোগব্যাধিও দেখা দেয়। এজন্য শীতের জন্য আলাদা একটি প্রস্তুতি রাখা প্রয়োজন।

শীত মৌসুমে শিশুদের ঠাণ্ডাজনিত নানা রকম রোগের প্রকোপ বেড়ে যায়। ডায়রিয়া, জ্বর, হাঁচি, কাশি, শ্বাসকষ্টসহ ঠাণ্ডাজনিত রোগব্যাধিতে আক্রান্ত হয় শিশুরা। উত্তরাঞ্চলসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ইতোমধ্যেই জেঁকে বসেছে শীত। কুয়াশায় ঢেকে যাচ্ছে চারদিক। কুয়াশার কারণে দৃষ্টিসীমা কমে আসে। দূরপাল্লার গাড়ি চলাচলও বিঘ্নিত হয়। এ জন্য সতর্কবার্তা জারি করা উচিত। এ সময় শৈত্যপ্রবাহেরও আশঙ্কা থাকে।

প্রকৃতির অমোঘ নিয়মে ঋতুর পরিবর্তন হবে। এটাই স্বাভাবিক। এ জন্য প্রতিটি ঋতুই যেন উপভোগ করা যায় সে ব্যাপারে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি থাকা অত্যন্ত জরুরি। শীতজনিত রোগব্যাধি থেকে মানুষজনকে রক্ষার করার জন্য স্বাস্থ্য বিভাগকে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি রাখতে হবে। তীব্র শীতে দরিদ্র ও অসহায় মানুষ যাতে কষ্ট না পায় সেজন্য গরম কাপড় সরবরাহ করাসহ প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে হবে। শুধু সরকার নয় সমাজের বিত্তবানরা এ জন্য এগিয়ে আসতে পারেন। কবি সুকান্ত যেমন করে সূর্যের কাছে উত্তাপ চেয়েছিলেন ‘রাস্তার ধারের উলঙ্গ ছেলেটির জন্য’ তেমনিভাবে আমাদের মধ্যে এই শীতে মানবিকতার উন্মেষ ঘটাতে হবে। আর তখনই শীত কষ্টের ঋতু না হয়ে উৎসবের ঋতু হয়ে উঠবে।

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –