ব্রেকিং:
শহীদদের নামে রংপুরের সড়কগুলোর নামকরণের দাবি উত্তরের ফসলি জমি গিলে খাচ্ছে তামাক আজ ২০ ফেব্রুয়ারি ‘বিশ্ব সামাজিক ন্যায়বিচার দিবস’ মহান শহীদ দিবস উপলক্ষে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার এলাকাকে পাঁচটি সেক্টরে বিভক্ত করে তিন ধাপের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়েছে র‌্যাব নারী বিশ্বকাপ ওয়ার্ম-আপ ম্যাচ: পাকিস্তানকে ৫ রানে হারালো বাংলাদেশ

শুক্রবার   ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০   ফাল্গুন ৮ ১৪২৬   ২৬ জমাদিউস সানি ১৪৪১

সর্বশেষ:
আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে শুক্রবার অমর একুশে গ্রন্থমেলার দ্বার খুলবে সকাল ৮টায় সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির নির্বাচন ১১ ও ১২ মার্চ দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে দুই ডাকাত নিহত লালমনিরহটের হাতীবান্ধা উপজেলায় ষাটোর্ধ্ব এক বৃদ্ধা মাকে মারধর করে ঘর থেকে বের করে দিয়েছেন ছেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অমর একুশে ফেব্রুয়ারি ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের প্রাক্কালে ২০ ব্যক্তি এবং এক প্রতিষ্ঠানের মাঝে ‘একুশে পদক-২০২০’ প্রদান করেছে
৩৮

সম্পর্কের গভীরতা জানান দিতেই আসে ভালোবাসা দিবস

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

১৪ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ভালোবাসা দিবস। আর এই দিনটিকে ভ্যালেন্টাইন্স ডে হিসেবে উদযাপন করা হয়। বিশ্বব্যাপী সমোচ্চারিত হচ্ছে ভালোবাসার অমীয় বাণী। এমন সৌহার্দ্য-সম্প্রীতি সচরাচর এই ক্রোধ-সংঘাতের পৃথিবীতে দেখা যায় না। অস্ত্র, হানাহানি, দ্বন্দ্ব, সংঘাত ছেড়ে পৃথিবী আজ যোগ দিয়েছে লাল গোলাপের গালিচায়। প্রতিদিনের মত এই দিনটি হলেও ভালোবাসা দিবসে পরিবার-প্রিয়জনদের উপহার, ঘুরতে যাওয়া সর্বোপরি তাদের সাথে ভালো সময় কাটানোর বার্তা দেয় এই দিনটি। প্রিয়জনদের পাশে রাখা এবং সম্পর্কের গভীরতা জানান দিতেই যেন বছর ঘুরে আসে ভালোবাসা দিবস।

ভালোবাসা হলো একটি মায়া। ভালোবাসার মায়া আছে বলেই আজও পৃথিবী টিকে আছে। টিকে আছে সম্পর্কের অটুট বন্ধনগুলো। যদি ভালোবাসা না থাকতো তাহলে হয়তো পৃথিবী বসবাসের যোগ্য হয়ে উঠত না, থাকতো সভ্যতার সেই আদিম কালে। বৃদ্ধি পেত বহুগুণে হানাহানি, সহিংসতা ও বিশৃঙ্খলা। তবে বাংলা একাডেমির সিদ্ধান্তে এবার  ভালোবাসা দিবসের সাথে যোগ হয়েছে বসন্ত। আবার শুক্রবার ছুটির দিন হওয়ায় ভালোবাসা দিবস এবং বসন্ত পেয়েছে নতুন মাত্রা। 

ইতিহাসবিদদের মতে, দুটি প্রাচীন রোমান প্রথা থেকে এ উৎসবের সূত্রপাত। এক খ্রিস্টান পাদ্রি ও চিকিৎসক ফাদার সেন্ট ভ্যালেনটাইনের নামানুসারে দিনটির নাম ‘ভ্যালেনটাইনস ডে’ করা হয়। ২৭০ খ্রিস্টাব্দের ১৪ ফেব্রুয়ারি খ্রিস্টানবিরোধী রোমান সম্রাট গথিকাস আহত সেনাদের চিকিৎসার অপরাধে সেইন্ট ভ্যালেনটাইনকে মৃত্যুদণ্ড দেন। মৃত্যুর আগে ফাদার ভ্যালেনটাইন তার আদরের একমাত্র মেয়েকে একটি ছোট্ট চিঠি লেখেন, যেখানে তিনি নাম সই করেছিলেন ‘ফ্রম ইউর ভ্যালেনটাইন’। সেন্ট ভ্যালেনটাইনের মেয়ে এবং তার প্রেমিক মিলে পরের বছর থেকে বাবার মৃত্যুর দিনটিকে ভ্যালেনটাইনস ডে হিসেবে পালন করা শুরু করেন। যুদ্ধে আহত মানুষকে সেবার অপরাধে মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত সেন্ট ভ্যালেনটাইনকে ভালোবেসে দিনটি বিশেষভাবে পালন করার রীতি ক্রমে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। তবে ভিন্ন মত অনুযায়ী সেইন্ট ভ্যালেনটাইন একজনকে ভালোবেসেছিলেন। চিঠিটি লিখেছিলেন তার কাছেই।

কিভাবে, কেমনে ভালোবাসা দিবস এসেছে সেটা নিয়ে এই দিনে আমরা তর্ক-বিতর্কে না জড়িয়ে, প্রত্যাশা করি তর্কের উর্দ্ধে সবার জীবনে নেমে আসুক ভালোবাসার অমীয় আশীর্বাদ। চিরকাল অটুট থাকুক ভালোবাসার বন্ধন।