ব্রেকিং:
মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় গাইবান্ধার পাঁচ রাজাকারকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল

মঙ্গলবার   ১৫ অক্টোবর ২০১৯   আশ্বিন ৩০ ১৪২৬   ১৫ সফর ১৪৪১

সর্বশেষ:
সরকারি সফরে আজ কাতার যাচ্ছেন সেনাবাহিনী প্রধান ব্যবসায়ীরা ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ হওয়ার বিষয়টিকে পুঁজি করে দামে কারসাজি করছেন বলে অভিযোগ করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুন্সী সুন্দরবনে র‍্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে আমিনুর বাহিনীর প্রধান আমিনুরসহ চারজন নিহত হয়েছে ইউক্রেনের বিপক্ষে রোনালদোর পর্তুগালের হার কাতার বিশ্বকাপ ও এশিয়ান কাপ ফুটবল বাছাইয়ের ‘ই’ গ্রুপের তৃতীয় ম্যাচে আজ ভারতের মুখোমুখি হচ্ছে বাংলাদেশ।
১০

সাংবাদিক জিনিয়াকে হেনস্থার প্রতিবাদে হাবিপ্রবিসাসের মানববন্ধন

প্রকাশিত: ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

বাংলাদেশ ক্যাম্পাস জার্নালিস্ট ফেডারেশন এর ডাকে সারাদেশের ন্যায় গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) শিক্ষার্থী ও ডেইলি সান এর ক্যাম্পাস প্রতিবেদক ফাতেমা-তুজ-জিনিয়াকে সাময়িক বহিষ্কার ও হয়রানির ঘটনায় জড়িতদের শাস্তি ও ক্যাম্পাসে স্বাধীন সাংবাদিকতার পরিবেশ নিশ্চিত করণের দাবিতে মানববন্ধন করেছে দিনাজপুরের হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি(হাবিপ্রবিসাস)  । 

বৃহস্পতিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) দুপুর দেড়টার দিকে হাবিপ্রবি সাংবাদিক সমিতির আয়োজনে দিনাজপুর প্রেস ক্লাবের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির সভাপতি মো.আব্দুল মান্নান,সাধারণ সম্পাদক মো.আব্দুর রব , সাংগঠনিক সম্পাদক মশিউর রহমান মোমিন ও মিরাজুল মিশকাত সহ সমিতির অন্যান্য সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। 

মানববন্ধনে হাবিপ্রবি সাংবাদিক সমিতির সভাপতি আব্দুল মান্নান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো একটি জায়গার উচ্চ পদে থেকে একজন উপাচার্য কিভাবে একজন শিক্ষার্থীকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাজ কি তোর আব্বাকে জিজ্ঞেস করিস এমন কুরুচিপুর্ন ভাষায়  কথা বলতে পারেন তা আমার জানা নেই । এবং কোন কারণ ছাড়াই একজন শিক্ষার্থীকে সাময়িকভাবে বহিষ্কার করতে পারেন সে আইনও জানা নেই । ফাতেমা-তুজ-জিনিয়া শুধু একজন শিক্ষার্থীই নন তিনি একজন দৈনিক পত্রিকার ক্যাম্পাস প্রতিনিধিও । তার সাথে এ ধরণের আচরণ মূলত সাংবাদিককে দমন ও সত্য কথা বলার স্বাধীনতাকে রোধ করার অপচেষ্টা ।  

তিনি আরও বলেন , সাংবাদিকদের সাথে এধরনের ব্যবহার স্বাধীনতা বিরোধী কার্যকলাপের শামিল। স্বাধীন দেশে প্রতিটি নাগরিকের স্বাধীনভাবে মত প্রকাশের অধিকার আছে । কিন্তু  বঙ্গবন্ধু বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মহোদয় ক্ষমতার অপব্যবহার করে যেভাবে সাংবাদিককে হুমকি –ধমকি প্রদান করেছেন তা কখনোই মেনে নেয়া যায় না । এর জন্য ওনাকে জাতির কাছে নিঃশর্ত ক্ষমা চাইতে হবে ।

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –
এই বিভাগের আরো খবর