ব্রেকিং:
লক্ষ্মীপুর ও বগুড়াতে নতুন দুইটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে নির্বাচিত হলে নব্বই দিনের মধ্যেই সব নাগরিক সুবিধা দোরগোড়ায় পৌঁছে দেয়ার প্রতিশ্রুতি তাপসের আইএসও সনদ পেল ১১ প্রতিষ্ঠান

মঙ্গলবার   ২৮ জানুয়ারি ২০২০   মাঘ ১৪ ১৪২৬   ০২ জমাদিউস সানি ১৪৪১

সর্বশেষ:
সময়ানুযায়ী উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য প্রকল্প পরিচালকদের কড়া নির্দেশ দিয়েছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী ইরানি জনগণের কাছে ক্ষমা চেয়ে খোলা চিঠি পাঠিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের একটি শান্তিবাদী সংগঠন আওয়ামী লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর সভা অনুষ্ঠিত হবে মঙ্গলবার
২৯

সৈয়দপুরে অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচির কাজের উদ্বোধন

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ২৩ নভেম্বর ২০১৯  

নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলায় ২০১৯-২০২০ অর্থবছরে অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচির প্রথম পর্যায়ের কাজ শুরু হয়েছে।

শনিবার(২৩ নভেম্বর) সকালে উপজেলার বাঙ্গালীপুর ইউনিয়নের তিন নম্বর ওয়ার্ডের শেখ পাড়ায় ওই কাজের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) এস. এম. গোলাম কিবরিয়া। এ সময় সৈয়দপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকতা মো. আবু হাসনাত সরকার, পিআইও কার্যালয়ের উপসহকারী প্রকৌশলী শ্রী নিমাই চন্দ্র রায়, বাঙ্গালীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শ্রী প্রণোবেশ চন্দ্র বাগচী, সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের চার নম্বর ওয়ার্ড সদস্য মো. রফিকুল ইসলামসহ অন্যান্য সদস্যবৃন্দ, সাংবাদিক, এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও সুবিধাভোগী নারী-পুরুষরা উপস্থিত ছিলেন।

সৈয়দপুর উপজেলা  প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, শনিবার থেকে উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়নে ২০১৯-২০২০ইং অর্থবছরে অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচির আওতায় ৪০ দিনের মাটি কাটার কাজ শুরু হয়েছে। এ কর্মসূচির আওতায় উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়নে সুবিধাভোগীর সংখ্যা হচ্ছে এক হাজার নয় জন। এদের মধ্যে ৫৪১ জন নারী এবং ৪৬৮জন পুরুষ সুবিধাভোগী রয়েছেন। উপজেলার ইউনিয়নওয়ারি সুবিধাভোগী মধ্যে রয়েছেন কামারপুকুর ইউনিয়নে ১৮২জন, কাশিরাম বেলপুকুরে ২৩২জন, বাঙ্গালীপুরে ১৪৭জন, বোতলাগাড়ীতে ২৬৪জন এবং খাতামধুপুর ইউনিয়নে ১৮৪জন।

নারী-পুরুষ সুবিধাভোগী  সংশ্লিষ্ট  ইউনিয়নে বিভিন্ন এলাকায় সপ্তাহের প্রতি শনিবার থেকে বুধবার পর্যন্ত মাটি কাটার কাজ করবেন। এর মাঝে সুবিধাভোগীরা দুপুরের খাবারের জন্য কিছু সময় বিরতি পাবেন। প্রতিজন সুবিধাভোগীকে সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত কাজে নিয়োজিত থাকতে হবে। তবে  শুক্রবার কাজ বন্ধ থাকবে। প্রত্যেকজন সুবিধাভোগী প্রতিদিনের কাজের জন্য ২০০ টাকা করে মজুরী পাবেন। তবে প্রতিদিনের ওই মজুরী থেকে প্রতিজনের ২৫ টাকা করে সঞ্চয় হিসেবে কেটে রাখা হবে। আর প্রতি সপ্তাহের বৃহস্পতিবার ১৭৫ টাকা হারে পাঁচদিনের করে মজুরী একসাথে পরিশোধ করা হবে সুবিধাভোগীদের। তবে সুবিধাভোগী কেটে রাখা সঞ্চয়ের টাকা কর্মসূচি সমাপ্ত হওয়ার পর একসঙ্গে প্রদান করা হবে।

প্রতিটি ইউনিয়নে ব্যাংক এশিয়ার স্থানীয় এজেন্টের বুথের মাধ্যমে পাইলট প্রজেক্ট হিসেবে গভর্মেন্ট টু পাবলিক (জি ২ পি) ডিজিটাল পেমেন্টে সুবিধাভোগীদের মজুরী প্রদান করা হবে। 

এই বিভাগের আরো খবর