• বৃহস্পতিবার   ১৩ আগস্ট ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ২৯ ১৪২৭

  • || ২৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

সর্বশেষ:
বন্যা কবলিত উত্তরাঞ্চলে কৃষকদের বিনামূল্যে সবজি বীজ দেবে সরকার বাংলাদেশকে সাতটি বড় প্রকল্পে ৩১১ কোটি ডলার ঋণ দেবে জাপান দেশের বৃহত্তম অর্থনৈতিক অঞ্চল ‘বঙ্গবন্ধু শিল্প নগর’ উন্নয়নে ৫০ কোটি ডলার ঋণ দেবে বিশ্বব্যাংক শিগগিরই বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে যাচ্ছে সরকার: স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম সৈয়দপুরে সমাজসেবা দপ্তরের উদ্যোগে ২৩ পরিবারকে আর্থিক সহায়তা
১২৮

সৈয়দপুরে প্রাণ নাশের হুমকির অভিযোগে মা ও মেয়ের সংবাদ সম্মেলন

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ৯ ডিসেম্বর ২০১৯  

প্রাণ নাশের হুমকি অভিযোগে নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলা শহরের নয়াটোলা মহল্লার নিজ বাসভবনে সংবাদ সম্মেলন করেছে বিধবা মোছাঃ মাহমুদা আলম তৃপ্তি(৪৮) ও তার মেয়ে রিয়া(১৩)। আজ সোমবার(৯ ডিসেম্বর) দুপুরে তারা অভিযোগ করে জানায় তাদের জমি অবৈধভাবে দখলের চেষ্টা করছে এলাকার ঠিকাদার মোঃ নজরুল ইসলাম লিটন। বাধা দেয়ায় তাদের প্রাণ নাশের হুমকি দিয়েছে।

রিয়া জানায়, আমার বাবা মনজের আলম রোগভোগে চলতি বছরের ২০ ফেব্রুয়ারী মারা যাবার আগে হেবা দলিল মুলে আমার নামে জসিম বাজার এলাকায় ২০ শতক জমি দিয়ে যায়। উক্ত বিধবা জানায়, সন্তানের বর্তমানে একমাত্র অভিভাবক হিসেবে আমি বাদি হয়ে আদালতে মামলা করেছি ওই জমির রক্ষার জন্য। অথচ নজরুল ইসলাম লিটন বার বার ওই জমিটি দখলের অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে এবং প্রাণ নাশের হুমকী দিচ্ছে। এমন কি থানায় আমাদের নামে মিথ্যে জিডি দিয়ে হয়রানী করে চলেছে। জমিটিতে লাগানো প্রায় ১ হাজার বিভিন্ন গাছ কেটে ফেলেছেন। এমনকি এলাকার বখাটেদের লেলিয়ে দিয়ে আমার ও সন্তানদের নানাভাবে হুমকি প্রদর্শন করে চলেছেন। তারা প্রায়ই আমার বাড়ির সামনে এসে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করাসহ মেয়ে স্কুলে যাওয়ার সময় উত্যক্ত করছে। এমনিতে আমি ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন। প্রায় সময়ই আমাকে ক্যামো থ্যারাপি দিতে হয়। এই পরিস্থিতিতে তাদের উপদ্রব ও হয়রানির ফলে মানসিক ও শারীরিকভাবে ভেঙ্গে পড়েছি। প্রায়ই আতংকে দিনাতিপাত করতে হচ্ছে। জীবনের নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। যে কোন সময় নজরুল ইসলাম লিটনের বাহিনী অনাকাঙ্কিত কোন ঘটনা ঘটাতে পারে। এতে আমার ও আমার সন্তানদের জীবনে ভয়াবহ দূর্ভোগের সৃষ্টি হতে পারে।

মা ও মেয়ে এ বিষয়ে প্রশাসনে সহায়তা প্রত্যাশা করেন। 

নীলফামারী বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর