ব্রেকিং:
করোনাভাইরাস মোকাবিলায় এপ্রিল মাসে স্থলবন্দর দিয়ে কাউকে ঢুকতে দেয়া হবে না: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডাক্তার অনুপস্থিতির দুর্দিন এলে প্রয়োজনে বিদেশ থেকে আনা হবে:প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত খুনি আব্দুল মাজেদকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে আদালত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনকে হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি করা হয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্বপরিবারে হত্যার দায়ে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামি আবদুল মাজেদ গ্রেফতার
  • মঙ্গলবার   ০৭ এপ্রিল ২০২০ ||

  • চৈত্র ২৪ ১৪২৬

  • || ১৩ শা'বান ১৪৪১

সর্বশেষ:
করোনার পরীক্ষামূলক ওষুধ তৈরিতে আশার আলো দেখাচ্ছে বাংলাদেশ! বিশ্বব্যাপী মহামারির মধ্যেই আজ বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস করোনা পরিস্থিতি দেখে ভয় পেলে ভয় পেলে চলবে না, সতর্ক থাকতে হবে:প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টেলিভিশনে প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের পাঠদান শুরু আজ জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন
৫৮৩

হরতাল ডেকে রাস্তায় নয়, ফুটপাতে বিএনপি নেতারা

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ২ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

২০১৭ সালের ১৩ ডিসেম্বর দ্রব্যমূল্যের বৃদ্ধির প্রতিবাদে সর্বশেষ হরতালের পর গতকাল ঢাকার দুই সিটি নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগ এনে ফল প্রত্যাখ্যান করে বিএনপি। অনিয়মের অভিযোগে হরতালও ডাকে বিএনপি। কিন্তু হরতালেও রাস্তায় নামেননি বিএনপির নেতাকর্মীরা। সকালে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আসেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।  কার্যালয়ের সামনের ফুটপাতে নিরাপদ দূরত্বে সকাল থেকে চেয়ারে বসে থাকতে দেখা যায় দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীকে। এসময় তাদের সঙ্গে ছিলেন শতাধিক নেতাকর্মী। 

রবিবার বেলা সাড়ে ১০টার দিকে নয়াপল্টনে বিএনপি কার্যালয়ের সামনে এমন দৃশ্য দেখা গেছে। এর বাইরে হরতাল সফল করতে রাজপথে বিএনপির পক্ষে কোনও মিছিল বা পথসভা করতে দেখা যায়নি।

ফুটপাতে চেয়ারে আরও বসেছিলেন দলটির যুগ্ম মহাসচিব হাবিব উন নবী খান সোহেল, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সালাম,নির্বাহী কমিটির সদস্য নিপুণ রায় চৌধুরী ও মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহম।

ঢাকা সিটির নির্বাচন নিয়ে এই হরতাল ডাকা হলেও মাঠে দেখা যায়নি উত্তর সিটির মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়ালকে। সকাল সাড়ে ১১টার দিকে দলীয় কার্যালয়ের সামনে আসেন ইশরাক হোসেন। এছাড়া, সিটি নির্বাচনে বিএনপি সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থীদের কাউকেই হরতালের মাঠে দেখা যায়নি।

তবে হরতাল সফল করতে নয়াপল্টন কার্যালয়ের সামনে ফুটপাতে দাঁড়িয়ে সকাল থেকে বিরতিহীনভাবে বিভিন্ন স্লোগান দিয়ে যাচ্ছেন  বিএনপিসহ অঙ্গ সংগঠনের অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী। তারা কারাবন্দি দলীয় চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবির পাশাপাশি  হরতাল চলছে-চলবে, ভোট চোরের নির্বাচন, প্রহসনের নির্বাচন মানি না মানবো না,সহ বিভিন্ন স্লোগান দিচ্ছেন।

বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সালাম বলেন, ‘আপনারা দেখছেন পুলিশ কীভাবে  আমাদের বেস্টনি দিয়ে ঘিরে রেখেছে। তারপরও আমরা হরতালে সমর্থনে অবস্থান নিয়েছি।’

এদিকে, বিএনপির কার্যালয়ের সামনে দলের নেতাকর্মীদের তুলনায় বেশি পুলিশ রয়েছে। রাস্তার একপাশে লম্বা সারি করে পুলিশ সদস্যদের দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়।

এদিকে বিএনপি অফিসের সামনে দলটির নেতাকর্মীদের অবস্থান কর্মসূচি বন্ধের অনুরোধ করেছে পুলিশ। যদিও নেতাকর্মীরা পুলিশকে বলেছে যে, এখানে তাদের উপস্থিতি পূর্ব নির্ধারিত কোনও কর্মসূচি নয়। এরপর পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সবাইকে চলে যেতে বলেন।

মতিঝিল বিভাগের মতিঝিল জোনের সিনিয়র সহকারী কমিশনার (এসি) জাহিদুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, ‘যেহেতু তাদের কোনও সুনির্দিষ্ট কর্মসূচি নেই। তাই আমরা তাদেরকে আধাঘণ্টা সময় দিয়েছি চলে যাওয়ার জন্য। তারাও বলেছে, খুব দ্রুত চলে যাবেন।’

প্রসঙ্গত, শনিবার (১ ফেব্রুয়ারি) রাতে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ফল প্রত্যাখ্যান করে রবিবার ঢাকায় সকাল-সন্ধ্যা হরতাল ঘোষণা করেন। দেশবাসীকে এই হরতালে অংশ নেওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

রাজনীতি বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর