ব্রেকিং:
দেশে করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ২৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মারা গেলেন ১ হাজার ৯৯৭ জন। এছাড়া নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ হাজার ২৮৮ জন। মহামারি করোনাভইরাসের চিকিৎসায় শর্তসাপেক্ষে রেমডেসিভির ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। শুক্রবার এই অনুমোদনের বিষয়টি নিশ্চিত করেন ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) হেলথ কমিশনার স্টেলা কাইরিয়াকাইডস।
  • শনিবার   ০৪ জুলাই ২০২০ ||

  • আষাঢ় ২০ ১৪২৭

  • || ১৩ জ্বিলকদ ১৪৪১

সর্বশেষ:
করোনায় আমাদের নেতাকর্মীরা মানুষের পাশে আছে- শেখ হাসিনা কুড়িগ্রামে ধরলার পানি বাড়ছে: বাঁধে ভাঙন তিন মাস পর ফিরলেন মোশাররফ করিম মৃত্যুর পর মানুষের ৯ আকাঙ্খা ও আফসোস যে কারণে ভারতকে সতর্ক করলো চীন
১১৩৬

হাওর এলাকাকে উন্নয়নের ধারায় নিয়ে আসতে চান প্রধানমন্ত্রী

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ৩০ জুন ২০২০  

প্রধানমন্ত্রী হাওর এলাকাকে উন্নয়নের জাতীয় ধারায় নিয়ে আসতে চান। হাওর এলাকার মানুষের প্রতি তাঁর মমতা ও দরদ রয়েছে। হাওরবাসীকে এই বাতাস বুঝতে হবে, এই সুযোগ নিতে হবে। ভালো কাজের সুযোগ নেওয়া অন্যায় কিছু নয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হাওর এলাকার প্রতি অত্যন্ত সহৃদয় জানিয়ে এসব কথা বলেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।

‘মুজিব বর্ষ এবং ডিজিটাল বাংলাদেশের লক্ষ্য নাগরিক সেবা, উন্নয়ন’ শীর্ষক এক অনলাইন সেমিনারে অংশ নিয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন মন্ত্রী। সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসন এই সেমিনারের আয়োজন করে। গতকাল রোববার রাত ৮টা থেকে ১০টা পর্যন্ত এই সেমিনার চলে। এতে নিজ নিজ বাসা ও দপ্তর থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যম অংশ নেন সুনামগঞ্জ জেলার সব সাংসদ, জেলা ও উপজেলা প্রশাসন, পুলিশ বিভাগসহ সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং গণমাধ্যমকর্মীরা। সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আবদুল আহাদ।

সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এম এ মান্নান আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে পুরো দেশের উন্নয়নে সরকার কাজ করছে। সবখানেই পরিবর্তন ও উন্নয়নের ছোঁয়া লেগেছে। ১০ বছরে দেশ অনেক এগিয়েছে। বাংলাদেশ আর আগের জায়গায় নেই। শেখ হাসিনার দক্ষ ও সাহসী নেতৃত্ব এই পরিবর্তন এসেছে।

নিজেকে হাওর এলাকার সন্তান উল্লেখ করে পরিকল্পনামন্ত্রী আরও বলেন, ‘হাওর এবং হাওর এলাকার মানুষ একসময় অবহেলিত ছিলেন। শেখ হাসিনা হাওরকে আলোয় এনেছেন। সুনামগঞ্জে মেডিকেল কলেজ ও টেক্সটাইল ইনস্টিটিউটের কাজ চলছে। বিশ্ববিদ্যালয় হবে, জেলা সদরে রেললাইন আসবে। হাওরের ওপর দিয়ে সুনামগঞ্জ-নেত্রকোনা সড়ক নির্মাণের একটি বিশাল প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। এই সড়ক হবে দেশের একটি দৃষ্টিনন্দন ও মনোরম সড়ক, যে সড়কের নাম প্রস্তাব করা হয়েছে “শেখ হাসিনা ফ্লাইওভার হাইওয়ে”। আর এসব হচ্ছে হাওর এলাকার মানুষের প্রতি বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার মায়া আছে বলেই। তিনি সব সময় হাওরবাসীর পাশে আছেন। তাই তাঁর কাজে আমাদের সমর্থন, সহযোগিতা থাকা উচিত।’

সুনামগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সুহেল মাহমুদের সঞ্চালনায় সেমিনারে আরও বক্তব্য দেন সুনামগঞ্জ-৫ আসনের সাংসদ মুহিবুর রহমান, সুনামগঞ্জ-২ আসনের সাংসদ জয়া সেনগুপ্তা, সুনামগঞ্জ-১ আসনের সাংসদ মোয়াজ্জেম হোসেন, সুনামগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ, সুনামগঞ্জ ও সিলেট সংরক্ষিত নারী আসনের সাংসদ শামীমা শাহরিয়ার, সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান, পানি উন্নয়ন বোর্ড সুনামগঞ্জ কার্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সবিবুর রহমান, সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি পঙ্কজ কান্তি দে, হাওর ও পরিবেশ উন্নয়ন সংস্থার সভাপতি কাসমির রেজা।

সেমিনারে নির্ধারিত বিষয় ছাড়াও সুনামগঞ্জের বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হয়।

জাতীয় বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর