ব্রেকিং:
রংপুর স্টেশন থেকে কোনো ট্রেন চলবে না। রোববার বিকেলে এ তথ্য নিশ্চিত করেন রংপুর রেলওয়ে স্টেশনের মাস্টার আলমগীর হোসেন। রংপুরের ডেডিকেটেড করোনা আইসোলেশন হাসপাতাল থেকে সুস্থ হয়ে আরও তিনজন বাড়ি ফিরলেন। রোববার (৩১ মে) দুপুরে করোনামুক্ত হওয়ায় ওই তিনজনকে ছাড়পত্র দেয়া হয়। রংপুর-ঢাকা মহাসড়কে ১ জুন (সোমবার) থেকে দূরপাল্লার বাস চলাচল শুরু হবে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত আরো দুই হাজার ৫৪৫ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। এ নিয়ে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে ৪৭ হাজার ১৫৩ জনে দাঁড়িয়েছে। একই সময়ে মারা গেছেন আরো ৪০ জন। এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ৬৫০ জন। একদিনের আক্রান্ত ও মৃত্যুর পরিসংখ্যানে এটিই সর্বোচ্চ। ট্রেনের টিকিট শুধু অনলাইনেই বিক্রি হবে বলে জানিয়েছেন রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন। বসলো পদ্মাসেতুর ৩০তম স্প্যান: দৃশ্যমান সাড়ে ৪ কিলোমিটার গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় ছয়জন নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে দুইজন স্বাস্থ্যকর্মী, তিনজন গার্মেন্টসকর্মী ও একজন মাওলানা।
  • রোববার   ৩১ মে ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৭ ১৪২৭

  • || ০৮ শাওয়াল ১৪৪১

সর্বশেষ:
করোনা রোধে জনপ্রতিনিধিদের আরো সম্পৃক্তের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর স্বাস্থ্যবিধি মেনে সব অফিস খুলছে আজ করোনায় স্বাস্থ্যবিধি মানাতে চলবে মোবাইল কোর্ট পঙ্গপালের কারণে বিপর্যয়ের মুখে ভারত-পাকিস্তান দেশেই করোনাভাইরাসের পূর্ণাঙ্গ জিনোম সিকোয়েন্সিং সম্পন্ন আদিতমারীতে সব করোনা রোগী সুস্থ হয়েছেন
১৩

১৫০ যাত্রীবাহী লঞ্চে খাদ্য সহায়তা দিয়েছে বিআইডব্লিউটিএ

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ২২ মে ২০২০  

অঘোষিত লকডাউনের কারনে সদরঘাট এলাকায় নোঙর করে রাখা হয়েছে দেড় শতাধিক ছোট বড় যাত্রীবাহী লঞ্চ। যাত্রী পরিবহন বন্ধ থাকায় এসব লঞ্চে অবস্থানরতদের অনেকেই বিপাকে পড়েছেন। খাদ্য সংকটের পাশাপাশি কয়েকটিতে দেখা দিয়েছে পানির তীব্র সংকট। এবার এসব লঞ্চে অবস্থানরত মাষ্টার, ড্রাইভার, সুকানীসহ লঞ্চস্টাফদের মাঝে অতিপ্রয়োজনীয় খাদ্য সমাগ্রী বিতরণ করেছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)। বৃহস্পতিবার বিকেলে এসব সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

বিআইডব্লিউটিএ এর যুগ্ম পরিচালক ও ঢাকা নদী বন্দরের নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তা একেএম আরিফ উদ্দিন বলেন, নিয়মিত ত্রাণ কার্যক্রমের অংশ হিসেবে নোঙর করে রাখা লঞ্চ গুলোতে নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী বিতরণ করা হয়। অবস্থানরত মোট ১৫০ টি যাত্রীবাহী লঞ্চের প্রতিটিতে ২৫ কেজি চাল, ৫ কেজি ডাল, ৫ কেজি পেঁয়াজ, ৫ লিটার সয়াবিন তেল দেওয়া হয়েছে। এছাড়া লঞ্চগুলোতে বিশুদ্ধ খাবার পানি ও ব্যবহার্য পানি সরবরাহেরও ব্যবস্থা করা হয়েছে।

এই কর্মকর্তা বলেন, ঢাকা নদী বন্দর এলাকায় নৌশ্রমিক, কুলি, দিনমজুর, মাঝিসহ নানা শ্রেনির কর্মহীন প্রায় ৬ হাজার লোকের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে।

প্রাণঘাতী করোনার সংক্রমন রোধে সরকারী সিদ্ধান্ত মোতাবেক গত ২৪ মার্চ থেকে সারাদেশে যাত্রীবাহী লঞ্চ চলাচল বন্ধ রয়েছে। সেই থেকে যাত্রী চলাচলের দিক থেকে বিশ্বের সর্ববৃহৎ অভ্যন্তরীণ নদী বন্দর অর্থাৎ ঢাকা নদী বন্দর দিয়ে দেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের ২২ জেলায় ৪৩ নৌপথে প্রতিদিন ছোট বড় ৮০ টি লঞ্চে গড়ে লক্ষাধিক নৌযাত্রীর চলাচল বন্ধ রয়েছে।

প্রচন্ড ব্যস্ততম সরব সদরঘাট এখন এক শান্ত নিরব প্রান্তর। কর্মহীন হয়ে অসহায়ত্বের মধ্যে পড়েছে নদী, নৌযান আর বন্দর নির্ভর বিপুল সংখ্যক কর্মজীবী, দিনমজুর।

বিষয়টি বিবেচনায় এনে পরিস্থিতির শুরু থেকেই নৌশ্রমিক, কুলি, দিনমজুর, মাঝি, জেলে, ভবঘুরে, ছিন্নমূল, প্রতিবন্ধিসহ সদরঘাট ও ঢাকা নদী বন্দর কেন্দ্রিক নানা শ্রেণীর বর্তমানে অসহায় মানুষের মাঝে বিআইডব্লিউটিএ'র পক্ষ থেকে কয়েকদিন অন্তর অন্তর শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম অব্যাহত রাখা হয়েছে।

বিভিন্ন সময় ত্রাণ সহায়তা বিতরণের সময় নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, নৌপরিবহন সচিব মোহাম্মদ মেজবাহ্ উদ্দিন চৌধুরী, বিআইডব্লিউটিএ'র চেয়ারম্যান কমডোর গোলাম সাদেক উপস্থিত ছিলেন।

জাতীয় বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর