• মঙ্গলবার   ০৪ অক্টোবর ২০২২ ||

  • আশ্বিন ১৮ ১৪২৯

  • || ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

সর্বশেষ:
মুজিববর্ষে সরকারি ঘর পেয়েছে প্রায় ২ লাখ পরিবার: প্রধানমন্ত্রী আগামী প্রজন্মের জন্য পরিকল্পিত নগরায়ণের বিকল্প নেই: রাষ্ট্রপতি বাংলাদেশ অঞ্চলের ৫০ লাখ ভিডিও সরিয়েছে টিকটক: টেলিযোগাযোগমন্ত্রী করতোয়ায় দেশের বৃহত্তম ওয়াই ব্রিজ হবে: রেলমন্ত্রী সুজন বিএনপি সুযোগ পেলে আবার নির্যাতন চালাবে: তোফায়েল আহমেদ

আটোয়ারীতে খেলার মাঠ নিয়ে বাগবিতণ্ডার জেরে কিশোরকে ছুরিকাঘাত

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১৩ আগস্ট ২০২২  

আটোয়ারীতে খেলার মাঠ নিয়ে বাগবিতণ্ডার জেরে কিশোরকে ছুরিকাঘাত       
পঞ্চগড়ের আটোয়ারীতে খেলার মাঠ নিয়ে বাগবিতণ্ডায় সোহেল রানা নামে এক কিশোরকে ছুরিকাঘাতে করেছে আরেক কিশোর।

গত শুক্রবার সন্ধ্যায় উপজেলার বলরামপুর ইউপির লিলারমেলা নামক বাজারে এ ঘটনাটি ঘটে।  আহত সোহেল রানা একই ইউপির বলরামপুর এলাকার বরকাতুল্লার ছেলে। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

জানা যায়, বৃহস্পতিবার বলরামপুর ইউপির লিলারমেলা দাখিল মাদরাসা মাঠে ফুটবল খেলায় টাকা দিয়ে বাজি ধরার কথা বলে ফরহাদ। এ নিয়ে দুইজনের মধ্যে বাগবিতণ্ডা হয়। পরদিন শুক্রবার সকালে মাদরাসা মাঠে দুইজনে খেলতে গিয়ে মাঠ ভাগাভাগি নিয়ে ঝগড়া হয়। 

ওই সময় উপস্থিত যুবকদের সহায়তায় তাদের সেখান থেকে আলাদা করা হয়। এদিকে সন্ধ্যায় লিলারমেলা বাজারে কোনো কিছু বুঝে উঠার আগেই সোহেলকে ছুরিকাঘাত করে ফরহাদ। সোহেল রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে তার সহপাঠী ও স্থানীয়রা ফরহাদকে ধাওয়া করে। এ সময় ফরহাদ একটি দোকানের ঢুকে নিজেই নিজের আঙ্গুল কেটে দেয়। পরে স্থানীয়রা তাকে অবরুদ্ধ করে ইউপি চেয়ারম্যানকে খবর দেয়। 

এদিকে সোহেলকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হলে চিকিৎসক তাকে রাতেই ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালে পাঠান।

বলরামপুর ইউপি চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন জানান, প্রথমে জুয়া খেলা, এরপর খেলার মাঠ ভাগাভাগি নিয়ে তাদের মধ্যে ঝগড়া হয়। শুক্রবার সন্ধ্যায় বাজারে ফরহাদ সোহেলকে ছুরিকাঘাত করে। স্থানীয়দের মাধ্যমে খবর পেয়ে তাকে দ্রুত উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অভিযুক্ত ফরহাদকে পুলিশের হাতে তুলে দিয়ে তাকেও চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

আটোয়ারী থানার ওসি সোহেল রানা বলেন, রাতেই ঘটনাস্থলে গিয়েছি। অভিযোগ আসার আগেই আমরা তদন্ত ও আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করছি।