• মঙ্গলবার   ০৪ অক্টোবর ২০২২ ||

  • আশ্বিন ১৮ ১৪২৯

  • || ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

সর্বশেষ:
মুজিববর্ষে সরকারি ঘর পেয়েছে প্রায় ২ লাখ পরিবার: প্রধানমন্ত্রী আগামী প্রজন্মের জন্য পরিকল্পিত নগরায়ণের বিকল্প নেই: রাষ্ট্রপতি বাংলাদেশ অঞ্চলের ৫০ লাখ ভিডিও সরিয়েছে টিকটক: টেলিযোগাযোগমন্ত্রী করতোয়ায় দেশের বৃহত্তম ওয়াই ব্রিজ হবে: রেলমন্ত্রী সুজন বিএনপি সুযোগ পেলে আবার নির্যাতন চালাবে: তোফায়েল আহমেদ

বালিয়াডাঙ্গীতে ঘর পেয়ে কষ্ট দূর হয়েছে প্রতিবন্ধী নজরুল ইসলামের

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১৩ আগস্ট ২০২২  

বালিয়াডাঙ্গীতে ঘর পেয়ে কষ্ট দূর হয়েছে প্রতিবন্ধী নজরুল ইসলামের            
‘মোর আগের ঘরটা ভাঙাচুরা ছিল। পানির (বৃষ্টি) দিন হামরা ঘরত থাকপা পারিনি। পানিতে সব ভিজে যাইত। অনেকলা বস্তা দিয়া আর টপলাটুপলি দিয়া ঘরটাত ছিনো। খুবে কষ্ট হতো থাকতে হামার। আইজকা হামরা নতুন ঘর পানো। এলা খুব সুখে থাকিবা পারিম। রাইত করে ঘুমাইতে কষ্ট হবেনি। আইজ অনেক আনন্দ লাগেছে মোর। আইজ মুই আর মোর পরিবার অনেক খুশি।’ 

স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন সেভ হিউম্যান লাইফের পক্ষ থেকে নতুন ঘর পেয়ে এভাবেই কথাগুলো বলছিলেন প্রতিবন্ধী নজরুল ইসলাম। ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার চাড়োল ইউনিয়নের দোগাছি বন্যাপাড়ার বাসিন্দা তিনি। প্রতিবন্ধী স্ত্রী আর এক ছেলে সন্তান নিয়ে জরাজীর্ণ ঘরে মানবেতর জীবনযাপন করছিলেন তিনি। 

নজরুল ইসলাম বলেন, ‘আইজকা মোর আনন্দে কান্দন বাহির হচে। মুই জীবনে ভাবুনি নতুন ঘর হবে মোর। আইজকা মোর অনেকদিনকার আশা পূরণ হইল। এলা শান্তিতে ঘুমাবা পারমো হামা।  বেটাডা ভালো করে পড়িবা পারিবে। যারা দিলো আল্লাহ উমার ভালো করুক।’ 

নজরুলের ছেলে শিশু আরিফ বলে, আমাদের ঘরটা অনেক খারাপ ছিল। বৃষ্টি হলে সব ভিজে যেত। অনেকবার আমার বইগুলো ভিজে নষ্ট হয়ে গেছে। আমি আমাদের ঘরে ঠিকমত পড়াশোনা করতে পারতাম না। এখন আমরা নতুন ঘর পেলাম। এখন খুব ভালোমতো পড়াশোনা করতে পারব। 

নজরুলের প্রতিবন্ধী স্ত্রী আলেফা বেগম বলেন, ‘হামরা খুবে অসহায়। বাবুর বাপ সারাদিন সাহায্য তুলে আনে, সেগুলো দিয়ে আমাদের সংসার চলে। মুই মাইনসের বাড়িত কাজ কাম করু। ঘর করিবার মত কোনো টাকা নাই হামার। আইজ নতুন ঘর পানো হামা। আইজ খুবে খুশি হামরা। যারা ঘরটা করে দিল আল্লাহ উমাক ভালো করুক।’

স্থানীয় প্রতিবেশী মিজানুর রহমান বলেন, আমাদের গ্রামের প্রতিবন্ধী নজরুল ইসলাম অনেক কষ্ট করে জীবনযাপন করতেন। সারাদিন অন্যের কাছে সাহায্য তুলে তার পরিবার চলতো। আর থাকার মত শুধু একটি জরাজীর্ণ ঘর ছিল। আজকে সে নতুন একটি ঘর পেল। এখন সাহায্য তুলে ভরণপোষণ চললেও নতুন ঘরে ভালো মতো ঘুমাতে পারবে। এমন একটি পরিবারের পাশে দাঁড়ানোর জন্য স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন সেভ হিউম্যান লাইফকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই। আশা করছি তারা এভাবেই অসহায় মানুষের পাশে থাকবেন। 

স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন সেভ হিউম্যান লাইফের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সাইফুল্লাহ আল হেলাল বলেন, প্রতিবন্ধী নজরুল ইসলাম অনেক কষ্টে সাহায্য তুলে তার পরিবার নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন। তিনি অন্যের দ্বারে দ্বারে ঘুরে যা আয় করেন তা দিয়ে সংসার চলে। তাদের একমাত্র থাকার ঘরটা ছিল অনেক জরাজীর্ণ। যেখানে অনেক কষ্ট করে তারা রাত কাটাতেন। রাতে ঘুমাতে পারতেন না। আমরা সে বিষয়টি জানায় তাকে থাকার মতো একটি নতুন ঘর করে দিয়েছি। সারাদেশে অসহায় ও দুস্থদের পাশে আমরা দাঁড়ানোর  চেষ্টা করছি।