• বৃহস্পতিবার   ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ১৯ ১৪২৯

  • || ০৯ রজব ১৪৪৪

সর্বশেষ:
ফিলিস্তিনিদের পাশে দাঁড়াতে মুসলিমদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান সংখ্যালঘু বলতে কোনো শব্দ নেই, আমরা সবাই বাঙালি: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আইএমএফের ঋণই প্রমাণ করে দেশের অর্থনীতির ভিত্তি মজবুত: অর্থমন্ত্রী করোনা মহামারির মধ্যেও বাংলাদেশের অর্থনীতি ৩.৮% প্রসারিত হয়েছে শিক্ষা নিয়ে ব্যবসা করার মানসিকতা পরিহার করার আহ্বান রাষ্ট্রপতির

আখ চাষে ফিরছে সুদিন

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ৫ ডিসেম্বর ২০২২  

ঠাকুরগাঁওয়ে আখ চাষে ঝুঁকছেন কৃষকরা। কয়েক বছরের তুলনায় এবার এ জেলায় আখ চাষ হয়েছে দ্বিগুণ। সরকারের বিভিন্ন সহায়তা পেয়ে অনেকেই এখন এর চাষ করছেন।

কৃষি বিভাগের তথ্যমতে, ২০২০-২১ মাড়াই মৌসুমে পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁও ও সেতাবগঞ্জ তিন মিলের আখ মাড়াই হয় ঠাকুরগাঁও চিনিকলে। এ মৌসুমে চিনিকলে এক লাখ ১৩ টন আখ মাড়াই হয়। মাড়াই মৌসুমে জেলার ৫০ হাজার টন আখ মাড়াই হয়েছিল চিনিকলে। ২০২১-২২ মাড়াই মৌসুমে পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁওয়ের ৫৭ হাজার ৮৩৪ টন আখ মাড়াই হয় চিনিকলে। গত বছর ৩৬ হাজার টন আখ উৎপাদন করেছিলেন জেলার আখ চাষিরা।

ঠাকুরগাঁও চিনিকলের মহা-ব্যবস্থাপক (কৃষি) আবু রায়হান বলেন, ৭২৭ হেক্টর নিজস্ব জমি রয়েছে চিনিকলের। এছাড়া বর্তমানে জেলার প্রায় দুই হাজার হেক্টর জমিতে আখ উৎপাদন করছেন তিন হাজার কৃষক। চার হাজার হেক্টর জমিতে আখ চাষ হলেই চিনিকলটির সুদিন ফিরবে।

চিলারং ইউনিয়নের কৃষক সলেমান আলী বলেন, এক বিঘা জমিতে আখ রোপণের সময় আট হাজার টাকা খরচ হয়। এছাড়া চিনিকলে মাড়াইয়ের জন্য পাঠাতে খরচ হয় ৩০-৩৫ হাজার টাকা। ফলন ভালো হলে প্রায় লাখ টাকার আখ বিক্রি হবে।

ঠাকুরগাঁও চিনিকলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহজাহান কবির বলেন, আখ উৎপাদনে লাভবান হওয়া যায় বলে আমরা কৃষকদের বোঝানোর চেষ্টা করছি। আমরা কৃষকদের সার কীটনাশকের জোগান দিয়ে সহযোগিতা করছি।