• সোমবার ২০ মে ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৬ ১৪৩১

  • || ১১ জ্বিলকদ ১৪৪৫

সার্কাসের হাতি গ্রামাঞ্চলে বাড়িসহ হাট-বাজারে প্রদর্শন

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ৩১ জানুয়ারি ২০২৩  

সার্কাসের হাতি গ্রামাঞ্চলে বাড়িসহ হাট-বাজারে প্রদর্শন                          
কুড়িগ্রামের গ্রামাঞ্চলে সার্কাসের হাতি বাড়িসহ হাট-বাজারে প্রদর্শন করা হচ্ছে। হাতির পিঠে উঠতে কেউ ইচ্ছে করলে কিছুক্ষণের জন্য তার কাছ থেকে নেয়া হচ্ছে জনপ্রতি ২০ টাকা। মঙ্গলবার সূদুর ফরিদপুর থেকে সার্কাস দেখানোর জন্য নিয়ে আসা কুড়িগ্রামের গ্রামাঞ্চলে দেখা মেলে হাতি প্রদর্শনীর এ দৃশ্য।

সার্কাসের হাতি দেখতে উৎসুক মানুষের ভিড় পড়ে যায়। হাতির পেছনে পেছনে ছুটে চলতে দেখা গেছে বয়োবৃদ্ধসহ যুবক, কিশোরসহ শিশুর দলকে।

হাতির সোয়ার বা মাউদ সুজন সরকার জানান, আমরা সূদুর ফরিদপুর থেকে লালমনিরহাটের বড়বাড়ী সিঁদুর মতির মেলায় সার্কাসের জন্য এ হাতি নিয়ে আসি। সার্কাস শুরুর ফাঁকা সময়টিতে আমরা হাতি প্রদর্শন করি গ্রামাঞ্চলে। 

এখানকার গ্রামাঞ্চলের বাড়ি বাড়িসহ হাট-বাজারের দোকান পাটে হাতি দেখিয়ে চাল, টাকা-পয়সা যে যা দেয় তা নিয়ে নেই। এতে আমাদের পেটের খোরাক মেলে। তাছাড়া গ্রামের শিশু বয়ো-বৃদ্ধরা যারা জীবনে প্রকাশ্যে হাতি দেখেনি তারা প্রকাশ্যে আমাদের হাতি দেখে আনন্দ পাচ্ছে।

স্থানীয় শিশু তাহসিন মোরসালীন উন্মেষ জানান, আমার বাবার মোবাইলে হাতি দেখতাম। আজ আমার বাড়িতে সত্যিকারের হাতি আসায় জীবনের প্রথম হাতি দেখলাম। আমি অনেক বেশি খুশি হয়েছি।

স্থানীয় যুবক আপেল, ফাহিম ও আতিক জানান, আমরা গ্রামাঞ্চলের মানুষ। প্রকাশ্যে হাতি দেখার সুযোগ পায়নি। আজ হাতি আমাদের গ্রামে আসায় প্রকাশ্যে হাতি তো দেখলাম। এর সঙ্গে হাতির পিঠে চড়ে আনন্দ উপভোগ করেছি। তারা জনপ্রতি হাতির পিঠে উঠে ২০ টাকা করে ভাড়া দিয়েছেন বলে জানান।

স্থানীয় বৃদ্ধা তারা বিবি জানান, আগে পূর্ব পুরুষরা হাতির পিঠে চড়ে বিয়ে করেছেন। আমরা তখন সচরাচর হাতিকে দেখতাম। আগের দিন আর নেই। আজ আমাদের গ্রামে হাতি আসায় বহুদিন পর হাতি চোখে পড়লো।