ব্রেকিং:
দেশে নতুন করে লকডাউনের কোন চিন্তা-ভাবনা নেই: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
  • সোমবার   ০৬ ডিসেম্বর ২০২১ ||

  • অগ্রাহায়ণ ২২ ১৪২৮

  • || ২৯ রবিউস সানি ১৪৪৩

সর্বশেষ:
অস্ত্র প্রতিযোগিতার পরিবর্তে শান্তিপূর্ণ বিশ্ব গড়ুন- প্রধানমন্ত্রী যৌথভাবে মৈত্রী দিবস পালন করবে ঢাকা-দিল্লি রংপুরে এখন মঙ্গা নেই, উন্নয়ন দৃশ্যমান: বাণিজ্যমন্ত্রী হাবিপ্রবিতে ইউনিটভিত্তিক ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু ট্রাকচাপায় ওষুধ কোম্পানির বিক্রয় প্রতিনিধি নিহত

সত্যিকার মুসলমান কারো ক্ষতি করতে পারে না: তথ্যমন্ত্রী

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ২১ অক্টোবর ২০২১  

সত্যিকার মুসলমান কখনো অন্যের ক্ষতি করতে ও সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদে জড়াতে পারে না বলে মন্তব্য করেছেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, আউলিয়া সাধক ও দরবেশদের এই দেশে জঙ্গিবাদীদের ঠাঁই হবে না। সাম্প্রদায়িক উন্মাদনা ছড়িয়ে কোনো লাভ হবে না। এদেশের মানুষ অসাম্প্রদায়িক ও উদার। সাম্প্রদায়িক অপশক্তিকে সর্বশক্তি দিয়ে আমাদের রুখে দিতে হবে।

বুধবার মাইজভাণ্ডার দরবার শরিফের আয়োজনে রাজধানীতে অনুষ্ঠিত জশনে জুলুসের আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন হতে মিছিল বের হয় মিছিলটি শাহবাগ ঘুরে মৎস্য ভবন হয়ে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে শেষ হয়।

আঞ্জুমানে রহমানিয়া মইনীয়া মাইজভাণ্ডারীর ব্যবস্থাপনায় আজিমুশশান জশনে জুলুসে অংশগ্রহণকারীরা কলেমা খচিত পতাকা, জাতীয় পতাকা ও নানা প্লেকার্ড-ফেস্টুন বহন করে স্লোগানে রাজধানীর রাজপথ মুখরিত করে তোলে।

ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনের শান্তি মহাসমাবেশে সভাপতিত্ব করেন পার্লামেন্ট অব ওয়ার্ল্ড সূফীজ প্রেসিডেন্ট হজরত শাহ সূফী সাইয়্যিদ সাইফুদ্দীন আহমদ আল-হাসানী।

আলোচনা সভায় তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী বলেন, সরকার ১২ রবিউল আওয়ালকে সরকারি ছুটি হিসেবে ঘোষণা করেছে। ইসলামের মূল মর্মবাণী হলো- মানুষের মধ্যে সৌহার্দ্য বৃদ্ধি করা। যারা এই মূল মর্মবাণী ধারণ করে, তারা কখনো ইসলামের নামে অন্য কারও ওপর আক্রমণ করে না। আজ ইসলামের মূল থেকে সরে গিয়ে ইসলামের ভুল ব্যাখা দেয়। যুবক তরুণদের বিপথে নিয়ে যায়। অলি আউলিয়াদের মাধ্যমে ভালোবাসায় এই জনপদে ইসলাম প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। যারা এদের বিরুদ্ধে কথা বলে, সহিংসতা সৃষ্টি করে, অন্য ধর্মের প্রতি হামলা করে; তারা ফেৎনা সৃষ্টিকারী।

মন্ত্রী বলেন, আমাদের এই দেশের স্বাধীনতার জন্য মুসলমান-হিন্দু একসঙ্গ যুদ্ধ করেছে। এই দেশ সবার। আজ যারা বিভ্রান্ত ছড়িয়ে যাচ্ছে, পবিত্র ধর্ম ইসলামের বিরুদ্ধে ফেৎনা ছড়িয়ে যাচ্ছে, তাদের আমাদের কঠোর হাতে দমন করতে হবে। নিজেদের মধ্যে ভেদাভেদ না রেখে, নিজেদের মধ্যে ফেৎনা না রটিয়ে আমাদের একসঙ্গে থাকতে হবে।

আলোচনা সভায় অংশ নিয়ে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, এক শ্রেণির মানুষ বিভিন্ন ধরনের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটিয়ে সামাজিক অস্থিরতা সৃষ্টি করতে চাইা। আমাদের নবী এত উদার, এত সহনশীল, যদি তার জীবন বিশ্লেষণ করি, তবে এমন আর কাউকে পাওয়া যাবে না। আর সেই ধর্মের মানুষকে মিথ্যাচার করে এভাবে হেয় করা কেউ মেনে নেবে না।

সবাইকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, আমাদের সবাইকে সজাগ থাকতে হবে যেন কেউ আমাদের মাঝে সহিংসতা সৃষ্টি করে বিদ্বেষ বাড়াতে না পারে। আমাদের কাজ-কর্ম, আচার আচরণের মধ্যমে যেন সবাই আমাদের আলাদা করে চিনতে পারে, সেই অনুযায়ী আমাদের সকল মুসলিমের কাজ করা উচিত। আর যারা ইসলামের নাম নিয়ে সহিংসতা সৃষ্টি করতে চায় আশা করি তারা খুব শিগগির প্রতিহত হবে। ঈদে মিলাদুন্নবীর যে ইসলামি সংস্কৃতি, আমি আশা করি এর মাধ্যমে জনগণ ইসলাম সম্পর্কে আরও বেশি জানতে পারবে, আকৃষ্ট হবে।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল সৈয়দ মোহাম্মদ ইব্রাহিম বলেন, ইসলাম শান্তির ধর্ম। এখানে জঙ্গিবাদের জায়গা নেই। সকল ধর্ম তাদের নিজ নিজ উৎসব-আয়োজন সুষ্ঠভাবে পালন করবে এটাই আমাদের প্রত্যাশা এবং ইসলাম আমাদের তাই শিখিয়েছে। এখানে সংখ্যলঘুদের আলাদা করে দেখার কোনো কারণ নেই। আমরা সবাই আপনজন। সকল ধর্মের অনুসারীদের সরকারের নিরাপত্তা দিতে হবে; অন্যায়-অবচিার শক্তহাতে দূর করতে হবে।

সবশেষ বিশ্বের নির্যাতিত-নিপীড়িত মানুষের মুক্তি এবং বিশ্ববাসীর ওপর আল্লাহর রহমত কামনায় মোনাজাত পরিচালনা করা হয়।