• বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৫ ১৪৩১

  • || ১২ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

পাঠ্যপুস্তকে ধুমপানের ক্ষতিকারক দিক তুলে ধরার আহবান

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ২৮ মে ২০২৩  

 
বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন ত্বরান্বিতকরণ এবং টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের ক্ষেত্রে অন্যতম একটি অন্তরায় তামাক। তামাক ব্যবহারের জন্য দেশে তামাকজনিত অসংক্রামক রোগ এবং এর ফলে অপরিণত বয়সে মৃত্যু আশঙ্কাজনক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। তামাক সেবনজনিত রোগের চিকিৎসা বাবদ একদিকে যেমন সরকারকে স্বাস্থ্যখাতে বিপুল পরিমাণ ভর্তুকি দিতে হচ্ছে, অন্যদিকে তামাক চাষের ফলে উর্বর জমিতে খাদ্যশস্য চাষের সুযোগ কমে যাচ্ছে। 

রোববার (২৮ মে)  পিকেএসএফ ভবনে ‘বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস-২০২৩’ উপলক্ষ্যে তামাক বিরোধী জাতীয় প্ল্যাটফর্ম আয়োজিত একটি সেমিনারে বক্তারা এসব কথা বলেন।

আয়োজিত সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ)-এর চেয়ারম্যান ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ। সেমিনারে সম্মানীয় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রফেসর ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত এমপি, সাবেক উপাচার্য, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়। বিশেষ বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রফেসর ডা. অরূপ রতন চৌধুরী, প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, মানস (মাদকদ্রব্য ও নেশা নিরোধ সংস্থা) এবং সদস্য, জাতীয় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ উপদেষ্টা কমিটি ও জাতীয় তামাক নিয়ন্ত্রণ টাস্কর্ফোস। 

সম্মাননীয় অতিথির বক্তব্যে ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত এমপি পাঠ্যপুস্তকে ধুমপানের ক্ষতিকারক দিকগুলো সম্পর্কে আরো বিশদভাবে তুলে ধরার আহবান জানান এবং এ তামাকের ক্ষতিকর দিক মোকাবিলায় পারিবারিক এবং প্রাতিষ্ঠানিক সুশাসন গড়ে তোলার ব্যাপারে জোর দেন।

ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনের সংশোধন প্রক্রিয়া দ্রুততম সময়ে শেষ করার পাশাপাশি আইনের যথাযথ প্রয়োগ নিশ্চিত করার বিষয়ে গুরুত্বারোপ করেন। তিনি তামাক রপ্তানিতে ২৫% শুল্ক পুনর্বহাল করার দাবি তোলেন। ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ কৃষি মন্ত্রণালয়কে তামাক চাষ নিয়ন্ত্রণে আরও জোরালো ভূমিকা রাখার আহবান জানান। ড. আহমদ বলেন পিকেএসএফ বিভিন্ন কর্মসূচি ও প্রকল্পের আওতায় তামাক বিরোধী কার্যক্রম বিশেষ করে তামাকের জমিতে বিকল্প ফসল উৎপাদনের জন্য প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

ডা. অরূপ রতন চৌধুরী বলেন, ধোঁয়াযুক্ত তামাকের ব্যবহারে যিনি সরাসরি খাচ্ছেন, তার চেয়ে তার আশপাশের পরোক্ষভাবে ধোঁয়া গ্রহণকারী মানুষেরা বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হন। তিনি বলেন, মহিলাদের স্তন ক্যান্সার এবং শিশুদের নিউমোনিয়া, ব্রংকাইটিস এবং হুপিং কাশির অন্যতম প্রধান কারণ হচ্ছে পরোক্ষ ধূমপান।  তিনি বলেন, সিগারেটের ধোঁয়ায় ৭,৩৬৫ রকমের রাসায়নিক থাকে, যার মধ্যে ৭০টি রাসায়নিক কারসিনোজেনিক (মানবদেহে ক্যানসার সৃষ্টি করতে পারে এমন)।

সেমিনারে স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন পিকেএসএফ-এর সিনিয়র উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক গোলাম তৌহিদ। সেমিনারে ‘টেকসই উন্নয়নে শক্তিশালী তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন: পরিপ্রেক্ষিত বাংলাদেশ’ শীর্ষক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন প্রজ্ঞা-এর হেড অব প্রোগ্রাম মোঃ হাসান শাহরিয়ার এবং ‘তামাক নয়, খাদ্য ফলাও: পিকেএসএফ-এর প্রচেষ্টা’ শীর্ষক উপস্থাপনা প্রদান করেন ড. শরীফ আহম্মদ চৌধূরী, প্রকল্প পরিচালক, পিপিইপিপি, পিকেএসএফ। এছাড়া, অনুষ্ঠানে ‘কৃষি জমিতে আর নয় তামাক’ শীর্ষক একটি প্রকাশনার মোড়ক উন্মোচন করা হয়।

পিকেএসএফ-এর সিনিয়র উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক গোলাম তৌহিদ তার বক্তব্যে বলেন পিকেএসএফ-এর সমন্বিত কৃষি ইউনিট-এর মাধ্যমে কুষ্টিয়া, লালমনিরহাট ও কক্সবাজার জেলাসমূহে তামাকের পরিবর্তে বিকল্প ফসল চাষ করা হচ্ছে। এছাড়া, পিকেএসএফ-এর PACE প্রকল্পের আওতায় হালদা নদীর উজানে বিদ্যমান তামাক চাষীদেরকে বিকল্প জীবিকায়নে যুক্ত করার লক্ষ্যে বিভিন্ন আয়বর্ধনমূলক কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্তকরণের কাজ করা হচ্ছে।