• সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||

  • ফাল্গুন ১৩ ১৪৩০

  • || ১৫ শা'বান ১৪৪৫

সর্বশেষ:
জনগণের জন্য ন্যায়বিচার নিশ্চিতে নানা উদ্যোগ নিয়েছে সরকার- প্রধানমন্ত্রী সংস্কৃতির বিকাশে কাজ করছে সরকার: নৌপ্রতিমন্ত্রী শিক্ষা মানুষের সব সুযোগের দুয়ার উন্মোচন করে: গণপূর্তমন্ত্রী অসাধু ব্যবসায়ীদের কারসাজি রোধে সতর্ক থাকতে হবে: খাদ্যমন্ত্রী রোজার আগেই দে‌শে ঢুকবে ভারতের পেঁয়াজ: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

‘৫০০ সরকারি স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ২৪ ঘণ্টা সার্ভিস শুরু হয়েছে’

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ৯ ডিসেম্বর ২০২৩  

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, মা ও শিশু মৃত্যুহার কমিয়ে আনতে আমরা ৫০০টি সরকারি স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ২৪ ঘণ্টা সার্ভিস শুরু করেছি। পর্যায়ক্রমে আরো ৪০০টি স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ২৪ ঘণ্টা সেবা চালু করা হবে।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর মিন্টো রোডের বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব কনভেনশন হলে ৯-১৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত ‘পরিবার কল্যাণ সেবা ও প্রচার সপ্তাহ’ পালন উপলক্ষে আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন তিনি। স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগ এ সভার আয়োজন করে।

জাহিদ মালেক বলেন, দেশে এখনো ৬৫ হাজার শিশু এবং সাড়ে ৪ হাজার মা বছরে মাতৃত্বকালীন মারা যায়। এই সংখ্যা অনেক। যদিও গত বছরের তুলনায় এবার আমরা অন্তত ৫ ভাগ মা ও শিশু মৃত্যুহার কমাতে সক্ষম হয়েছি, বছরে এত মৃত্যু কাম্য নয়। এখন আমাদের আগামীর লক্ষ্য পূরণ করতে হবে। ২০৩০ সালের মধ্যে মাতৃ মৃত্যুহার ৭০ শতাংশ কমাতে হবে ও শিশু মৃত্যুহার অর্ধেকে নামিয়ে আনতে হবে। এ লক্ষ্য অর্জন করতে হলে আমাদের অবশ্যই বাল্যবিয়ে প্রতিরোধ করতে হবে। মায়েদের হোম ডেলিভারির পরিবর্তে প্রাতিষ্ঠানিক ডেলিভারির দিকে মনোযোগী হতে হবে। সরকারি স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রগুলোকে ২৪ ঘণ্টা সার্ভিস ব্যবস্থায় কাজ করতে হবে।

বর্তমানে প্রাইভেট স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলোতে আশঙ্কাজনক হারে সিজারিয়ান ব্যবস্থা বেড়ে গেছে উল্লেখ করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, দেশে এখন সিজারের হার আশঙ্কাজনকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। বিনা কারণেই অনেক মা সিজার করে বাচ্চা নিতে আগ্রহী। এটি কাম্য নয়। একবার সিজার করে বাচ্চা নিলে ঐ মায়ের পরবর্তীতে বাচ্চা ডেলিভারিতে সমস্যা হতে পারে। এছাড়া সারাজীবনের জন্য অন্যান্য সমস্যা নিয়ে চলতে হতে পারে। হোম ডেলিভারি এবং সিজার করে বাচ্চা নেয়া অর্ধেকের বেশি কমাতে একযোগে কাজ করতে হবে।