• শনিবার   ১০ ডিসেম্বর ২০২২ ||

  • অগ্রাহায়ণ ২৫ ১৪২৯

  • || ১৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

সর্বশেষ:
তারা বুদ্ধিজীবী না, বুদ্ধিপ্রতিবন্ধীজীবী- প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের অপ্রতিরোধ্য অগ্রযাত্রার প্রশংসায় ইউরোপীয় ইউনিয়ন ঘূর্ণিঝড় ‘মানদৌস’ নিয়ে আবহাওয়া অফিসের নতুন বার্তা উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত করতে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে: নৌপ্রতিমন্ত্রী শামসুল আলমের প্রতি ভারতীয় হাই কমিশনারের শ্রদ্ধা

মাথার কোন স্থানে ব্যথা কি ইঙ্গিত দেয়?

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ৭ আগস্ট ২০২২  

মাথার কোন স্থানে ব্যথা কি ইঙ্গিত দেয়?                            
মাথাব্যথা আমাদের দৈনন্দিন জীবনের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। মাথাব্যথা আসলে কোনো রোগ নয় বরং একটি উপসর্গ মাত্র। ‘মাথা থাকলে মাথাব্যথা থাকবেই’- এটি জনসমাজে একটি বহুল প্রচলিত কথা।

ছোট-বড় প্রায় সব বয়সী মানুষের মধ্যেই বিভিন্ন সময়ে এর প্রকোপ পরিলক্ষিত হয়। ঘনঘন মাথাব্যথা প্রাত্যহিক পারিবারিক ও কর্মজীবনকে বিষাদময় করে তুলতে পারে। শিক্ষা ও কর্মক্ষেত্রে যেসব কারণে মানুষের কার্যক্ষমতা এবং কর্মসময় নষ্ট হয়, তার একটি প্রধান কারণ এই মাথাব্যথা।

সর্দি, মানসিক চাপ বা ডিহাইড্রেশন যে কোনো কারণেই মাথাব্যথা হতে পারে। সবারই কিন্তু একই ধরনের মাথাব্যথা হয় না। কারও হয়তো চোখের আশপাশে আবার কারও ঘাড়ে ও মাথার পেছনের দিকে কিংবা কারও কারও কপালের দুইপাশে প্রচণ্ড মাথা হয়। অনেকেরই ধারণা নেই যে বেশ কয়েক ধরনের মাথাব্যথা আছে, আর কোন অংশে মাথাব্যথা করছে তার উপরই নির্ভর করে ঠিক কী কারণে তা ঘটছে। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক কোন অংশের মাথাব্যথা কীসের ইঙ্গিত দেয়-

চোখের চারপাশে ব্যথা
চোখের মধ্যে চারপাশে যে ব্যথা হয় তা সাধারণত ক্লাস্টার মাথাব্যথার একটি লক্ষণ। ক্লাস্টার মাথাব্যথা খুবই অস্বাভাবিক বলা হয়, তবে এটি মাথাব্যথার সবচেয়ে গুরুতর রূপগুলোর মধ্যে একটি।

বিশেষজ্ঞদের মতে, এমন ব্যথা হঠাৎ করেই তীব্র আকার ধারণ করে। একটানা ৩ ঘণ্টা পর্যন্ত স্থায়ী হতে পারে এই ব্যথা। চোখের মধ্যে ও চারপাশে, ঘাড়, গাল, নাক, ঘাড় বা কাঁধ পর্যন্ত বিকিরণ করতে পারে এই ব্যথা। সাধারণত কোনো একপাশেই এই ব্যথা হয়।

সাইনাসে ব্যথা
সাইনাস মাথার খুলির ফাঁকা জায়গা যা কপাল, নাকের হাড়, গাল ও চোখের পেছনে অবস্থিত। সাইনাসের মাথাব্যথা সাধারণত মাইগ্রেনের সঙ্গে যুক্ত থাকে। সাইনাসে সংক্রমণের সমস্যাকে বলা হয় সাইনোসাইটিস।

বিশেষজ্ঞদের মতে, গাল, ভ্রু, কপালে ব্যথা ও চাপ ধরে থাকার অনুভূতি হয় এই ব্যথার ক্ষেত্রে। পাশাপাশি নাক, চোয়াল ও উপরের দাঁতেও ব্যথা অনুভব করতে পারেন।

মাথার উপরে ব্যথা
মাথার উপরে ব্যথা অনুভব করার অর্থ হলো আপনি টেনশনে ভুগছেন। একে টেনশন হেডেক বলা হয়। টেনশনের মাথাব্যথা হলো সবচেয়ে সাধারণ ধরনের মাথাব্যথা, যা হালকা থেকে মাঝারি ব্যথা হতে পারে ও প্রায়ই তা ঘটে। সপ্তাহে কয়েকবার পর্যন্ত হতে পারে এই ব্যথা। টেনশনের মাথাব্যথা কপাল জুড়ে বা মাথার পাশে ও পেছনে চাপের অনুভূতি সৃষ্টি করে। মনে হয় যেন একটি টাইট ব্যান্ড আপনার মাথার চারপাশে চেপে ধরেছে।

ঘাড় ও মাথার পিছনে ব্যথা
যে মাথাব্যথা ঘাড় থেকে শুরু হয় ও পেছনের দিকে বিকিরণ করে তা সার্ভিকোজেনিক মাথাব্যথার ইঙ্গিত দেয়। সার্ভিকোজেনিক মাথাব্যথা হলো সেকেন্ডারি মাথাব্যথা। এটি অন্য অসুস্থতা বা শারীরিক অবস্থার কারণে হয়।
সময়ের সঙ্গে সঙ্গে আরো খারাপ হতে পারে এই মাথাব্যথা। ফলে ঘাড় নড়াচড়া করা কঠিন হয় ও চাপ বাড়ে। সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গেছে, ঘাড়ের ব্যথা মাইগ্রেনের একটি সাধারণ উপসর্গও হতে পারে, যা মস্তিষ্কে উদ্ভূত হয়।

ব্যথার ধরন উপেক্ষা করবেন না
মাথাব্যথার অবস্থান চিহ্নিত করার পাশাপাশি, আপনি যে ধরনের ব্যথা অনুভব করছেন তা পর্যবেক্ষণ করাও গুরুত্বপূর্ণ। মাথার মধ্যে একটি নিস্তেজ, আঁটসাঁট, ব্যথা সংবেদন একটি উত্তেজনা মাথাব্যথা নির্দেশ করতে পারে, যা খুব সাধারণ।

মানসিক চাপ, ঘুমের অভাব থেকে চোখের চাপ, আঘাত, অত্যধিক ব্যায়াম ও আরো অনেক কারণ এ ধরনের মাথাব্যথার কারণ হতে পারে। যদি আপনার ব্যথা কম্পিত হয় ও বেশ কিছুক্ষণ স্থায়ী হয় তবে এর অর্থ মাইগ্রেন হতে পারে। বমি বমি ভাব, দৃষ্টি পরিবর্তন ইত্যাদি সহ অন্যান্য উপসর্গের সঙ্গে মাইগ্রেনও আসতে পারে। অন্যদিকে হঠাৎ করেই তীক্ষ্ণ ব্যথা দীর্ঘক্ষণ অনুভূত হলে তা ক্লাস্টার মাথাব্যথা নির্দেশ করতে পারে, যা ঘন ঘন ও দিনের একই সময়ে ঘটতে পারে। এসব মাথাব্যথার ক্ষেত্রে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

মাথাব্যাথার চিকিৎসা কী?
মাইগ্রেন ও টেনশনের মাথাব্যথার জন্য, ওভার-দ্য-কাউন্টার ওষুধ গ্রহণ উপশম হতে পারে। যাই হোক, এই জাতীয় ওষুধ গ্রহণ করার আগে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।

যে কোনো ধরনের মাথাব্যথা সারানোর ঘরোয়া উপায় হলো শান্ত অন্ধকার ঘরে বিশ্রাম নেয়া। এর সঙ্গে মাথা ও ঘাড়ে গরম বা ঠাণ্ডা কম্প্রেস ব্যবহার কিংবা ম্যাসেজ করা ইত্যাদি। আঘাত বা পড়ে যাওয়ার পরে যদি আপনার মাথাব্যথা হয় বা যদি চিকিৎসার পরেও ব্যথা না কমে তবে অবিলম্বে ডাক্তারের পরামর্শ নিন।