• বৃহস্পতিবার   ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ১৯ ১৪২৯

  • || ০৯ রজব ১৪৪৪

সর্বশেষ:
ফিলিস্তিনিদের পাশে দাঁড়াতে মুসলিমদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান সংখ্যালঘু বলতে কোনো শব্দ নেই, আমরা সবাই বাঙালি: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আইএমএফের ঋণই প্রমাণ করে দেশের অর্থনীতির ভিত্তি মজবুত: অর্থমন্ত্রী করোনা মহামারির মধ্যেও বাংলাদেশের অর্থনীতি ৩.৮% প্রসারিত হয়েছে শিক্ষা নিয়ে ব্যবসা করার মানসিকতা পরিহার করার আহ্বান রাষ্ট্রপতির

চীনে বায়ুদূষণে প্রতি বছর ৬৪ হাজার ভ্রুণের মৃত্যু: রিপোর্ট

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ৬ ডিসেম্বর ২০২২  

বর্তমান বিশ্বে উদ্বেগের অন্যতম কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে বায়ুদূষণ। প্রাণহানির অন্যতম কারণ হয়ে উঠেছে এটি। বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ দেশ চীনে বায়ুদূষণ এমন মারাত্মক পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, রেহাই পাচ্ছে না গর্ভস্থ ভ্রূণও। বছরে ৬৪ হাজার ভ্রুণের মৃত্যু হয় কেবল বায়ুদূষণের কারণে। শুনতে অবিশ্বাস্য লাগলেও এক সমীক্ষা রিপোর্টে এমনই তথ্য প্রকাশিত হয়েছে।

রোববার (৪ ডিসেম্বর) দেশটির সংবাদমাধ্যম সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট সমীক্ষাটি প্রকাশ করেছে।

আলোচিত সেই সমীক্ষা রিপোর্টে জানানো হয়েছে, চীনে প্রতিবছর বায়ুদূষণের কারণে গর্ভের মধ্যেই মৃত্যু হচ্ছে ৬৪ হাজার শিশুর। বায়ুদূষণের কারণে শিশু মৃত্যুর তালিকায় চীন চতুর্থ স্থানে। তবে বায়ুদূষণ নিয়ন্ত্রণে গত ১০ বছর ধরে চীনের রাজধানী শহর বেইজিং বিশেষ পদক্ষেপ করছে বলে সমীক্ষা রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে।

সমীক্ষা চালানো পেকিং বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা জানান, চীন সহ ১৩৭টি দেশের বায়ুর মান তুলনামূলকভাবে ভাল হয়েছে। তবে গর্ভস্থ ভ্রূণের উপর বায়ুদূষণের প্রভাব ঠেকাতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পক্ষ থেকে বৈঠক করা হয়েছে। চীনা সরকারও ভ্রূণের মৃত্যু ঠেকাতে বায়ুদূষণ মোকাবিলায় বিশেষ পদক্ষেপ করেছে।

উল্লেখ্য, ২০২০ সালে প্রথম এই বিষয়টি নিয়ে বিশেষ পদক্ষেপ করা হয়। সেই বছর ইউনিসেফ এই ঘটনাকে ‘নেগলেকটেড ট্রাজেডি’ বলে উল্লেখ করেছিল। তারপর থেকেই বায়ুদূষণের জন্য ভ্রূণের মৃত্যু ঠেকাতে বিশেষ পদক্ষেপ করা হয়।