• বৃহস্পতিবার ২৫ এপ্রিল ২০২৪ ||

  • বৈশাখ ১১ ১৪৩১

  • || ১৫ শাওয়াল ১৪৪৫

সর্বশেষ:
যুদ্ধের অর্থ জলবায়ু পরিবর্তনে ব্যয় হলে বিশ্ব রক্ষা পেত- প্রধানমন্ত্রী দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ বিদ্যুৎ উৎপাদনের রেকর্ড মেডিকেল কলেজের ক্লাস অনলাইনে নেয়ার নির্দেশ স্বাস্থ্যমন্ত্রীর ‘গণতান্ত্রিক রীতিনীতি না মানলে জনগণই বিএনপিকে প্রতিহত করবে’ লালমনিরহাটে হত্যা মামলায় বিএনপির দুই নেতা কারাগারে

ত্বকের যত্নে রাখুন আট রকম তেল

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩  

শীত কিন্তু এখনও বিদায় নেয়নি। যদিও দুয়ারে বসন্ত। আর এই সময় আমাদের ত্বক হয়ে উঠেছে শুষ্ক ও নিস্তেজ। এমন দিনে ত্বকের বাড়তি যত্ন নিতে হয়। যাদের ত্বক তৈলাক্ত, তারা মনে করেন যে তাদের ত্বকে তেল লাগালে ত্বক আরো তৈলাক্ত হয়ে উঠবে। তবে বাজারে তৈলাক্ত ত্বকের জন্য তৈরি বেশ  কিছু তেল পাওয়া যায় যা ত্বককে হাইড্রেটেড এবং উজ্জ্বল করতে পারে।

চলুন জেনে নেয়া যাক শীতে ত্বকের যত্নে উপকারি আট রকম তেলের কথা

নারকেল তেল: ত্বকের যত্নে নারকেল তেল অনেক উপকারী। গোসলের পর ময়েশ্চারাইজার হিসেবে এটি ব্যবহার করা যায়। 

ল্যাভেন্ডার তেল: ত্বকের যত্নে আরেকটি উপকারী তেল হলো ল্যাভেন্ডার তেল। সাধারণত যাদের ত্বক জ্বালাপোড়া করে এবং ব্রণের প্রবণতা আছে তারা এই তেল ব্যবহার করলে উপকার পাবেন। এটি একটি প্রাকৃতিক অ্যান্টিসেপটিক এবং জীবাণুনাশক। 

টি ট্রি অয়েল: শীতে ত্বকের যত্নে অনেক উপকারী টি ট্রি অয়েল। এটিতে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টি-ফাঙ্গাল গুণ রয়েছে যা অনেক উপকারী। এটি নারকেল, জলপাই বা বাদামের তেলের সঙ্গে মিশিয়ে ব্যবহার করা যায়। 

অলিভ অয়েল: খাঁটি অলিভ অয়েল, বিশেষ করে এক্সট্রা-ভার্জিন অলিভ অয়েল, মোটামুটি পুষ্টিকর এবং মুখের তেল হিসাবে অনেক জনপ্রিয়। শীতকালে ময়শ্চারাইজার হিসাবে ব্যবহার করা যায় এই তেল। 

বাদাম তেল: খুব শশুষ্ক ত্বকের জন্য বিশেষভাবে উপকারী বাদাম তেল। শীতকালে চুলকানি, ব্যথা এবং শুষ্কতা দূর করতে সাহায্য করে বাদামের তেল। ডিমের কুসুমের সঙ্গে মিশিয়ে এই তেল ত্বকে লাগতে পারেন। 

জোজবা অয়েল: ত্বকের যত্নে জোজবা অয়েল অনেক উপকারী। কারণ এতে জিঙ্ক এবং কপারের মতো খনিজ এবং ভিটামিন বি এবং ই রয়েছে যা ত্বককে শক্তিশালী করতে সহায়তা করে।

আরগান অয়েল: আরগান অয়েলে ভিটামিন ই এবং অন্যান্য ফ্যাটি অ্যাসিড রয়েছে। এটা এতোটাই হালকা যে ত্বক দ্রুত  শুষে নেয়। ত্বককে দীর্ঘ সময়ের জন্য এটি ত্বককে  ময়েশ্চারাইজ রাখে।

ইলাং-ইলাং অয়েল: এটি ত্বকে তেল উৎপাদনের ভারসাম্য বজায় রাখে। এটির অ্যান্টি-এজিং প্রভাবও রয়েছে। এর অ্যান্টিসেপটিক বৈশিষ্ট্য ব্রণ দূর করতে সাহায্য করে এবং ত্বক পরিষ্কার করতে কাজ করে।