• রোববার   ২৯ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৫ ১৪২৯

  • || ২৬ শাওয়াল ১৪৪৩

সর্বশেষ:
বাংলাদেশের রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার প্রশংসা পর্তুগালের মরণোত্তর ‘দ্যাগ হ্যামারশোল্ড’ পেলেন দুই বাংলাদেশি শান্তিরক্ষী দেশে ভেনামি চিংড়ি চাষে আগ্রহ বাড়ছে কৃষকদের শিল্পনগরী ও অর্থনৈতিক অঞ্চল হচ্ছে দিনাজপুর: হুইপ ইকবালুর রহিম আরও সময় নিয়ে বৈঠকের প্রস্তুতি নিতে চায় দুই ঢাকা-দিল্লি

নীলফামারী জেলার ১২০৫ পরিবার পেলো স্থায়ী ঠিকানা

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ২৬ এপ্রিল ২০২২  

নিজের এক খন্ড জমি হইবে, থাকিবার পাকা ঘর ইইবে মুই কোন দিন স্বপ্নেও ভাবির পাওনাই। শেখ সাহেবের বেটি আইজ মোক এখন্ড জমি, এখান থাকিবার বাড়ি দেইল। শেখ সাহেবের বেটিক বাঁচিয়া না থাকিলে সারা জীবন বৌ-ছাওয়াক নিয়া মোক রাস্তাত পরি থাকির লাগিল হই।ঈদের আগেই প্রধানমন্ত্রী দেওয়া উপহার জমি আর নতুন বাড়িসহ স্থায়ী ঠিকানা পেয়ে আবেগে আপ্লুতো হয়ে এসব কথা বলেন নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার ভূমিহীন কায়েকী শ্রমিক অফিজ উদ্দিন (৫০)। শুধু আফিজ উদ্দিনই নন তার মতো নীলফামারী জেলায় এক হাজার দুইশত পাঁচটি ভূমি ও গৃহহীন এবং ছিন্নমূল পরিবার ঈদের স্থায়ী ঠিকানা পেয়েছেন। 

মঙ্গলবার(২৬ এপ্রিল) সকালে গণভবন থেকে এসব পরিবারের হাতে ঘরের মালিকানাসহ দলিল তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেই সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছাও বিনিময় করেন তিনি।

শ্রমিক অফিজ উদ্দিন (৫০) আরো বলেন, মোর নিজের থাকির কোন জমি-বাড়ি নাই। বৌ আর তিন ছেলেকে নিয়ে এতো দিন রাস্তায় রাস্তায় ছিনু। দিন মজুরীর কাজ  করিয়া বৌ-ছাওয়া গুলাক ঠিক মতো মুখোত ভাত তুলিয়া দিবার পাছুনা তিন বেলা। সেইটে জমি আর বাড়ি করিম কি দিয়া। তাই কোন দিন স্বপ্নে ভাবির পাওনাই, যে মোর নিজের জমি আর বাড়ি হইবে। নিজের জমি আর নতুন বাড়িত বৌ-ছাওয়া নিয়া ঈদ আনন্দ করির পাইম সেটাও মুই কোন দিন কল্পনাই করো নাই। 
শেখ সাহেবের বেটি আইজ মোক এখন্ড জমি, এখান থাকিবার বাড়ি দেইল। গতকাইল পর্যন্ত মুই ভ‚মিহীন ছিনু, আইজ মুই জমি-বাড়ির মালিক। ঈদের আগত মুই নতুন বাড়ি পানু, জমি পানু, এবার বৌ-ছাওয়াক নিয়া আনন্দে ঈদ করিম। এলা মোক কাহো আর কবার পাইবে না, মুই রাস্তার মাইনষি। আল্লাহ্ তুমি শেখ সাহেবের বিটিক শতবছর আয়ু দান করো। শেখের বেটি বাঁচি থাকলে দেশেত কাহো রাস্তাত পড়ি থাকিবে না।

সকালে গণভবন থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের পর পরই নীলফামারী জেলার ছয় উপজেলায়
এক হাজার দুইশত পাঁচ পরিবারের মাঝে আশ্রয়ণ প্রকল্প তৃতীয় পর্যায়ে জমিসহ বাড়ির দলিল হস্তান্তর করে জেলা প্রশাসন। এসময় নীলফমারী-১ আসনের সংসদ সদস্য বীরমুক্তিযোদ্ধা আফতাব উদ্দিন সরকার, নীলফামারী-২ আসনের সংসদ সদস্য বীরমুক্তিযোদ্ধা আসাদুজ্জামান নূর, রংপুর বিভাগের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশানর মো. ইব্রাহিম খান, জেলা প্রশাসক খন্দকার ইয়াসির আরেফীন, ডিমলা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা তবিবুর রহমান, জলঢাকা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল ওয়াহেদ বাহাদুর, কিশোরগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল কালাম বারী পাইলট, সৈয়দপুর উপজেলা পরিষদ চেয়রাম্যান মোখছেদুল মোমিন, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শাহিদ মাহমুদসহ ছয় উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা ও প্রকল্পবাস্তবায়ন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

জেলা প্রশাসক খন্দকার ইয়াসির আরেফীন বলেন,‘মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্প তৃতীয় পর্যায়ে নীলফামারী জেলার ছয় উপজেলায় মোট এক হাজার ২০৫টি পরিবারকে ঈদের আগেই স্থায়ী ঠিকানা উপহার দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। 

এর মধ্যে নীলফামারীর ডিমলা উপজেলায় ৩২৩টি, জলঢাকা উপজেলায় ২৮০টি, সদর উপজেলায় ২৬০টি, কিশোরগঞ্জ উপজেলায় ১৭৭টি, সৈয়দপুর উপজেলায় ৮৫টি এবং ডোমার উপজেলায় ৮০টি পরিবার রয়েছেন।