• মঙ্গলবার   ০৪ অক্টোবর ২০২২ ||

  • আশ্বিন ১৮ ১৪২৯

  • || ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

সর্বশেষ:
মুজিববর্ষে সরকারি ঘর পেয়েছে প্রায় ২ লাখ পরিবার: প্রধানমন্ত্রী আগামী প্রজন্মের জন্য পরিকল্পিত নগরায়ণের বিকল্প নেই: রাষ্ট্রপতি বাংলাদেশ অঞ্চলের ৫০ লাখ ভিডিও সরিয়েছে টিকটক: টেলিযোগাযোগমন্ত্রী করতোয়ায় দেশের বৃহত্তম ওয়াই ব্রিজ হবে: রেলমন্ত্রী সুজন বিএনপি সুযোগ পেলে আবার নির্যাতন চালাবে: তোফায়েল আহমেদ

হারিয়ে যাওয়া শিশুকে নানির কাছে ফিরিয়ে দিল পুলিশ

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ২০ আগস্ট ২০২২  

হারিয়ে যাওয়া শিশুকে নানির কাছে ফিরিয়ে দিল পুলিশ                 
নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলা শহরের বাস টার্মিনালের পেট্রোল পাম্প এলাকায় হারিয়ে যাওয়া শিশু মারুফ হাসানকে তার নানির কাছে ফিরিয়ে দিয়েছে পুলিশ। 

গতকাল শুক্রবার (১৯ আগস্ট) সকাল ১১টায় আইনি প্রক্রিয়া শেষে শিশুটিকে তার নানি আয়েশা বেগমের হাতে তুলে দেন সৈয়দপুর থানার উপপরিদর্শক ইন্দ্র মোহন রায়।

তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার রাতে শহরের বাস টার্মিনাল এলাকার আশপাশে রুটিন টহল দেওয়ার সময় খালেক পাম্পের সামনে খালি গায়ে থাকা একটি শিশুকে দেখতে পাই। তাকে কাছে ডেকে নাম-ঠিকানা জানতে চাইলে সে নিজের নাম জানায় মারুফ হাসান, তার পিতা রুবেল ও গ্রাম হ্যাচারি পাড়া ছাড়া আর কিছুই বলতে পারে না। 

পরে আমি শিশুটিকে থানায় নিয়ে আসি। শিশুটির ঠিকানা ও তার স্বজনদের সন্ধান পেতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন থানায় তথ্য পাঠাই এবং শিশুটির দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে পরিবারের সন্ধান অব্যাহত রাখি। 

তিনি বলেন, এক পর্যায়ে শিশুটি গোবিন্দপুর স্কুলে পড়া লেখা করে বলে জানালে গুগলে স্কুল এবং গ্রাম হ্যাচারি পাড়া দিয়ে সন্ধান করে স্কুলের ঠিকানা বের করি। পরে নীলফামারী থানা পুলিশের সহযোগিতায় জেলা সদরের গাছবাড়ি গোবিন্দপুর হ্যাচারি এলাকায় তার নানি আয়েশা বেগমের সন্ধান মেলে। খবর পেয়ে আজ সকালে থানায় এলে নানিকে পেয়ে জড়িয়ে ধরে শিশু মারুফ।

উপপরিদর্শক ইন্দ্র মোহন রায় বলেন, ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেওয়ায় অনেকেই শিশুটির সন্ধান দিতে পেরেছে, বিশেষ করে নীলফামারী সদরে হ্যাচারি নামক জায়গাটির কথা অনেকেই বলেছেন। সুতরাং সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ। তাকে পরম যত্নে থানা হেফাজতে রাখা হয়। গায়ে কোনো কাপড় না থাকায় তাকে একটি শার্ট কিনে দেওয়া হয়। পড়ে তার নানি থানায় এলে আইনি প্রক্রিয়া শেষে মারুফকে তার কোলে ফিরিয়ে দেওয়া হয়। 

নানি আয়েশা বেগম বলেন, মারুফের বাবা ৭ বছর আগে মারা গেলে তার মা মুক্তা অন্যত্র বিয়ে করে চট্টগ্রামে বসবাস করছে। তখন থেকে সে আমার কাছেই থাকে। তাকে বাড়িতে না পেয়ে অনেক জায়গায় খোঁজাখুঁজি করেছি। পুলিশের সহায়তায় তাকে ফিরে পেয়েছি। পুলিশকে অনেক ধন্যবাদ।