• মঙ্গলবার   ০৪ অক্টোবর ২০২২ ||

  • আশ্বিন ১৮ ১৪২৯

  • || ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

সর্বশেষ:
মুজিববর্ষে সরকারি ঘর পেয়েছে প্রায় ২ লাখ পরিবার: প্রধানমন্ত্রী আগামী প্রজন্মের জন্য পরিকল্পিত নগরায়ণের বিকল্প নেই: রাষ্ট্রপতি বাংলাদেশ অঞ্চলের ৫০ লাখ ভিডিও সরিয়েছে টিকটক: টেলিযোগাযোগমন্ত্রী করতোয়ায় দেশের বৃহত্তম ওয়াই ব্রিজ হবে: রেলমন্ত্রী সুজন বিএনপি সুযোগ পেলে আবার নির্যাতন চালাবে: তোফায়েল আহমেদ

জেলা প্রশাসক যখন শিক্ষক

– নীলফামারি বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ২৫ আগস্ট ২০২২  

জেলা প্রশাসক যখন শিক্ষক                         
নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলার বালাগ্রাম ইউপির বালাগ্রাম সাউথ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ক্লাস (পাঠদান) নিয়েছেন জেলা প্রশাসক (ডিসি) খন্দকার ইয়াসির আরেফীন। গতকাল সোমবার দুপুরে উপজেলার বালাগ্রাম ইউপির বালাগ্রাম সাউথ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের পড়ান তিনি।

সবুজে ঘেরা ওই বিদ্যালয়ে পরিদর্শনে গিয়েছিলেন তিনি। বই হাতে ক্লাস নেয়ায় ছবি ইতোমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। জেলার প্রশাসনিক শীর্ষ কর্মকর্তার এই অংশগ্রহণ পাঠদানে প্রভাব ফেলবে বলে মনে করছে স্থানীয়রা। 

জানা গেছে, সোমবার দুপুরে  উপজেলার বালাগ্রাম ইউপির বালাগ্রাম সাউথ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শনে যান তিনি। এ সময় পঞ্চম শ্রেণির ক্লাসে যান এবং শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন। একপর্যায়ে পাঠ্যবই হাতে নিয়ে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পাঠদানে অংশ নেন জেলা প্রশাসক। ছবিতে দেখা যায় কবিতা ও গণিত বিষয়ে পাঠদান করাচ্ছিলেন। 

পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র মেরাজ উদ্দিন বলেন, আমরা ডিসি স্যারকে চিনতাম না। তিনি এসে আমাদের সঙ্গে কথা বলেছেন এবং ক্লাস নিয়েছেন। আমরা খুব খুশি হয়েছি। এতবড় একজন মানুষ আমাদের পড়িয়েছেন এটা আগে কখনো দেখিনি। 

প্রধান শিক্ষক শাজ আফজালুর রহমান বলেন, ডিসি স্যার এসে মুগ্ধ হয়েছেন এখানকার পরিবেশ দেখে। শ্রেণিকক্ষে যান এবং শিক্ষার্থীদের পাঠদান করান। এটি বিশেষত্ব বহন করে। 

নীলফামারী মডেল কলেজের অধ্যক্ষ গোলাম মোস্তফা বলেন, জেলা প্রশাসকের ক্লাস নেয়া যেমন শিক্ষার্থীরা উৎসাহ পাবে তেমনি তাদের মধ্যে বড় কর্মকর্তা কিংবা শিক্ষিত মানুষ গড়ে উঠার মানসিকতা তৈরি হবে।
 
জেলা প্রশাসক খন্দকার ইয়াসির আরেফীন বলেন, নীলফামারী জেলাকে আরো এগিয়ে নেওয়ার জন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো নিয়মিত পরিদর্শনের পাশাপাশি শিক্ষার মানোন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করছি। আমি প্রশাসনে চাকরি করলেও শিক্ষকতা পেশার প্রতি আমার গভীর শ্রদ্ধাবোধ ও ভালোবাসা আছে।